মাথাপিছু আয়ে ভারতের ওপরে বাংলাদেশ

প্রকাশের সময় : 2021-11-03 13:00:37 | প্রকাশক : Administration
মাথাপিছু আয়ে ভারতের ওপরে বাংলাদেশ

মাথাপিছু মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) দিক দিয়ে ২০২০ সালে প্রথম বারের মতো ভারতকে পেছনে ফেলে বাংলাদেশ। গত ১৫ বছর ধরে বার্ষিক ৬ শতাংশ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির কারণে এই সাফল্য অর্জিত হয়েছে। বার্ষিক ৩৫৫ বিলিয়ন ডলার উৎপাদন নিয়ে বাংলাদেশ এখন দক্ষিণ এশিয়ার দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত।

বিশ্বের বেশিরভাগ অর্থনীতি মহামারিতে সংকুচিত হলেও বাংলাদেশ এই সময়ে প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছে। মহামারিতে ২০২০ সালে ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয় ভারত। এ বছর দেশটির জিডিপি কমে ২ হাজার ৬৬০ বিলিয়ন ডলার হয়েছে। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) তথ্য অনুযায়ী ২০১৯ এ ভারতের মাথাপিছু জিডিপি ২ হাজার ৯৮ ডলার থেকে কমে ১ হাজার ৯২৯ ডলার হয়।

গত বছর আইএমএফ পূর্বাভাস দিয়েছিল, ভারতের মাথাপিছু জিডিপি ২০২১ সালে ২ হাজার ৩০ ডলার হবে এবং বাংলাদেশের জিডিপি ৫ দশমিক ৪ শতাংশ বেড়ে ১ হাজার ৯৯০ ডলার হবে। অর্থাৎ, ভারতের থেকে এগিয়ে গেলেও বাংলাদেশের সাফল্য ক্ষণস্থায়ী হবে। তবে এখন আইএমএফ প্রকাশিত সংশোধিত পূর্বাভাসে বাংলাদেশের এ বছরের মাথাপিছু আয় দেখানো হয়েছে ২ হাজার ১৩৮ ডলার এবং ভারতের ২ হাজার ১১৬ ডলার।

আগামী ৫ বছরেও বাংলাদেশের মাথাপিছু জিডিপি ভারতের থেকে এগিয়ে থাকবে বলেই পূর্বাভাসে বলা হয়েছে। ২০২১ সালে ভারতের অর্থনীতির প্রবৃদ্ধি হবে ৯ শতাংশ। এই সাফল্য সত্ত্বেও ভারত তাদের নিকটতম প্রতিবেশী রাষ্ট্রকে মাথাপিছু আয়ে পেছনে ফেলতে পারছে না। স্থিতিশীল অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির কারণে ২০২৬ সালে বাংলাদেশের মাথাপিছু জিডিপি বেড়ে ৩ হাজার ২৫৩ ডলার হবে, যা ভারতের ৩ হাজার ১৮ ডলারের চেয়ে ৮ শতাংশ বেশি।

৫ বছর পরে বাংলাদেশ ও ভারতের জিডিপি যথাক্রমে ৫৬৫ বিলিয়ন ও ৪ হাজার ৩৯৩ বিলিয়ন ডলার হবে। ২০২১ সালের তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশ ও ভারতের পিপিপি বিনিময় মূল্য যথাক্রমে ডলার প্রতি ৩৩ টাকা এবং ২২ রূপি। সহজভাবে বলতে গেলে, যুক্তরাষ্ট্রে যে পণ্য বা সেবা পেতে ১ ডলার খরচ করাই যথেষ্ট, তা বাংলাদেশে পেতে হলে ৩৩ টাকা খরচ করতে হয়। একই পণ্য বা সেবা পেতে ভারতে ২২ রূপি খরচ করতে হয়। অর্থাৎ, ভারতীয় মুদ্রার ক্রয়ক্ষমতা বাংলাদেশের টাকার ক্রয়ক্ষমতার চেয়ে ৩৩ শতাংশ বেশি।

মহামারির মধ্যেও কৃষি, রেমিট্যান্স ও রপ্তানি খাতে আয় বৃদ্ধি পাওয়ায় সার্বিকভাবে বাংলাদেশের অর্থনীতিতে প্রবৃদ্ধি হয়েছে। অপরদিকে, জনসংখ্যা কম বৃদ্ধি পাওয়ায় মাথাপিছু জিডিপি বেড়েছে। আগামী ৫ থেকে ৬ বছরের মধ্যে মেগাপ্রকল্পগুলো চালু হলে দেশের অর্থনীতির ওপর উল্লেখযোগ্য প্রভাব পড়বে। অর্থনীতিতে যতটুকু ক্ষতি হবে বলে আশঙ্কা করা হয়েছিল, তা হয়নি। সুতরাং আইএমএফের পূর্বাভাসকে বাস্তবসম্মত বলে বিবেচনা কর যায়। - সূত্র: অনলাইন

 

সম্পাদক ও প্রকাশক: সরদার মোঃ শাহীন
উপদেষ্টা সম্পাদক: রফিকুল ইসলাম সুজন
বার্তা সম্পাদক: ফোয়ারা ইয়াছমিন
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: আবু মুসা
সহ: সম্পাদক: মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিস: ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা।
বার্তা বিভাগ: বাড়ি # ৩৩, রোড # ১৫, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা।
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com