কি আকর্ষণ লুকিয়ে আছে সোনার মদিনায়!

প্রকাশের সময় : 2019-12-18 11:10:46 | প্রকাশক : Administration

মদিনা একটি নাম। মদিনা একটি শহর কিন্তু এটি সাধারন কোন শহর নয়। এটি সারা পৃথিবীর মুসলমানদের অত্যন্ত আকাঙ্খীত প্রাণের শহর। কেননা এ শহরে শায়িত আছেন সারা বিশ্ব মানবতার শান্তির দূত, দু-জাহানের বাদশাহ, সমস্ত নবীদের সর্দার, রাহমাতুল্লিল আলামীন, আমাদের প্রিয় নবী হযরত মোহাম্মদ (সাঃ)। মদিনার আলো-বাতাস, রাস্তাঘাট, মদিনার মানুষ সব কিছুতেই যেন রয়েছে শান্তির পরশ। আমাদের প্রিয় নবী (সাঃ) ৫৭০ খৃষ্টাব্দের ২০শে এপ্রিল মক্কার বিখ্যাত কোরাইশ বংশে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম আব্দুল্লাহ যিনি নবীজি (সাঃ) এর জন্মের পূর্বেই মারা যান এবং মা আমিনা যিনি নবীজি (সাঃ) এর জন্মের ৬ বছর বয়সে মারা যান। ৫ বছর বয়স পর্যন্ত মক্কা থেকে ১২০ কি.মি. দূরে শস্য-শ্যামলা, সুজলা, সুফলা তায়েফ নগরীতে বিবি হালিমার গৃহে লালিত পালিত হন। ২৫ বছর বয়সে মক্কার সম্ভ্রান্ত বংশীয় ধনী মহিলা বিবি খাদিজার সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন এবং ৪০ বছর বয়সে নবুয়্যত লাভ করেন। ৫০ বছর বয়সে চাচা আবু তালিব এবং প্রাণ প্রিয় সহধর্মিনী বিবি খাদিজার ইনতিকাল হয় এবং ঐ বছরই ইসলাম প্রচারের জন্য বুক ভরা আশা নিয়ে তায়েফ নগরীতে উপস্থিত হন। সেখানে তিনি সহযোগীতার বদলে পেয়েছেন রুঢ় আচরন কিন্তু দয়ার নবী তাদের জন্য বদ দোয়া না করে বরং করেছেন রহমতের দোয়া।

পরবর্তী সময়ে ইসলাম প্রচারে চলে গেলেন মক্কা থেকে ৪৫০ কি.মি. দূরে মদিনায়। সেখানে মদিনাবাসী দেখিয়েছিলেন সর্বোচ্চ আন্তরিকতা, দিয়েছিলেন সার্বিক সহযোগীতা। ফলশ্রুতিতে মদিনার মাটিতে ইসলাম পেয়েছিল প্রতিষ্ঠা। আজ এ মদিনাতেই শায়িত আছেন প্রানপ্রিয় রাসূল (সাঃ)। ২০১২ সনের পবিত্র রমজান মাসের শেষ দশক। মদিনার মসজিদ, মসজিদে নববীতে এতেকাফরত আছি দুই বন্ধু। সে কি আবেগ, কি অনুভূতি, কি আকর্ষণ। যা বুঝাবার নয়। এই তো আমরা এখানে শয়নরত অথচ খুব কাছাকাছি নবীজি (সাঃ) এর রওজা মোবারক। মনে হচ্ছে যেন নবীজি (সাঃ) এর খুব কাছেই শুয়ে আছি। নবীজি (সাঃ) যেন আমাদেরকে তদারকী করছেন। দূর দেশ থেকে গিয়েছি কষ্ট হচ্ছে নাতো খানা পিনায়, চলা-ফিরায় এবং অন্য কোন কারনে।

আরও অভিভুত হলাম আরবদের আন্তরিকতা দেখে। তাদের মেহমানদারী তাদের ব্যবহার সবই যেন ভুলবার নয়। সেখানে সারারত এবাদত চলে, রাতকে কয়েকটি ভাগে ভাগ করে এবাদত করা হয়। সম্মানিত ইমাম সাহেবের কান্না জড়িত ক্বিরাত, লম্বা লম্বা সিজদা, আরবদের কান্না ভরা কন্ঠের দোয়া সবই যেন মনকে একেবারে নরম করে দেয়। আরবরা যে এত আমল করে না দেখলে তা বুঝে আসার মত নয়। তাদের মধ্যে রয়েছে হযরত সাহবায়ে কেরাম (রাঃ) দের যুগের মত মেহমান দারীর সিফত। মসজিদের ভিতর ইফতারীতে রকমারী আইটেম দিয়ে মেহমানদারীর ব্যবস্থা।

মসজিদের বাহিরে খোলা জায়গায় রুচি অনুযায়ী যার যা পছন্দ পর্যাপ্ত পরিমানে ভাত, রুটি, দুধ, নিয়ে দস্তরখানা সাজিয়ে যেন মেহমানদারকে ডেকে ডেকে অত্যন্ত মমতায় আপনজনের মত তৃপ্তির সহিত খানা খাওয়াচ্ছে। তাদের ছোট ছোট বাচ্চারা পর্যন্ত জায়গায় জায়গায় দাঁড়িয়ে খেজুর, টিস্যু পেপার, পানি দিয়ে আপ্যায়ন করছে। মনে মনে ভাবছি এদের মধ্যেই রয়েছে নবীজি (সাঃ) এর আদর্শ মমত্ববোধ ও আতিথেয়তা।

মহান আল্লাহর নিকট দোয়া করি, যেন আল্লাহ তায়ালা মদিনাকে সকল প্রকার ষড়যন্ত্র ফেতনা ফ্যাসাদ থেকে হেফাজত করেন এবং মদিনা ওয়ালাদের এ আদর্শ সারা পৃথিবীতে ছড়িয়ে দেন। যার ফলে মানুষের মাধ্যে তৈরী হয় ভ্রাতৃত্ববোধ, বইতে শুরু করে পৃথিবীতে শান্তির বাতাস, সর্বোপরী পরকালে হয় আমাদের সকলের জন্য নাজাতের ফয়সালা। আমিন। -অধ্যাপক মোহাম্মদ আবদুর রশিদ

 

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ সরদার মোঃ শাহীন,
বার্তা সম্পাদকঃ ফোয়ারা ইয়াছমিন,
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ আবু মুসা,
সহঃ সম্পাদকঃ মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিসঃ ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২,
উত্তরা, ঢাকা,
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com