শিং রাখার পক্ষে-বিপক্ষে ভোট

প্রকাশের সময় : 2019-10-24 12:42:48 | প্রকাশক : Administration
শিং রাখার পক্ষে-বিপক্ষে ভোট

সিমেক ডেস্কঃ সুইজারল্যান্ডের নিয়ম অনুযায়ী দেশটির খামারিরা গরু-ছাগলের শিং রাখতে পারে না। অল্প বয়সেই গরু-ছাগলের শিং কেটে ফেলা বা এমনভাবে নষ্ট করে দেয়া হয় যাতে সেগুলো আর বড় হতে না পারে। এর পক্ষে যুক্তি হলো- শিং থাকলে গরু-ছাগলগুলো আক্রমণাত্মক হয়ে ওঠে, ফলে মানুষকে যেমন আহত করতে পারে তেমনি এক জায়গায় বেশি গরু-ছাগল থাকলে তারা একে অন্যকে আহত করতে পারে। তাছাড়া শিংওয়ালা গরু-ছাগল রাখতে জায়গা বেশি লাগে। এসব চিন্তা করেই সুইজারল্যান্ডে গরু-ছাগলের শিং না রাখার বিধান করা হয়। গরু-ছাগলের মাথায় শিং রাখলে বছরপ্রতি ১৯০ সুইস ফ্রাঙ্ক দেশটির কোষাগারে জমা দিতে হয় মালিককে। মূলত এ কারনে সুইজারল্যান্ডে বেশির ভাগ গরু-ছাগলকেই শিংহীন অবস্থায় দেখা যায়। ছোট অবস্থায় গরু-ছাগলের শিং গজানোর সময়েই বিশেষ উপায়ে সেটি পুড়িয়ে বা কেটে ফেলা হয়, যাতে তা আর বড় হতে না পারে।

আর এর প্রতিবাদেই সুইজারল্যান্ডের গরু-ছাগলের শিং রাখার অনুমতি ফিরিয়ে দিতে আন্দোলন শুরু করেন আরমিন কাপাউল। তিনি বলেন, শিং দিয়েই গরু-ছাগলরা তাদের মনের ভাব বোঝায়। তাছাড়া এভাবে শিং কেটে দিলে তাদের শারীরবৃত্তীয় কাজেও প্রভাব ফেলে। আর তাই কেউই প্রকৃতিগত ভাবে প্রাপ্ত গরু-ছাগলের রূপ বদলে ফেলার পক্ষে নয়। এ পরিস্থিতিতে গরু-ছাগলের শিং থাকবে কি না সেই বিতর্কের অবসান ঘটাতে একটি গণভোটের আয়োজন করা হয়েছে দেশ জুড়ে। -সূত্র: অনলাইন

 

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ সরদার মোঃ শাহীন,
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ রফিকুল ইসলাম সুজন,
বার্তা সম্পাদকঃ ফোয়ারা ইয়াছমিন,
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ আবু মুসা,
সহঃ সম্পাদকঃ মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিসঃ ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২,
উত্তরা, ঢাকা,
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com