সাদাসিধে কথা

প্রকাশের সময় : 2020-01-16 17:07:53 | প্রকাশক : Administration

মোঃ জাফর ইকবালঃ এ বছর বারো মাসজুড়েই নানা ধরনের ঘটনা ঘটেছে; কিন্তু আমার কাছে মনে হয়েছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দুটি ঘটনা ঘটেছে একেবারে বছরের শেষ মাসের শেষদিকে। একটি হচ্ছে রাজাকারের তালিকা, আরেকটা হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের ‘বীরত্বগাথা’।

ইতিহাসে পাকাপাকিভাবে গেঁথে রাখার জন্য স্বাধীনতাবিরোধীদের তালিকা একটি খুব গুরুত্বপূর্ণ দলিল। আমরা যারা একাত্তর দেখেছি তারা জানি একাত্তরে নানা ধরনের স্বাধীনতাবিরোধী ছিল। কেউ রাজাকার, কেউ আলবদর, কেউ আলশামস, কেউ শান্তি কমিটির সদস্য, আবার কেউ হয়তো কোনো দলেই নাম লেখায়নি কিন্তু তারপরও বড় ধরনের বিশ্বাসঘাতক যুদ্ধাপরাধী।

এ নানা ধরনের নামের মাঝে রাজাকার নামটি সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় হয়েছে এবং আজকাল যে কোনো স্বাধীনতাবিরোধী মানুষ বোঝানোর জন্য রাজাকার শব্দটি ব্যবহার করা হয়। কিন্তু যখন একটি ঐতিহাসিক দলিল তৈরি করা হবে তখন কি তাদের ঐতিহাসিক পরিচয় দিয়ে পরিচিত করা উচিত নয়? তাদের মাঝে কেউ ছিল কাপুরুষ, কেউ ছিল নৃশংস, অপরাধের মাত্রাটিও কি এ তালিকায় উল্লেখ থাকতে পারত না?

কিন্তু রাজাকারের তালিকার এ বিষয়গুলো আমাকে কিংবা আমার মতো আরও অনেককে ক্ষুব্ধ করেনি। এতদিনে আমরা সবাই জেনে গেছি, এ তালিকায় শুধু রাজাকারের নয়, মুক্তিযোদ্ধাদের নামও আছে। এ তালিকাটি অসম্পূর্ণ হতে পারত, যেখানে কোনো রাজাকারের নাম তোলা হয়নি কিংবা তাদের নাম ভুল বানানে লেখা হতে পারত, তাদের গ্রামের নামে ত্র“টি থাকতে পারত। এছাড়া আর অন্যকিছু কারও কাছে গ্রহণযোগ্য নয়।

যে রাজাকার নয় তার নাম ভুলে লেখা হয়ে থাকলেও আমরা অত্যন্ত ক্ষুব্ধ হতাম, কারণ এদেশে রাজাকার শব্দটি হচ্ছে সবচেয়ে খারাপ গালি। একজন মানুষকে রাজাকার বলে গালাগাল করার চেয়ে বড় কোনো অপমান হতে পারে না। সেই অপমানটি করা হয়েছে বেশকিছু মুক্তিযোদ্ধাকে, এর চেয়ে বড় দুঃখের ব্যাপার আর কী হতে পারে?

আমরা সবাই বুঝতে পারছি, এ বিষয়টি মোটেও নিরীহ একটু ভুল নয়, এটি ইচ্ছাকৃত এবং এটি করা হয়েছে রাজাকারের তালিকাটিকে প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য। যদিও তালিকাটি বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে তবুও ঝামেলা কিন্তু রয়েই গেছে। এরপর থেকে যতবার যতভাবে এ তালিকা তৈরি করা হবে, ততবার সবার মনে একটি প্রশ্ন থেকে যাবে যে, এটাও হয়তো সত্যিকারের তালিকা নয়। সবচেয়ে দুঃখের কথা, এ তালিকা প্রকাশিত হওয়ার পর থেকে কেউ এত বড় এ অন্যায়ের দায় নিচ্ছে না, একে অন্যকে দোষ দিয়ে যাচ্ছে। মনে হচ্ছে, আমরা কোনোদিন জানতে পারব না কেমন করে এত বড় একটি অন্যায় করা হল বিজয়ের মাসে দেশের সবচেয়ে সম্মানিত মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে!

আমাদের দেশের ভাইস চ্যান্সেলররা কিংবা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা যে বিষয়গুলো অনুভব করতে পারেন না, আমাদের মহামান্য রাষ্ট্রপতি কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের দৈনন্দিন কাজকর্মের সঙ্গে না থেকেও সেগুলো বুঝতে পারেন। সমাবর্তন বক্তা হিসেবে আমি বেশ কয়েকবার মহামান্য রাষ্ট্রপতির কাছাকাছি বসে তার নিজের মুখে বক্তব্য শুনেছি। আনুষ্ঠানিক বক্তব্যের মাঝখানে তিনি সাধারণত একেবারে নিজের মতো করে কৌতুকের ভঙ্গিতে অনেক কথা বলেন।

আমি একবার তাকে নিজের লেখাপড়া নিয়েও কৌতুক করতে শুনেছি। কিন্তু তিনি বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের লেখাপড়া নিয়ে যে বক্তব্য দিয়েছেন সেগুলো যুগান্তকারী। আমি দীর্ঘদিন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা প্রক্রিয়ার সঙ্গে জড়িত ছিলাম বলে শুধু টাকার লোভের কারণে এদেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকরা কিভাবে এ দেশের ছেলেমেয়েদের নির্যাতন করেন সেটা খুব ভালো করে জানি।

সমন্বিত একটা ভর্তি পরীক্ষা নিয়ে খুব সহজেই এদেশের ছেলেমেয়েদের অবিশ্বাস্য একটা যন্ত্রণা থেকে মুক্তি দেয়া সম্ভব; কিন্তু সেটি করা হচ্ছে না। আমাদের মহামান্য রাষ্ট্রপতি প্রথম এ বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছেন, যদিও এখন পর্যন্ত এদেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্ষমতাবান ভাইস চ্যান্সেলর ও অধ্যাপকরা সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা নিতে রাজি হননি। টাকার লোভ একজন মানুষকে কত নিচে নামাতে পারে সেটি নিজের চোখে দেখেও বিশ্বাস হতে চায় না।

মহামান্য রাষ্ট্রপতি শুধু যে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার কথা বলেছেন তা নয়, তিনি সান্ধ্যকালীন কোর্সের বিরুদ্ধেও কথা বলেছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ ছাত্রছাত্রীরা এর বিরুদ্ধে, কারণ তারা নিজের চোখে দেখতে পাচ্ছে তাদের শিক্ষকরা নিজেদের সত্যিকারের কোর্সগুলো না পড়িয়ে সন্ধ্যাবেলার অর্থকরী কোর্সগুলো পড়ানোর জন্য জীবনপাত করছেন।

আমি এক ধরনের কৌতূহল নিয়ে শেষ পর্যন্ত কী হয় সেটা দেখার জন্য অপেক্ষা করছি। এর মাঝেই সান্ধ্যকালীন কোর্সের পক্ষে পত্রপত্রিকায় লেখালেখি শুরু হয়েছে এবং আমার ধারণা, নানা ধরনের যুক্তিতর্ক দিয়ে সেটা শেষ পর্যন্ত বন্ধ করা হবে না। বাঘ একবার মানুষের রক্তের স্বাদ পেয়ে গেলে অন্য কিছু মুখে দিতে চায় না বলে জনশ্রুতি আছে। টাকাটাও সে রকম, একবার কেউ টাকার স্বাদ পেয়ে গেলে সেখান থেকে বের হওয়া যায় না। - সংকলিত

 

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ সরদার মোঃ শাহীন,
বার্তা সম্পাদকঃ ফোয়ারা ইয়াছমিন,
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ আবু মুসা,
সহঃ সম্পাদকঃ মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিসঃ ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২,
উত্তরা, ঢাকা,
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com