চন্দ্রনাথ পাহাড়ে বিশালতার হাতছানি

প্রকাশের সময় : 2019-10-24 13:00:36 | প্রকাশক : Administration
চন্দ্রনাথ পাহাড়ে বিশালতার হাতছানি

আজীম রানাঃ একদিন সন্ধ্যায় আড্ডা দিচ্ছিলাম বন্ধু জনি আরাদের সাথে। চন্দ্রনাথ পাহাড় থেকে দূরের দিগন্তটা দেখতে কেমন লাগতে পারে সেটা নিয়েই চলছিল আলোচনা। হঠাৎ জনি বলে উঠলো, কাল তো শুক্রবার, তাই না?

- হুম্। তো ?

- আজ রাতের ট্রেনে সীতাকুন্ড গিয়ে কাল চন্দ্রনাথ পাহাড় আর গুলিয়াখালী ঘুরে আসলে কেমন হয়?

- এখন! আমার সাথে ক্যামেরা নেই। ক্যামেরা ছাড়া আমি যাবো না।

- বাসায় গিয়ে নিয়ে আয়।

- মাথা ঠিক আছে! এখন বাসায় গিয়ে ক্যামেরা নিয়ে আসতে গেলে ট্রেন মিস হবে।

এভাবে কোনো প্ল্যান-প্রোগ্রাম ছাড়াই হুট করে ট্রেনে চেপে রওনা দিলাম চন্দ্রনাথ পাহাড়ের সৌন্দর্য দেখতে। কিন্তু যাওয়ার সময় ঘটলো বিপত্তি। কমলাপুর পৌঁছে দেখি যে ট্রেনে যাবার কথা ছিল সেটা চলে গেছে কিছুক্ষণ আগে। এদিকে জনি এখনও আসেনি। প্রায় এক ঘণ্টা পর এলেন নবাবজাদা। চট্টগ্রামগামী শেষ ট্রেন ‘তূর্ণা নিশিতা’ তখন প্লাটফর্মে। কিন্তু সমস্যা হচ্ছে এই ট্রেন সীতাকুণ্ড থামে না। যা আছে কপালে, ভেবে স্ট্যান্ডিং টিকেট কেটে উঠে পড়লাম, ফেনীতে নেমে বাকিটা নিয়ে ভাবা যাবে। ফেনী পৌঁছলাম ভোররাতে। সেখান থেকে চট্টগ্রাম মেইলে চেপে সকাল সকাল সীতাকুন্ড।

সীতাকুন্ডে আমাদের সাথে যোগ হলো আরেক ট্রাভেলার বন্ধু ডাঃ সোহান। তাকে সাথে নিয়ে রওনা দিলাম চন্দ্রনাথ পাহাড়ের দিকে। অটো নামিয়ে দিলো চন্দ্রনাথ পাহাড়ের পাদদেশে। প্রতিদিন এখানে আরাধনা করতে আসে শত শত সনাতন ধর্মাবলম্বী। পাহাড়ে ওঠার সময় আমাদের সাথে দেখা হয় একটা সনাতন ধর্মাবলম্বী পরিবারের। তাদের সাথে ৪ বছরের একটি শিশু। এইটুকু একটা শিশু কারো সাহায্য ছাড়াই তড়তড় করে বড় বড় সিঁড়ি বেয়ে যাচ্ছে, দেখে অবাক না হয়ে উপায় নেই।

কিছুদূর ওঠার পরে একটা দোকান দেখতে পেলাম। পেয়ারা, গাব, কলাসহ বিভিন্ন খাবারের পসরা সেখানে।

আরও কিছুদূর এগুলে একটা ঝর্না চোখে পড়ল। সেখানে একটু ফ্রেশ হয়ে আবার হাঁটা শুরু করলাম। যতোই ওপরে উঠছি চারপাশের ভিউ ততোই সুন্দর হতে লাগলো। এভাবে হাঁটতে হাঁটতে একসময় পৌঁছে গেলাম পাহাড়ের চূঁড়ায়। যতদূর চোখ যায় ততোদূর পর্যন্ত শুধুই সবুজের রাজ্য। দিগন্তরেখা বরাবর ধোঁয়াশার মতো সমুদ্রও ধরা দিলো চোখে। মনে পড়ে গেল ছোটবেলায় দেখা ‘আলিফ লায়লার’ সেই ঘটনা, যেখানে এমন ধোঁয়াশার মধ্য দিয়ে অন্য এক জগতে চলে যায় সবাই।

কিছুক্ষণ চলল ফটোসেশন পর্ব। এবার নামার পালা। আবার দেখা হয়ে গেল সেই শিশুটার সাথে যাকে আমরা উঠার সময় দেখেছিলাম। কথা বলে জানতে পারলাম  পুরো পথই নাকি কারো সাহায্য ছাড়াই হেঁটে উঠেছে সে। নামার সময় বিপত্তি সৃষ্টি করলো বৃষ্টি। আশ্রয় নিলাম সেই পেয়ারার দোকানে। বৃষ্টি থামলে নেমে এলাম নিচে। অটোতে করে চলে গেলাম সীতাকুন্ড বাজার। ডাক্তার বন্ধু সোহানের অন্য কাজ থাকায় আমাদের গুলিয়াখালীর সিএনজিতে উঠিয়ে দিয়ে বিদায় নিলো।

তখন মধ্য দুপুর। জোয়ার চলছে। সাথে প্রচণ্ড গরম। গুলিয়াখালীতে একটা পুকুরে গোসল সেরে লাঞ্চ করে একটা গাছের নিচে বিশ্রাম নিতে থাকলাম। ভাটা চলে এলে হেঁটে চললাম গুলিয়াখালীর বিচের দিকে। পিচ্ছিল কাঁদায় পরিপূর্ণ পুরো পথ। হাঁটতে খুব ভয় করছিল। তাই খুব সাবধানে হাঁটতে হলো।

সবুজ ঘাসের গালিচায় মোড়ানো চারপাশ। সবুজ গালিচার মাঝে মাঝে পানিভর্তি প্রাকৃতিক বাথটাবের মধ্যে খেলা করছে ছোট ছোট মাছ। শরতের মেঘমুক্ত আকাশ সাথে সবুজ ঘাস দেখতে দেখতে রওনা দিলাম বাসবাড়িয়ার উদ্দেশ্যে। সন্ধ্যাটা কাটালাম সেখানেই। কয়েকজন পর্যটক মারা যাওয়ার পর থেকে পানিতে নামা বন্ধ করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

কথা হয় কয়েকজন জেলের সাথে, তাদের জীবন- জীবিকা নিয়ে। ছোট্ট ট্রলারে করে প্রতিদিন সন্ধ্যায় তারা মাছ ধরতে যায়। ঝড়-বৃষ্টির মধ্যেও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মাছ ধরে তারা। সন্ধ্যা নেমে এলে রওনা দিলাম ঢাকার পথে। ফেরার পথে মনে হচ্ছিল আরেকটু থেকে যেতে পারলে চারপাশটা আরও ভালোভাবে দেখে যেতে পারতাম। তবে সান্ত্বনা এই ভেবে যে, কেবল একদিনের ছুটিতেই খুব সহজে চন্দ্রনাথ-গুলিয়াখালী থেকে ঘুরে-আসা যাবে। - বাংলানিউজ২৪ডট কম

 

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ সরদার মোঃ শাহীন,
বার্তা সম্পাদকঃ ফোয়ারা ইয়াছমিন,
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ আবু মুসা,
সহঃ সম্পাদকঃ মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিসঃ ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২,
উত্তরা, ঢাকা,
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com