করোনার মধ্যেও ঘুরে দাঁড়াচ্ছে অর্থনীতি

প্রকাশের সময় : 2020-09-03 16:44:29 | প্রকাশক : Administration
করোনার মধ্যেও ঘুরে দাঁড়াচ্ছে অর্থনীতি

সিমেস্ক ডেস্কঃ করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যেও অর্থনীতিতে স্বস্তির আভাস মিলছে। অর্থনীতির প্রধান সূচকগুলোর অন্যতম আমদানি, রফতানি ও রেমিটেন্স সময়ের চেয়ে শক্তিশালী হয়ে ওঠার মাধ্যমে অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়ানোর ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে। পুঁজিবাজারেও চাঙ্গা ভাব দেখা যাচ্ছে। করোনা অর্থনীতির নানা খাতকে ক্ষতিগ্রস্ত করলেও কৃষি তুলনামূলক শক্ত অবস্থান ধরে রেখেছে।

করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যেই প্রধানমন্ত্রীর কলকারখানা ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিয়ে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড সচল করে দেওয়ার মতো সাহসী সিদ্ধান্তের ফলেই অর্থনীতির কালো মেঘ কেটে যাচ্ছে। করোনাভীতি কাটিয়ে মানুষ শামিল হচ্ছে জীবিকার মিছিলে। আর সরকারের নিষেধাজ্ঞা শিথিলের কারণে ক্রমেই গতি ফিরছে দেশের অর্থনীতি ও ব্যবসা-বাণিজ্যে।

জানা যায়, গত বছরের একই সময়ের তুলনায় রফতানি আয়ও বেশি হয়েছে তিন কোটি মার্কিন ডলার। আর গত অর্থবছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধিও আশানুরূপ অর্জিত হয়েছে। আমদানি, রফতানি, রেমিটেন্স, রিজার্ভ, প্রবৃদ্ধি অর্থনীতির এই পাঁচটি সূচক অর্থবছরের শুরু থেকেই ভালভাবে কার্যকর রয়েছে। বিশেষ করে, রফতানি ও রেমিটেন্স প্রবাহ বেড়ে যাওয়ায় অর্থনীতির অন্যান্য সূচকও ধীরে ধীরে শক্তিশালী হয়ে উঠবে বলে আশা করা হচ্ছে।

করোনায় অন্য বড় খাতের রফতানি কমলেও ঔষধ এবং পাট ও পাটজাত পণ্যের রফতানি বেড়েছে। জুলাইয়ে  ১০ কোটি ৩৫ লাখ ডলারের পাট ও পাটজাত পণ্য রফতানি হয়েছে। আর জুলাই মাসে ঔষধ রফতানি বেড়েছে ৪৯ শতাংশ। এ বছর জুলাই এ রফতানি আয় বেড়ে দাঁড়িয়েছে এক কোটি ৭০ লাখ ডলারে।

এ প্রসঙ্গে সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) গবেষণা পরিচালক খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম বলেন, ‘তিন মাসের ভেতরে আমাদের প্রধান রফতানি খাত নেতিবাচক থেকে ইতিবাচক ধারায় ফিরছে, এটা অবশ্যই ভাল খবর। এতে বিদেশী ক্রেতাদের কাছেও ইতিবাচক বার্তা যাবে। আশা করি, পরের মাসগুলোতেও এই প্রবণতা অব্যাহত থাকবে।’

করোনার এই সময়ে প্রতিদিনই প্রবাসীরা আগের যে কোন সময়ের চেয়ে বেশি রেমিটেন্স পাঠাচ্ছেন। অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইতে প্রবাসীরা ২৬০ কোটি মার্কিন ডলারের রেমিটেন্স পাঠিয়েছেন। গত বছরের একই সময়ের তুলনায় রেমিটেন্স বেড়েছে এক বিলিয়ন ডলারের মতো।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য বলছে, একক মাস হিসেবে বাংলাদেশের ইতিহাসে এর আগে কখনও এত পরিমাণ রেমিটেন্স আসেনি। রফতানি আয় ও রেমিটেন্স বৃদ্ধির ফলে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভও নতুন নতুন উচ্চতায় পৌঁছাচ্ছে। সেই সঙ্গে করোনার সঙ্কটের সময় উন্নয়ন সহযোগীরাও জরুরী ভিত্তিতে অর্থ সহায়তা দিয়েছে। ফলে সব মিলিয়ে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বেড়ে দাঁড়ায় ৩ হাজার ৮০০ কোটি ডলার।

শেষ পর্যন্ত জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়েছে বাংলাদেশে। করোনাভাইরাসের কারণে বিশ্বজুড়ে যখন অর্থনীতিতে ধস নেমেছে, তখনও বাংলাদেশে এশিয়ার মধ্যে সর্বোচ্চ জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সদ্য সমাপ্ত ২০১৯-২০ অর্থবছরে মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৫ দশমিক ২০ শতাংশ।

 

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ সরদার মোঃ শাহীন,
বার্তা সম্পাদকঃ ফোয়ারা ইয়াছমিন,
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ আবু মুসা,
সহঃ সম্পাদকঃ মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিসঃ ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২,
উত্তরা, ঢাকা,
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com