ভেড়ামারা ৪১০ মেগাওয়াট পাওয়ার প্লান্ট উদ্বোধন

প্রকাশের সময় : 2018-04-27 21:57:55 | প্রকাশক : Admin
ভেড়ামারা ৪১০ মেগাওয়াট পাওয়ার প্লান্ট উদ্বোধন

সিমেক ডেস্কঃ দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সর্ববৃহত বিদ্যুত কেন্দ্র ভেড়ামারা ৪১০ মেগাওয়াট কম্বাইন্ড সাইকেল পাওয়ার প্লান্ট! প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অত্যাধুনিক এই বিদ্যুত কেন্দ্রের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেছেন। পাশাপাশি বসে ১২ জেলার ১৫টি উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুতায়নও উদ্বোধন করেছেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, বিদ্যুত ব্যবহারে সবাইকে সাশ্রয়ী হতে হবে। এতে দেশের উপকারের পাশাপাশি উপকৃত হবেন যারা বিদ্যুত সাশ্রয় করছেন তারাও। কারণ, তাদের বিল কম আসবে।

শেখ হাসিনা বলেন, আমি নিজে প্রধানমন্ত্রী হয়েও আমি যখন ঘর থেকে বের হই বা বাথরুম থেকে বের হয়ে নিজের হাতে সুইচ বন্ধ করি। তাতে আমার কোনো সম্মান যায় না। নিজের কাজ নিজে করাতে কোনো লজ্জা থাকে না। প্রধানমন্ত্রী বলেন, অনুরোধ করব জনগণকে বিদ্যুত উৎপাদন করতে অনেক টাকা খরচ হয়। যে টাকা খরচ হয়, আমরা কিন্তু ওই টাকা গ্রহণ করি না, এখানে ভর্তুকি দেই। কম টাকাই নেয়া হয়। এক ওয়াট বিদ্যুত উৎপাদন করতে যে খরচ, তার থেকে অনেক কম টাকাই কিন্তু আপনাদের কাছ থেকে নেয়া হয়।

তিনি আরো বলেন, সরকারি মাল দরিয়া মে ঢাল, এটা করলে কিন্তু চলবে না। প্রত্যেককে এ ব্যাপারে যথাযথভাবে আন্তরিক থাকতে হবে। ঘর থেকে বের হলে নিজ হাতে সুইচটা বন্ধ করা, স্কুল বা কলেজ বা অফিস আদালতে যারা আপনারা সরকারি কর্মচারী আছেন বা অফিসার আছেন নিজের হাতে ফ্যানের সুইচটা বন্ধ করলে আপনার কোনো ক্ষতি হবে না। বরং আপনি আপনার দেশের সম্পদটা রক্ষা করলেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বিদ্যুত কেন্দ্রটি উদ্বোধনের পর উত্তর দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ৮ জেলার বিদ্যুতের চাহিদা পূরণ হবে। বর্তমান সরকার আমলে ২০১৪ সালে কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় ৪১০ মেগাওয়াট কম্বাইন্ড সাইকেল পাওয়ার প্লান্টের নির্মাণ কাজ হাতে নেয়া হয়। এর নির্মাণ ব্যয় ধরা হয় ৪ হাজার ১শ’ কোটি টাকা। নির্মাণের পর ২০১৭ সালের ৩১ মার্চ বিদ্যুত কেন্দ্রটি পরীক্ষামূলকভাবে উৎপাদন শুরু করে। এ সময় শুধু গ্যাস টারবাইনে ২৮৭.৫ মেগাওয়াট বিদ্যুত উৎপাদন করে জাতীয় গ্রিডে সরবরাহ করা হয়। পরে তা উন্নীত হয় ৩০০ মেগাওয়াটে। এরপর ১৫ ডিসেম্বর গ্যাস টারবাইনের ফ্লু গ্যাস দিয়ে স্টিম টারবাইনের মাধ্যমে আরও ১৪০ মেগাওয়াট বিদ্যুত উৎপাদন করে সফলতা লাভ করেন বিদ্যুত কেন্দ্রের প্রকৌশলীরা। এরপর থেকে বাণিজ্যিকভাবে ৪১০ মেগাওয়াট বিদ্যুত জাতীয় গ্রিডে সরবরাহ করা হচ্ছে।

 

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ সরদার মোঃ শাহীন,
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ রফিকুল ইসলাম সুজন,
বার্তা সম্পাদকঃ ফোয়ারা ইয়াছমিন,
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ আবু মুসা,
সহঃ সম্পাদকঃ মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিসঃ ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২,
উত্তরা, ঢাকা,
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com