দেশের বড় বড় কাজে ছেলেরা নেই কেন?

প্রকাশের সময় : 2020-02-12 12:45:42 | প্রকাশক : Administration

মুহম্মদ জাফর ইকবালঃ কয়দিন আগে আমি শিশু চলচ্চিত্র উৎসবের সংবাদ সম্মেলনে গিয়েছিলাম। এর আয়োজক ‘চিলড্রেন ফিল্ম সোসাইটি বাংলাদেশ’ এবং আমি এই সংগঠনটির প্রেসিডেন্ট; কাজেই আমাকে যেতেই হবে! ঢাকা শহরের ভেতরে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যাওয়াটি এক সময় কঠিন ছিল এখন সেটা ‘কঠিন’ স্তর পার হয়ে ‘কপাল’ স্তরে পৌঁছে গেছে। অর্থাৎ যত প্রস্তুতি নিয়েই রওনা দেয়া হোক না কেন শুধুমাত্র কপালে থাকলে ঠিক সময়ে গন্তব্যে পৌঁছা যাবে। এই দিনটিতে আমার কপাল ভাল ছিল এবং আমি ঠিক সময়ে পৌঁছতে পেরেছি।

সংবাদ সম্মেলনের মঞ্চে গিয়ে আমি পেছনে আমাদের ব্যানারটির দিকে তাকিয়ে একটু চমকে উঠলাম। আমি জানি বেশ অনেকদিন থেকে এই চলচ্চিত্র উৎসবটির আয়োজন করা হচ্ছে কিন্তু আমি হঠাৎ নতুন করে অনুভব করলাম যে এটি তেরোতম শিশু চলচ্চিত্র উৎসব! অর্থাৎ এর আগে একবার নয় দুইবার নয় এক ডজনবার এই উৎসবটির আয়োজন করা হয়েছে।

আমি জানি আমার অহঙ্কার করার কিছুই নেই, কারণ আক্ষরিক অর্থেই আমাকে কিছুই করতে হয় না, সবকিছু অন্যরা করে তার পরও এক ধরনের ছেলেমানুষী গর্বে আমার বুকটা ফুলে উঠল। একটা কিছু হয়ত শুরু করা যায় কিন্তু সেটাকে চালিয়ে নেয়া সম্পূর্ণ ভিন্ন ব্যাপার। আমাদের বিশ্বাস না করে উপায় নেই যে এটিকে নিরবচ্ছিন্নভাবে তেরো বছর থেকে চালিয়ে নেয়া হয়েছে। কী অসাধারণ একটি ব্যাপার।

এই চলচ্চিত্র উৎসবটি যে আসলেই অসাধারণ একটি ব্যাপার তার অনেকগুলো কারণ আছে। প্রথম কারণ এটি শিশুদের জন্য। আমাদের দেশে শিশুদের জন্য কোচিং সেন্টার ছাড়া আর কী আছে? একজন শিশু স্কুলে গিয়ে পুরোপুরি নিরানন্দ পরিবেশে দিন কাটায়, লেখাপড়া মানে এখন পরীক্ষা ছাড়া আর কিছু নয় তাই কেউ কিছু শিখতে চায় না। কেমন করে পরীক্ষায় কিছু বেশি নম্বর পেতে পারে শুধু তার কায়দাকানুন শেখে। স্কুল শেষ করার পর ছেলেমেয়েদের দিন শেষ হয় না তারা একটার পর একটা কোচিং সেন্টারে যেতে থাকে! সেই শিশুদের কথা স্মরণে রেখে শুধু শিশুদের জন্য যদি চলচ্চিত্র উৎসবের আয়োজন করা হয় তাকে অসাধারণ তো বলতেই পারি!

তবে এই চলচ্চিত্র উৎসবটি থেকে আমার সবচেয়ে বড় পাওয়া অন্য জায়গায়। আমি সারা জীবন যেটি বিশ্বাস করে এসেছি এখানে ঠিক সেটি ঘটতে দেখছি। আমি আমার জীবনে সব সময়ে দেখে এসেছি যে যদি খুব বড় একটা কাজ করতে হয় তাহলে সেটি করতে হয় ভলান্টিয়ারদের দিয়ে। টাকা খরচ করে অনেক কিছু করা যায় কিন্তু সেই কাজে হৃদয়ের স্পর্শ থাকে না বলে এক জায়গায় এসে থেমে যায়। ভলান্টিয়ারদের কাজ কোথাও থেমে যায় না সেটা এগুতেই থাকে, এগুতেই থাকে।

এই আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবটি গত কয়েক বছর থেকে একেবারেই কম বয়সী তরুণ এবং শিশু-কিশোররা মিলে আয়োজন করছে। চলচ্চিত্র বেছে নেয়া থেকে শুরু করে, আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান থেকে সেগুলো সংগ্রহ করা থেকে শুরু করে, উৎসবের আয়োজন এবং স্ক্রিনিং সবকিছু করে শিশু-কিশোররা। আমাদের মতো বড় মানুষদের বসে চা খাওয়া কিংবা ছবি দেখা ছাড়া আর কোন কাজ নেই। দায়িত্ব দেয়া হলে শিশু-কিশোররা কত বড় কাজ করতে পারে সেটি নিজের চোখে না দেখলে কেউ বিশ্বাস করবে না! এই শিশু চলচ্চিত্র উৎসবটিকে অসাধারণ একটি উৎসব বলার এটি হচ্ছে অন্যতম একটি কারণ!

আমি যে পত্রপত্রিকা এবং পোর্টালগুলোতে আমাদের নিজেদের কাজকর্মের কথাই একটু বড় গলায় বলার চেষ্টা করছি তার পেছনেও একটা দুঃখের কাহিনী আছে। এত যত্ন করে সংবাদ সম্মেলন করে পৃথিবীর সবচেয়ে বড় একটি শিশু চলচ্চিত্র উৎসবের আয়োজনটির কথা সবাইকে জানানোর পরও আমরা অবাক হয়ে দেখি পত্রপত্রিকায় তার কোন উল্লে−খ নেই! আজকাল সংবাদপত্রগুলোও মনে হয় খানিকটা স্বার্থপরের মতো। তারা যেখানে নিজেরা যুক্ত থাকে তার বাইরের খবরগুলো ছাপাতে আগ্রহী হয় না। সংবাদপত্রগুলো যদি শুধু নিজেদের খবরই ছাপাবে তাহলে আমরা তাদের জাতীয় সংবাদপত্র কেন বলি?

আমি খুব জোর গলায় বলেছি খুব বড় কাজ করতে হলে সেগুলো করাতে হয় ভলান্টিয়ারদের দিয়ে। তারাই একেবারে নিঃস্বার্থভাবে এর জন্য কাজ করতে পারে। আমি কিছু দিন হলো একটুখানি দুশ্চিন্তা নিয়ে লক্ষ্য করছি নিজের খেয়ে বনের মোষ তাড়ানোর এই কাজগুলোতে শুধু মেয়েরা নিজেদের থেকে এগিয়ে আসছে। ছেলেদের খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। দেশের বড় বড় কাজে ছেলেরা নেই কেন? তারা কোথায়? তারা কি করে? কেমন করে সময় কাটায়? তাদের নিয়ে কি দুশ্চিন্তা করব? (সংকলিত)

 

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ সরদার মোঃ শাহীন,
বার্তা সম্পাদকঃ ফোয়ারা ইয়াছমিন,
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ আবু মুসা,
সহঃ সম্পাদকঃ মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিসঃ ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২,
উত্তরা, ঢাকা,
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com