উন্নয়নে বদলে যাচ্ছে চট্টগ্রাম

প্রকাশের সময় : 2020-01-29 14:33:00 | প্রকাশক : Administration
উন্নয়নে বদলে যাচ্ছে চট্টগ্রাম

সিমেক ডেস্কঃ উন্নয়নে বদলে যাচ্ছে বাণিজ্যিক রাজধানী বন্দরনগর চট্টগ্রামের দৃশ্যপট। সত্যিকারের বাণিজ্যিক রাজধানী হিসেবে গড়ে তুলতে বিভিন্ন সংস্থার মাধ্যমে চলছে হাজার হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ। এসব প্রকল্প পুরোদমে চালু হলে পাল্টে যাবে চট্টগ্রামের চিত্র। কর্মসংস্থান হবে লাখ লাখ মানুষের। একই সঙ্গে সত্যিকারের বাণিজ্যিক রাজধানী হওয়ার পথে অবকাঠামোগত সংকট অনেকটাই দূর হবে।

চট্টগ্রামকে সত্যিকারের বাণিজ্যিক রাজধানী হিসেবে গড়ে তুলতে সরকার বদ্ধপরিকর। তাই চট্টগ্রামের উন্নয়নের জন্য হাজার হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্প হাতে নিয়েছে সরকার। এরই মধ্যে অনেক প্রকল্পের কাজ শেষ হয়েছে। বাকি উন্নয়ন প্রকল্পগুলোর কাজও চলছে দ্রুততার সঙ্গে। সব প্রকল্পের কাজ শেষ হলে চট্টগ্রামের দৃশ্যপট আমূল পরিবর্তন হবে। কর্মসংস্থান হবে লাখ লাখ মানুষের।

জানা যায়, চট্টগ্রামকে সত্যিকারের বাণিজ্যিক রাজধানী হিসেবে  গড়ে তুলতে হাজার হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্প হাতে নিয়েছে সরকার। সিটি করপোরেশন, চট্টগ্রাম বন্দর, ওয়াসা, রেলওয়ে, সিডিএ ও পানি উন্নয়ন বোর্ডসহ (পাউবো) সরকারি বিভিন্ন সংস্থার মাধ্যমে চলছে প্রকল্পগুলোর কর্মযজ্ঞ। কর্ণফুলী নদী ঘিরে চলছে দেশের প্রথম টানেল নির্মাণের কাজ। এরই মধ্যে এ টানেলের প্রায় ৬০ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। ৯ হাজার ৮৮০ কোটি টাকার এ প্রকল্পের কাজ শেষ হলে চীনের সাংহাইর মতো ‘ওয়ান সিটি টু টাউন’-এ পরিণত হবে চট্টগ্রাম নগর ও আনোয়ারা উপজেলা। চট্টগ্রাম নগরের প্রধান সড়কের যানজট নিরসনে চলছে এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের নির্মাণকাজ।

নগরীর লালখান বাজার থেকে শাহ আমানত বিমানবন্দর পর্যন্ত এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণ শেষ হলে নগরের যানজট সমস্যা অনেকটাই নিরসন হবে। তখন দ্রুততম সময়ের মধ্যে বিমানবন্দর থেকে আসা-যাওয়া করা যাবে। এ প্রকল্পের নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে ৩ হাজার ২৫০ কোটি টাকা। দ্রুততার সঙ্গে চলছে ১৮ হাজার কোটি টাকায় দোহাজারী-রামু-কক্সবাজার-ঘুনধুম রেললাইন স্থাপন প্রকল্প, দুই হাজার কোটি টাকায় বে-টার্মিনাল, প্রায় পাঁচ হাজার কোটি টাকার ওয়াসার পানি সরবরাহ প্রকল্প, মেরিন ড্রাইভ প্রকল্পের কাজ।

ক্রমান্বয়ে দৃশ্যমান হচ্ছে দেশের বৃহৎ অর্থনৈতিক অঞ্চল মিরসরাইয়ের বঙ্গবন্ধু শিল্পনগরী এবং আনোয়ারা অর্থনৈতিক অঞ্চল। এ দুটি প্রকল্পের কাজ শেষ হলে তাতে কর্মসংস্থান হবে লাখ লাখ মানুষের, যেখানে বিনিয়োগ হবে কোটি কোটি ডলার। এরই মধ্যে চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়েছে হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত এম এ মান্নান ফ্লাইওভার, আখতারুজ্জামান ফ্লাইওভার, কদমতলী ফ্লাইওভার, দেওয়ানহাট ওভারপাস, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক, চট্টগ্রাম -কক্সবাজার মহাসড়ক, চট্টগ্রাম-খাগড়াছড়ি- রাঙামাটি সড়ক, ডিটি-বায়েজিদ সংযোগ সড়ক, শাহ আমানত সেতু-বহদ্দারহাট ছয় লেনের সংযোগ সড়ক, আউটার রিং রোড, ইনার রিং রোডের কাজ।

এসব প্রকল্প চালু হওয়ার ফলে নগরের যানজট নিয়ন্ত্রণে এসেছে অনেকটা। চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক ইলিয়াছ হোসেন বলেন, ‘চট্টগ্রামে আট মেগা প্রকল্পসহ অসংখ্য উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ চলছে। এসব উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ শেষ হলে চট্টগ্রামের অর্থনৈতিক চেহারাই পাল্টে যাবে।’ - সূত্রঃ বাংলাদেশ প্রতিদিন

 

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ সরদার মোঃ শাহীন,
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ রফিকুল ইসলাম সুজন,
বার্তা সম্পাদকঃ ফোয়ারা ইয়াছমিন,
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ আবু মুসা,
সহঃ সম্পাদকঃ মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিসঃ ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২,
উত্তরা, ঢাকা,
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com