মনের ভিতর মনের কথা

তাপিতা সাথীঃ পরম করুনাময় সৃষ্টিকর্তার অদ্ভুত এক সৃষ্টির নাম “মানুষের মন”। মানুষ প্রয়োজনে অপ্রয়োজনে অনেক কথা বলে। কিন্তু মানুষ কি চাইলেই মনের সব কথা ব্যক্ত করতে পারে? মোটেই পারেনা। সব মানুষেরই মনের এক কোণে না বলা অনেক কথা জমা হয়ে থাকে। সমাজ, পরিবেশ-পরিস্থিতি, স্থান-কাল-পাত্র ভেদে মনের ঐ জমানো কথাগুলো কখনোই বলা হয়না।

একটা বিষয় কি কখনো ভেবে দেখেছেন? মানুষের মনের কথা যদি সবাই বুঝে বা শুনে ফেলতো, তাহলে পৃথিবীতেই কেয়ামত হয়ে যেত। কারো সাথে কারোর সম্পর্ক থাকতো না। মারামারি -কাটাকাটি লেগেই থাকতো। মনের কথা অন্য কেউ জানবে না এটাই সৃষ্টির এক অনবদ্য রহস্য। তবে আম ......

আমাদের ফেসবুক জীবন

আজহার মাহমুদঃ চোর, ডাকাত, খুনি, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজ, ধর্ষক, দুর্নীতিবাজ, গুটিবাজ, নেশাখোর, প্রতারক, মলমপার্টি, অপহরণকারী, ছিনতাইকারী, মাদকব্যবসায়ী, জুয়াড়ি, বেইমান, মিথ্যাবাদী এবং যত নোংরা মানুষ আছে তারা সবাই কিন্তু ফেসবুক চালায়। ফেসবুকে সবাই বাস্তব, সত্য এবং মনের কথা তুলে ধরে। সততার পোস্ট দেয়। নিজে সৎ তার গান গায়।

আর সেখানে আরও কিছু ভালো-মন্দ মানুষ সহমত, শুভকামনা কিংবা অভিনন্দন লিখে কমেন্ট করে। প্রকৃতপক্ষে কে কতটা ভালো তা ফেসবুকে কখনও বিচার করতে পারবেন না। প্রোফাইলে আল্লাহু লেখা ছবি ঝুলিয়ে সারাদিন ইউটিউবে অশ্লীল ভিডিও দেখা পাবলিককে আপনি কী বলবেন? কীভাবেই ......

শোনো মেয়ে তোমাকেই বলছি!

তাপিতা সাথীঃ কথায় আছে ছোট ছিলাম, ভালো ছিলাম। ছোট বেলায় সত্যিই কি খুব ভালো ছিলাম? মেয়ে হয়ে জন্মে খুব ভালো থাকাটা কি এতোটাই সহজ! মোটেই না। সৃষ্টির সেরা জীব মানুষ যখন মায়ের পেটে ভ্রুন হয়ে ঢোকে, সেই থেকেই তার যুদ্ধের শুরুটা হয়ে যায়। আর এই যুদ্ধ চলে মৃত্যু পর্যন্ত। এরপর আরেক জীবনের শুরু। সেখানে পরম করুনাময় আল্লাহ তায়ালার হিসেব-নিকেষ শুরু।

দুনিয়াতে সুস্থ স্বাভাবিকভাবে বেঁচে থাকা সহজ ব্যপার নয়। আর মেয়ে হয়ে জন্মালেতো কথাই নেই। কারণ আমাদের সমাজে ছেলে মানুষের চরিত্রটা বলতে পারেন চুইংগামের মত। যতই কুকর্ম করে বেড়াক কোন সমস্যা নেই। আর মেয়ে মানুষের চরিত্রটা কঁচু পা ......

আত্মসমালোচনা বুদ্ধিমানের কাজ

মিতা কলমদারঃ সামাজিক প্রাণী হিসেবে সমাজে বাঁচতে হলে আমাদের নির্ভুলতা আর ভুলের শত সহগ্র অবস্থা ডিঙিয়ে মাড়িয়ে নিজের অবস্থানকে ধরে রাখতে হয়। নির্ভুলতাগুলোকে সহজেই পাশ কাটিয়ে যাই আমরা! আর ভুল এবং অসঙ্গতিগুলোই বাঁচে শক্তপোক্ত ভাবে। পারিপার্শ্বিকতা অনুভব করলে অনুধাবন করা যায়, সমাজের অবস্থানটা এমন পর্যায়ে গেছে যে, সামান্য অসঙ্গতিমূলক কার্যকলাপের প্রকাশ এবং প্রচারে সমালোচনার পাল্লা ভারী হয়ে অন্য পর্যায়ে চলে যায়।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের বদৌলতে তা আরও বেশি। অন্যের সমালোচনা করতে করতে আমরা ভুলেই যাই যে, আমরাও ভুলের ঊর্ধ্বে নই! যে অনৈতিক কার্যকলাপ অন্যের ......

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ সরদার মোঃ শাহীন,
বার্তা সম্পাদকঃ ফোয়ারা ইয়াছমিন,
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ আবু মুসা,
সহঃ সম্পাদকঃ মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিসঃ ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২,
উত্তরা, ঢাকা,
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com