এইট পাশ একটা বিপজ্জনক ডিগ্রি!

প্রকাশের সময় : 2019-08-28 16:55:55 | প্রকাশক : Administration

লুৎফর রহমান রিটনঃ আমাদের জাতীয় সঙ্গীতটি মুক্তিযুদ্ধের সূচনাকালেই স্বাধীনতার আগে থেকেই নির্ধারিত। এটা নির্ধারণ করেছিলেন বঙ্গবন্ধু। ১৯৭০-এর খানিক আগেই। একাত্তরে পশ্চিম বাংলার বিভিন্ন ক্যাম্পে লুঙ্গিপড়া সাধারণ মানুষরা মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে ট্রেনিং নেয়ার সময় জয়বাংলা    শ্লে−াগান দিয়ে অশ্র“সজল চোখে সমবেত কণ্ঠে এই গানটি গাইতেন।

১৯৭৫-এ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে স্বপরিবারে হত্যার পর, ঘাতক মোশতাক-জিয়ার শাসনামলে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর নামের একজন ‘হিন্দু’ রচিত আমাদের জাতীয় সঙ্গীতটি পরিবর্তনের আবদার শুরু হয়। সেই আবদারে ধীরে ধীরে শামিল হতে থাকেন সুশীল বেশধারী কতিপয় ছুপা রুস্তমও। গর্তে লুকিয়ে থাকা এই রুস্তমরা আড়মোড়া ভেঙে বেরিয়ে আসতে শুরু করেন। পরিস্থিতি অনুকুল বিবেচনায় মুখোশ ঝেড়ে ফেলে ঝেড়ে কাশতে থাকেন কেউ কেউ। সেই কেউ কেউদের একজন মোহাম্মদ মোদাব্বের। বিশিষ্ট বুদ্ধিজীবী, লেখক। আশির শুরুর দিকে একটি অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তৃতায় সেই প্রাজ্ঞপ্রবীন বললেন, রবীন্দ্রনাথের লেখা ‘আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালোবাসি’গানটা শুনলে তার ভেতরে কোনো সমীহ আসে না।

আমি তখন পাঁচ লাইনের একটা লিমেরিক লিখেছিলাম দৈনিক সংবাদের খেলাঘর পাতায়। দুই কলামে একটা ইলাস্ট্রেশনসহ। ইলাস্ট্রেশনে মোহাম্মদ মোদাব্বেরের আবয়বয়ের সঙ্গে মিলে যায় এমন একজন টাক মাথার ভাষণরত বুড়োর ক্যারিকেচার ছিলো। সুধীমহলে ব্যাপক নড়াচড়া শুরু হয়েছিলো ছড়াটা নিয়ে। প্রায় চল্লিশ বছর আগে লেখা ছড়াটা ছিলো এরকম; লোকটা নাকি বুদ্ধিজীবী, কামার কিংবা চাষী না/ একাত্তরে দালাল ছিলো খেলতো কতো তাসই না।/ লোকটা সেদিন  সভাপতির আসনে/ জানিয়ে দিলো সুচিন্তিত ভাষণে! ‘আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালোবাসি’ না!!!

মুক্তিযুদ্ধ স্বাধীনতা রবীন্দ্রনাথ এবং তাঁর রচিত জাতীয় সঙ্গীতটি যাদের না পছন্দ তাদের কেউ কেউ ইতোমধ্যে যুদ্ধাপরাধের দায়ে ফাঁসিতে লটকে পগাড়পার হয়েছেন। কিন্তু তাদের ছানাপোনা নাতিপুতিরা এখনো সুযোগ পেলেই মিনমিনে স্বরে জাতীয় সঙ্গীতটি কেনো বদলানো যাবে না বলে গাঁইগুঁই করে। এবং জাতীয় সঙ্গীতের বিরুদ্ধে কথা বলাটা ‘মত প্রকাশের স্বাধীনতা’ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করার জন্যে কোঁ কোঁ করে। আমাদের কিছু তথাকথিত সুশীল এবং প্রগতিশীল কিছু হাঁসজারু সেই ‘মত প্রকাশের স্বাধীনতা’কে ‘বাহবা বাহবা ভোলা ভুতো হাবা খেলিছে তো বেশ!’ বলে ঝাঁপিয়ে পড়ে ফেসবুক বিপ্লব করে।

কলকাতার সারেগামা ওয়ালারা প্রতিশ্র“তিশীল নোবেলকে খামোখাই গাছে তুলে দিয়ে টাইমলি  মইটা সরিয়ে নিয়েছেন। এই পর্যন্ত ভালোই ছিলো কিন্তু একটা ইন্টারভিউতে ছেলেটা প্রিন্স মাহমুদের কথা এবং সুরে জেমসের গাওয়া ‘আমার সোনার বাংলা’র প্রশস্তি করতে গিয়ে বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীতের চাইতেও জেমসের গানটাকে আরো বেশি উচ্চতায় তুলে ধরতে চেয়ে পরিস্থিতি লেজেগোবরে করে ফেলেছে। এইট পাশ কুতুবের দাবি অনুসারে প্রিন্সের গানটাকে জাতীয় সঙ্গীত করার জন্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে নাকি মিছিলও হয়েছিলো! যে মিছিলের কোনো হদিস কেউ জানে না।

প্রিন্স আমার বিশেষ প্রীতিভাজন সুরস্রষ্টা। বাংলাদেশের আধুনিক গানের ক্ষেত্রটির অনেক উচ্চতায় ওর অবস্থান। বিশেষ করে ওর কথা ও সুরে ‘মা’ গানটি কাল অতিক্রমী, অমরত্ব পাওয়ার যোগ্যতা সম্পন্ন। অনেক মেধাবী এবং গুণী একজন মানুষ হিসেবে ওকে আমি সমীহ করি। প্রিন্স আমার বিশেষ প্রীতিভাজন এবং পরম স্নেহের কিংবা ভালোবাসার মানুষ হলেও বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধু এবং স্বাধীনতার ইতিহাসের প্রশ্নে আমি ওকে ছাড় দেবো না।

ওর লেখা ‘আমার সোনার বাংলা’ একটি মতলবী গান। এই গানে বঙ্গবন্ধুর সমান উচ্চতায় সে জিয়াকে স্থান দিয়েছে। প্রিন্স যদি বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস পাঠ করে তাহলে সে ১৯৪৭ পরবর্তী (বাঙালির হাজার বছরের ইতিহাস না হয় শিকেয় তোলা থাক) আমাদের দীর্ঘ আন্দোলনে সংগ্রামে কোথাও জিয়া নামের কাউকে খুঁজে পাবে না। ১৯৭১ সালের ২৭ মার্চের আগে প্রিন্স কেনো পুরো বাঙালি জাতির কেউই জানতো না জিয়ার নাম। ২৬ মার্চ আমাদের স্বাধীনতা দিবস হলেও ২৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর পক্ষে সেই ঘোষণা পাঠ করে জিয়া হয়ে গেলেন স্বাধীনতার ঘোষক! বিএনপি জিয়াকে স্বাধীনতার ঘোষক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে চেয়েছে কিন্তু ব্যর্থ হয়েছে। মনে রাখতে হবে ইতিহাস কখনোই মিথ্যাকে ধারণ করে না। দেরীতে হলেও ইতিহাসে সত্যই প্রতিষ্ঠিত হয়।

প্রিন্স তার কথিত সেই গানে বিএনপি এবং আওয়ামী লীগ উভয় দলের সমর্থকদের সমর্থন প্রত্যাশা করতে গিয়ে ইতিহাস বিকৃতির সঙ্গে আপসটা করে ফেললো। এই ধরণের আপস রাজনীতিবিদরা করে। শিল্পীরা এটা করেন না। রাজনীতিবিদরা মতলবী হয় কিন্তু শিল্পি মতলবী হলে শিল্পটা আর থাকে না। কোনো মতলবী শিল্প কালজয়ী হয় না। আমাদের সঙ্গীতাঙ্গনের অন্যতম শ্রেষ্ঠ মেধাবী পুরুষটির কাছ থেকে শুধুমাত্র জনপ্রিয়তার প্রত্যাশায় এমন দেউলিয়াপনা আমি প্রত্যাশা করি না।

ব্যাপক পরিচিতি পাওয়া সত্তেও হারিয়ে গিয়েছেন বহু শিল্পী। কারণ, কারো মতো গাইতে পারলেই কেউ শিল্পী হয় না। নিজস্বতা থাকতেই হবে। তা না হলে হুবহু কিশোর কুমারের মতো কণ্ঠে ‘একদিন পাখি উড়ে যাবে যে আকাশে’ গাইবার পরেও আকবর নামের গায়কটিও বাতাসে মিলিয়ে যেতো না। জেমস্ কিংবা আইয়ুব বাচ্চুর মতো গাইতে পারলেই নোবেল নামের ছেলেটির টিকে থাকাটাও গ্যারান্টিড নয়। টিকে থাকবেন জেমস এবং বাচ্চুই। ইতিহাস সেই সাক্ষ্যই দেয়।

ইন্টারভিউতে জাতীয় সঙ্গীত বিষয়ে নোবেল যা বলেছে তা জেনে বুঝেই বলেছে। ক্লিপটা দেখে আসতে পারেন। তার কথায় এরকম প্রতিক্রিয়া যে হবে সেটা সে উল্লে−খও করেছে তার বাণীতে। অবুঝ, আলাভোলা, নাবালক, মাত্র এইট পাশ বলে ওকে পাশ কাটিয়ে যাবার উপায় নেই। বাংলাদেশে এইট পাশ একটা বিপজ্জনক ডিগ্রি! সেটা ভুলে গেলে ভোগান্তি আছে ললাটে! বিশিষ্ট ছড়াকার

 

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ সরদার মোঃ শাহীন,
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ রফিকুল ইসলাম সুজন,
বার্তা সম্পাদকঃ ফোয়ারা ইয়াছমিন,
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ আবু মুসা,
সহঃ সম্পাদকঃ মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিসঃ ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২,
উত্তরা, ঢাকা,
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com