বিদ্যুৎ নিয়ে আমরা আশাবাদী হতেই পারি

প্রকাশের সময় : 2020-02-26 10:41:26 | প্রকাশক : Administration
বিদ্যুৎ নিয়ে আমরা আশাবাদী হতেই পারি

১৩ নভেম্বর সাতটি নতুন বিদ্যুৎ কেন্দ্র এবং ২৩ উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুতায়নের উদ্বোধনকালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ‘২০২০ সালের ১৭ মার্চ থেকে ২০২১ সালের ২৬ মার্চ পর্যন্ত সময়কে আমরা মুজিববর্ষ হিসেবে ঘোষণা দিয়েছি। এ সময়ে আমরা সারা দেশের ঘরে ঘরে বিদ্যুতের আলো জ্বালাতে সক্ষম হব। কেউ অন্ধকারে থাকবে না।’

এ নতুন কেন্দ্রগুলো চালু হওয়ার কারণে বর্তমানে মোট বিদ্যুৎ উৎপাদনের পরিমাণ দাঁড়ানোর কথা ২২ হাজার ৫৬২ মেগাওয়াটে। যদি উৎপাদনের পরিমাণ যথাযথভাবে হয় তাহলে দেশের ৯৫ শতাংশ মানুষ বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় আসবে। উল্লেখিত ২৩ উপজেলা আমলে নিলে আমাদের মোট ৪৯২টি উপজেলার মধ্যে ২৩৪টিই শতভাগ বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় এসে গেছে। বিদ্যুৎ বিভাগ বলছে, আরও ১২৭ উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুতায়ন পাইপলাইনে আছে। কেবল উদ্বোধনের অপেক্ষায়। বাদবাকি উপজেলাগুলোতে শতভাগ বিদ্যুতায়নের জন্য সময়কাল হিসেবে মুজিববর্ষকে বেছে নেয়া হয়েছে।

যদি তা সময়মতো করা যায় তাহলে ২০২১ সাল নাগাদ দেশের মোট বিদ্যুৎ উৎপাদন দাঁড়াবে ২৪ হাজার মেগাওয়াট। পরিকল্পনা অনুযায়ী সরকার এগিয়ে যেতে পারলে মোট বিদ্যুৎ উৎপাদন বেড়ে দাঁড়াবে ২০৩০ সাল নাগাদ ৪০ হাজার এবং ২০৪১ সালে ৬০ হাজার মেগাওয়াটে। আশার কথা হল, যেসব দুর্গম ও পাহাড়ি এলাকায় বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন করা কঠিন, সেখানে বিকল্প সৌরবিদ্যুৎ সরবরাহের কথাও প্রধানমন্ত্রী বলেছেন। আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাসের ওপর ভরসা রাখতে চাই।

বর্তমানে দেশের রাজনীতিতে গণতন্ত্র কতখানি স্বমহিমায় উপস্থিত, তা নিয়ে আর দশজনের মতো আমিও সন্দিহান। যে দুর্নীতিবিরোধী অভিযানের কথা বলা হচ্ছে, তা কতখানি বাস্তব রূপ লাভ করবে, তা নিয়ে সবার মতো আমার মনেও প্রশ্ন জাগে। কিন্তু আওয়ামী লীগের গত ১০ বছরের শাসনব্যবস্থায় বিদ্যুৎ উৎপাদন ও সরবরাহের সক্ষমতা নিয়ে আমার মনে কোনো সন্দেহ নেই। এ খাতে সরকার সম্পূর্ণ সফল না হলেও সন্তোষজনক অগ্রগতি দেখাতে সক্ষম হয়েছে।

যার যা পাওনা তাকে তা দিয়ে দেয়া সুবিবেচকের কাজ। তবে আমরা তা কোনো রাজনৈতিক দলকে প্রতিপক্ষ ভেবে মূল্যায়ন করতে চাই না। কেননা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আরও বলেছেন, ‘২১ বছর পর সরকার গঠন করে ১৯৯৬ সালে বিদ্যুৎ পেয়েছিল মাত্র ১৬০০ মেগাওয়াট। পরবর্তী ৫ বছরে ৪ হাজার ৩০০ মেগাওয়াট করে রেখে গেলেও ২০০১-পরবর্তী বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার পরবর্তী ৫ বছরে দেশের বিদ্যুৎ উৎপাদন এক মেগাওয়াটও বাড়াতে পারেনি। উপরন্তু কমিয়ে ৩ হাজার ২০০ মেগাওয়াটে নিয়ে আসে। ২০০৯ সালে ফের সরকার গঠনের পর থেকে বিদ্যুৎকে বেসরকারি খাতে ছেড়ে দেয়াসহ একের পর এক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের মাধ্যমে বিদ্যুৎ উৎপাদন আজকের পর্যায়ে নিয়ে আসতে সক্ষম হয়েছি’ (যুগান্তর, ১৪.১১.২০১৯)।

বস্তুত এটি আমাদের দেশের বর্তমান রাজনৈতিক সংস্কৃতি। আওয়ামী লীগ বিএনপির কোনো ভালো দিক দেখতে পায় না, বিএনপিও আওয়ামী লীগের কোনো ভালো দিকের সন্ধান পায় না। তবে আমরা দ্বিদলীয় সম্পর্কের বাইরে থেকেও বলতে পারি, বিএনপির সময়ে প্রকৃত অর্থেই আমরা বিদ্যুতের অসহনীয় কষ্ট পেয়েছি যা বর্তমানে নেই। তারপরও সে কথায় যেতে চাই না; কারণ, দিনকে দিন তো আমাদের অর্থনীতির আকার বেড়ে চলেছে। এর সঙ্গে তাল মিলিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়াতেই হবে। ১৯৯৬ সালে আমাদের জিডিপির আকার ছিল ৪৮ হাজার ১৬৮ মিলিয়ন ডলার এবং মাথাপিছু আয় ছিল ৩৯৪ ডলার। ২০১৯ সালে জিডিপির আকার দাঁড়িয়েছে ৩১৭ হাজার ৪৬৫ মিলিয়ন ডলার আর মাথাপিছু আয় ১৯০৬ ডলার। সুতরাং চলতি হিসাবে ১৯৯৬ সালের তুলনায় বাংলাদেশের অর্থনীতির আকার ৬ গুণেরও বেশি বড় হয়েছে। সেই ধারাবাহিকতায় আওয়ামী লীগ সরকার বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়াতে সক্ষম হয়েছে এটাই কৃতিত্বের ব্যাপার। বিএনপির সঙ্গে তুলনা নাই বা করলাম।

বিদ্যুৎ বিভাগের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, দেশে ২০০৯ সালে ১ কোটি ৮০ লাখ বিদ্যুৎ গ্রাহক ছিল। ২০১৯ সালের জুন-পরবর্তী সময়ে সে সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৩ কোটি ৫১ লাখে। অর্থাৎ গত ১০ বছরে গ্রাহক সংখ্যা বেড়েছে ১ কোটি ৭১ লাখ; যা প্রায় দ্বিগুণ। শহরাঞ্চল ও গ্রামাঞ্চলে মাথাপিছু বিদ্যুৎ ব্যবহারও বেড়েছে তুলনা করার মতো। আগে বছরওয়ারি মাথাপিছু গড় বিদ্যুৎ ব্যবহার ছিল ২২০ ইউনিট, যা বর্তমানে ৫১০ ইউনিট। সন্দ্বীপে বিদ্যুৎ সরবরাহ উল্লেখ করার মতো। দীর্ঘ ১৫ কিলোমিটার সাগর তলদেশে সাবমেরিন কেবল স্থাপন করে ২০১৮ সালের নভেম্বরে এ সাগরদ্বীপের ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়া হয়। আবার যেখানে ন্যাশনাল গ্রিড নেই সেখানে সৌরবিদ্যুতের ব্যবস্থাও আশাব্যঞ্জক। ২০০৯ সালে যেখানে সৌরবিদ্যুৎ ব্যবহারকারীর সংখ্যা ছিল ৯৬ হাজার, সেখানে ২০১৯ সালে তা এসে দাঁড়িয়েছে ৫৫ লাখে। ৬ অক্টোবর পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড (আরইবি) এরকম আরও ১ হাজার ১৪৬টি দুর্গম গ্রাম চিহ্নিত করেছে, যা তারা আলোকিত করার কথা ভাবছে। বিদ্যুৎ মানুষের ঘরে শুধু আলো দেয় এমনটি নয়। বিআইডিএসের গবেষণা বলছে, আমাদের দেশে ১০ লাখ ইউনিট বিদ্যুৎ বৃদ্ধি পেলে অর্থনীতিতে যোগ হয় ৪ কোটি ৬০ লাখ থেকে ১০ কোটি ৭০ লাখ টাকা। ২০১০ সালের আগেও শুধু চাল আমদানিতে আমরা বছরপ্রতি ব্যয় করতাম ১০০ কোটি মার্কিন ডলার। সেচ সুবিধার কারণে এখন আর আমদানি করতে হয় না। এ সেচকাজে ২০০৯ সালে ব্যবহার হতো ২ লাখ ৩৪ হাজার নলকূপ। ২০১৯ সালে এসে এ নলকূপের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩ লাখ ৬৪ হাজারে। সুতরাং সার্বিক অগ্রগতি পর্যালোচনা করলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কথার ওপর আমাদের আস্থা না রাখার কোনো কারণ নেই। আমরা কোনোভাবেই বিস্মিত হই না এই ভেবে যে, আগামী এক বছরে প্রতি ঘরে বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়া সম্ভব হবে। (সংকলিত) মুঈদ রহমান, অধ্যাপক, অর্থনীতি বিভাগ, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়

 

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ সরদার মোঃ শাহীন,
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ রফিকুল ইসলাম সুজন,
বার্তা সম্পাদকঃ ফোয়ারা ইয়াছমিন,
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ আবু মুসা,
সহঃ সম্পাদকঃ মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিসঃ ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২,
উত্তরা, ঢাকা,
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com