দেশেই তৈরি হচ্ছে স্যামসাংয়ের স্মার্টফোন

প্রকাশের সময় : 2020-02-12 13:04:35 | প্রকাশক : Administration
দেশেই তৈরি হচ্ছে স্যামসাংয়ের স্মার্টফোন

সিমেক ডেস্কঃ দেশে তৈরি হচ্ছে দক্ষিণ কোরিয়াভিত্তিক বিশ্বের শীর্ষ ইলেকট্রনিক পণ্য নির্মাতা স্যামসাংয়ের স্মার্টফোন। এসব স্মার্টফোনের প্যাকেজিংয়ে লেখা থাকছে মেড ইন বাংলাদেশ। স্যামসাংয়ের ফ্ল্যাগশিপ ডিভাইসসহ (গ্যালাক্সি নোট এবং এস সিরিজ) সব ফোন ও ট্যাব সংযোজন হচ্ছে দেশে। এ ছাড়া ২০২০ সালের প্রথম প্রান্তিকে মাদারবোর্ডসহ অন্যান্য কম্পোন্যান্ট তৈরির মধ্য দিয়ে পুরোদমে ম্যানুফ্যাকচারিংয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা আছে।

২০১৮ সালের জুন মাসে নরসিংদীর শিবপুর উপজেলায় কারখানা স্থাপন করেছিল ফেয়ার ইলেকট্রনিকস। এক বছরে ১৫ লাখ ফোরজি স্মার্টফোন দেশে সংযোজন করেছে স্যামসাংয়ের পরিবেশক ফেয়ার ইলেকট্রনিকস। ফেয়ার ইলেকট্রনিকসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) রুহুল আলম আল মাহবুব বলেন, ‘দেশে মোবাইল উৎপাদনে (ম্যানুফ্যাকচারিং) উৎসাহী করতে গত বাজেটে হ্যান্ডসেট আমদানির ওপর শুল্ক, কর বাড়ানো এবং স্থানীয় উৎপাদনে শুল্ক ছাড় দেওয়া ছিল যুগোপযোগী পদক্ষেপ। এতে যারা কারখানা স্থাপন করেনি তারা চাপে পড়েছে। আশা করি বাকিরাও দ্রুতই আসবে।’

স্থানীয় উৎপাদন দিয়ে দেশের মোট চাহিদার অর্ধেক পূরণ হচ্ছে জানিয়ে ফেয়ার ইলেকট্রনিকসের এমডি বলেন, ‘আমরা সবাই মিলে ৫০ শতাংশ মার্কেট শেয়ার অর্জনে সক্ষম হয়েছি। ২০২০ সালের শেষ নাগাদ স্থানীয় উৎপাদন দিয়ে আমরা মোবাইল ফোনের ৯৫ শতাংশ চাহিদা পূরণ করতে পারব বলে আশা করি। বর্তমানে বছরে তিন কোটি হ্যান্ডসেটের (ফিচার ও স্মার্ট) চাহিদা আছে যার বাজার মূল্য ১০ হাজার কোটি টাকা। এর মধ্যে স্মার্টফোনের বাজার সাত হাজার কোটি টাকার।

২০০৯ সালে স্যামসাং বাংলাদেশে তাদের কার্যক্রম শুরু করে। ২০১৯ সালে বাংলাদেশে ১০ বছর এবং কোরিয়ায় ৫০ বছর পূর্ণ করল তারা। স্যামসাংয়ের মার্কেট শেয়ার সম্পর্কে জানতে চাইলে রুহুল আলম আল মাহবুব বলেন, ‘আগামী বছর থেকে স্যামসাংয়ের সব স্মার্টফোন বাংলাদেশে প্রস্তুত হবে। ফ্ল্যাগশিপ ডিভাইস ও ট্যাব আমরা আরো সাশ্রয়ী দামে ক্রেতাদের দিতে পারব।’

নরসিংদীর শিবপুর উপজেলায় ২৫ একর জমিতে গড়ে তোলা হয়েছে স্যামসাংয়ের কারখানা। সেখানে মোবাইল ডিভিশনে কর্মসংস্থান হয়েছে ৪০০ জনের যাদের ৯৯ শতাংশই বাংলাদেশি বলে জানালেন ফেয়ার গ্রুপের চেয়ারম্যান। তিনি বলেন, ‘দেশে মোবাইলে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা না থাকায় আমাদের অভিজ্ঞ লোক আনতে হয়েছে।’

তবে দেশে স্মার্টফোন সংযোজনে অনেক কারখানা তাদের কার্যক্রম শুরু করলেও এখনো ভেন্ডর (ব্যাকওয়ার্ড লিংকেজ ইন্ডাস্ট্রি) গড়ে উল্লেখ করে এই শিল্পোদ্যোক্তা বলেন, ‘দেশে স্মার্টফোনের ভেন্ডর শিল্প প্রতিষ্ঠায় নীতি সহায়তা দরকার, যা লিংকেজ ইন্ডাস্ট্রি স্থাপনে বিনিয়োগ উৎসাহী করবে। ব্যাটারি, চার্জার, কার্টুন, এয়ারফোন, কেসিং থেকে শুরু করে যারা লিংকেজ শিল্প গড়ে তুলবে তাদেরও স্থানীয় শিল্পের মতো সুবিধা দিতে হবে। আমরা আশা করছি, আগামী বাজেটে আমরা এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ পাবো।’

দেশে সংযোজিত স্যামসাংয়ের মোবাইল ফোনের মান কেমন, গ্রাহকরা তা কিভাবে নিচ্ছে জানতে চাইলে রুহুল আলম আল মাহবুব বলেন, ‘স্যামসাং পৃথিবীর যেখানেই পণ্য তৈরি করে তার গুণগত মানের কোনো পার্থক্য নেই। সেটা চীন, ভিয়েতনাম, কোরিয়া, ভারত কিংবা বাংলাদেশে হোক। গ্রাহকরা খুবই গর্বের সঙ্গে কিনছে মেড ইন বাংলাদেশ ফোন। আমরা ১২০ দিনের একটা রিপ্লেসমেন্ট ওয়ারেন্টি দিচ্ছি। আমাদের কারখানায় ডিফল্ট রেশিও স্যামসাংয়ের গ্লোবাল ডিফল্ট রেশিওর চেয়ে অনেক কম। এতেই প্রমাণ হয় আমাদের দেশীয় কর্মীদের দক্ষতা।’

যুক্তরাষ্ট্র-চীনের বাণিজ্যযুদ্ধের প্রভাবে অনেকে চীন থেকে কারখানা স্থানান্তর করছে। বাংলাদেশ এই সুযোগ কিভাবে কাজে লাগাতে পারে জানতে চাইলে রুহুল আলম আল মাহবুব বলেন, ‘প্রত্যেকটি শিল্পের একটি মোক্ষম সময় থাকে। এখন আমরা নিজেদের কিভাবে তৈরি করব সেটাই গুরুত্বপূর্ণ। চীন থেকে কারখানা সরবে কিন্তু আমরা যদি প্রস্তুত না থাকি তাহলে যারা প্রস্তুত আছে যেমন: ভিয়েতনাম, ভারত, ইন্দোনেশিয়া চলে যেতে পারে। এসব জায়গায় সরকারের আরো নজর দেওয়া উচিত।

চীনে যে ইকোসিস্টেম গড়ে উঠেছে, তা আমাদের দেশে গড়ে তুলতে ব্যাপক কর্মতৎপরতা হাতে নিতে হবে। আমাদের এখানে ব্যাকুয়ার্ড লিংকেজ গড়ে তুলতে প্রত্যেকটি ইন্ডাস্ট্রির জন্য আলাদা আলাদা সাপোর্ট প্রগ্রাম হাতে নিতে হবে। ভিয়েতনামের সঙ্গে যেখানে ১৩০ গন্তব্যে সরাসরি ফ্লাইট আছে সেখানে আমাদের আছে মাত্র ১৫-১৮টি। বাংলাদেশ বিমানের অনেক নতুন এয়ারক্রাফট এসেছে, যা দিয়ে আরো নতুন গন্তব্য উন্মোচিত হবে বলে আশা করি।’

 

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ সরদার মোঃ শাহীন,
বার্তা সম্পাদকঃ ফোয়ারা ইয়াছমিন,
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ আবু মুসা,
সহঃ সম্পাদকঃ মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিসঃ ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২,
উত্তরা, ঢাকা,
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com