শুরু হচ্ছে মেট্রোরেলের লাইন বসানোর কাজ

প্রকাশের সময় : 2019-11-06 19:33:53 | প্রকাশক : Administration
শুরু হচ্ছে মেট্রোরেলের লাইন বসানোর কাজ

দ্রুত গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে মেট্রোরেলের কাজ। ইতিমধ্যে পিলারের ওপর দেখা যাচ্ছে এ মেগা প্রকল্পের ভায়াডাক্ট। শুরু হচ্ছে বৈদ্যুতিক কাজও। আগামী মাসেই ভায়াডাক্টের ওপর শুরু হবে মেট্রোরেলের লাইন বা রেলট্র্যাক বসানোর কাজ। মেট্রোরেল প্রকল্প বাস্তবায়নকারী প্রতিষ্ঠান ‘ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডে’র (ডিএমটিসিএল) ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এ এন সিদ্দিক বলেন,  উত্তরা  থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত মেট্রোরেলের অগ্রগতি হয়েছে ৪৬ শতাংশ। এরই মধ্যে চীন থেকে রেললাইন এসে পৌঁছেছে। এসেছে লাইন বসানোর মেশিনও। নভেম্বর থেকে শুরু হবে রেললাইন বসানোর কাজ।

সব ঠিক থাকলে ২০২০ সালের জুনের মধ্যে মেট্রো রেলের পূর্ণাঙ্গ সেট আসলেই শুরু হবে ট্রায়াল রান। তবে যাত্রী বহনে আরো কিছুটা সময় লাগতে পারে বলে জানান তিনি। জনস্বার্থে এই প্রকল্পের কিছুটা নকশার পরিবর্তন করা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, উত্তরা থেকে মতিঝিল নয়, কমলাপুর পর্যন্ত যাচ্ছে মেট্রোরেল। পাশাপাশি উত্তরা থেকে কমলাপুর পর্যন্ত আরেকটি পাতাল রেল প্রকল্প হাতে নেয়া হচ্ছে। যা যুক্ত হবে মেট্রোরেলের সঙ্গে।

ইতিমধ্যেই প্রকল্পের ডিপো এলাকার ভূমি উন্নয়নের কাজ শতভাগ শেষ হয়েছে । পূর্ত কাজ সম্পন্ন হয়েছে ৫২ শতাংশ। উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত ১১ দশমিক ৩৭ কিলোমিটার ভায়াডাক্ট এ স্টেশন নির্মাণের কাজ সম্পন্ন হয়েছে ৫৫ শতাংশ। এতেই দৃশ্যমান হয়েছে স্বপ্নের এ মেগা প্রকল্প। ইলেকট্রিক্যাল ও  মেকানিক্যাল কাজ হয়েছে ১৬ দশমিক পাঁচ শূন্য শতাংশ।

তবে রেললাইন, কোচ ও ডিপো ইকুইপমেন্ট সংগ্রহের কাজ শেষ হয়েছে মাত্র ১৫ দশমিক দশ ভাগ। আশা করছি প্রকল্প মেয়াদের এক বছর ছয় মাস আগেই আমরা কাজ শেষ করতে পারব। প্রকল্প বাস্তবায়নকারী এই ব্যবস্থাপনা পরিচালক বলেন, আমাদের এখানে পৃথিবীর সর্বশেষ প্রযুক্তির কোচগুলো আনা হচ্ছে। যখন এগুলো চলতে শুরু করবে তখন তা অন্যান্য  দেশের চেয়ে উন্নত ও আধুনিক হবে। আর দেশের প্রথম এই মেট্রোরেল  হবে সম্পূর্ণ এলিভেটেড ও বিদ্যুৎচালিত। মেট্রোরেলের প্রকল্প ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ শাহজাহান বলেন, বাকি যে কাজ আছে সবগুলো একসঙ্গে শুরু হবে। পরিবর্তন এসেছে নকশাতেও। আরো এক কিলোমিটার বাড়িয়ে মতিঝিলের অংশটি নিয়ে যাওয়া হচ্ছে কমলাপুর পর্যন্ত।

প্রকল্পের তথ্যানুযায়ী, উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত মোট ১৬টি স্টেশন থাকবে। উত্তরার দিয়াবাড়িতে হবে মেট্রোরেলের প্রথম স্টেশন। যার নাম হবে উত্তরা নর্থ। পর্যায়ক্রমে এর পরের স্টেশনগুলো হবে- উত্তরা সেন্টার, উত্তরা দক্ষিণ, পল্লবী, মিরপুর-১১, মিরপুর-১০, কাজীপাড়া, শেওড়াপাড়া, আগারগাঁও, বিজয় সরণি, ফার্মগেট, কাওরান বাজার, শাহবাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, সচিবালয় ও মতিঝিল।

এদিকে আগামী বছরের জুনে মেট্রোরেলের প্রথম পরিপূর্ণ ট্রেন সেট দেশে আসবে বলে জানা গেছে। এভাবে ওই সময় থেকে পরবর্তী দুই মাসের মধ্যে মোট ২৪টি ট্রেন সেট আসবে। একেকটি সেটে ৬টি করে কোচ থাকবে। ট্রেনগুলো উভয়দিক থেকে ঘণ্টায় ৬০ হাজার যাত্রী টানবে। এই মেট্রোরেলের প্রতিটি স্টেশন হবে তিনতলা। সিঁড়ি বেয়ে প্রথমে উঠতে হবে দ্বিতীয় তলায়। সেখানে টিকেট কাউন্টার ও অন্যান্য সুবিধাদি থাকবে। আর ট্রেনের প্লাটফরম থাকবে তৃতীয় তলায়।

উত্তরা তৃতীয় ফেজ ডিপোর গেটের পাশে উপযুক্ত জায়গা নির্ধারণ করে, সেখানে মেট্রোরেল এক্সিবিশন অ্যান্ড ইনফরমেশন সেন্টার করা হবে। যেখানে মেট্রোরেলের নির্মাণশৈলীর ইতিহাস তুলে ধরা হবে। -সুদীপ অধিকারী, অনলাইন থেকে

 

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ সরদার মোঃ শাহীন,
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ রফিকুল ইসলাম সুজন,
বার্তা সম্পাদকঃ ফোয়ারা ইয়াছমিন,
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ আবু মুসা,
সহঃ সম্পাদকঃ মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিসঃ ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২,
উত্তরা, ঢাকা,
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com