গাড়ল খামারি মাসুদ রানার সাফল্য

প্রকাশের সময় : 2020-03-11 12:33:56 | প্রকাশক : Administration
গাড়ল খামারি মাসুদ রানার সাফল্য

সিমেক ডেস্কঃ চাঁপাই নবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার কানসাট ইউনিয়নের শিবনারায়ণপুর গ্রামের বাসিন্দা মোঃ মাসুদ রানা। মাত্র ৩১ বছর বয়সেই তিনি এখন আদর্শ উদ্যোক্তা হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছেন। মোঃ মাসুদ রানা মার্কেটিং বিভাগ হতে বিবিএ ও এমবিএ সম্পন্ন করেন।

এরপর নিজ বাড়ির পাশে একটি উন্নত জাতের গাড়ল খামার গড়ে তুলেন। প্রথমে ৪৪টি গাড়ল দিয়ে খামার শুরু করলেও এখন তার খামারে রয়েছে প্রায় শতাধিক গাড়ল। প্রতিনিয়তই তার খামারে বাড়ছে গাড়লের সংখ্যা। গাড়লের মাংস ও চামড়ার ব্যাপক চাহিদা থাকায় খরচের চাইতে অধিক দামে বিক্রি করতে পারেন তার খামারে পালিত গাড়ল। মার্কেটিং বিভাগ হতে বিবিএ ও এমবিএ সম্পন্ন করার পর চাকরির জন্য বেশ কিছু দপ্তরে যোগাযোগ করেন তিনি। এরপরেও চাকরি না হওয়ায় নিজেই গাড়ল খামার করার পরিকল্পনা করেন। তিনি স্থানীয় প্রাণিসম্পদ কার্যালয়ে যোগাযোগ করে গাড়ল পালনের সিদ্ধান্ত নেন। গাড়ল পালনে তেমন খরচ হয় না। সঠিক নিয়মে পরিচর্যা ও দেখাশোনা করলেই বড় হয়। খামারের আশেপাশে ব্যাপক চারণভূমি থাকায় সারাদিন বাইরের খাবারেই বড় হয়। এ ছাড়া গাড়লগুলো শৃঙ্খলাবদ্ধ হওয়ায় তাদের লালন পালনে তেমন বেগ পেতে হয় না। একেকটি গাড়ল ১৪ মাসে দুটি করে বাচ্চা দেয়। বাচ্চা ও বড় গাড়ল বিক্রি করে যে টাকা আয় হয় তা দিয়ে চলে খামার খরচ ও দুই কর্মচারীর বেতন।

ওই সব খরচ বাদ দিয়ে প্রতি মাসে মাসুদ রানার জমা হয় প্রায় ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা। তার জমানো টাকা দিয়ে শুরু করেছেন মধুমতি বিজনেস ডেভেলপমেন্ট লিমিটেড নামে একটি বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান। সেখানে তিনি ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। সেখানে উৎপাদিত হয়, তেল, আটা, খাতা, টিস্যু ব্যাগ, বিশুদ্ধ পানি, ব্যাটারির পানিসহ বিভিন্ন মসলার কারখানা। এ ছাড়াও তার রয়েছে মধুমতি হাট.কম নামে আরো একটি অনলাইন বাজার। যা চাঁপাই নবাবগঞ্জ জেলায় প্রথম।

নিজেই গড়ে তুলেছেন বৃহৎ আকারের ছাপাখানা। ওই সব প্রতিষ্ঠানে কাজ করছে চাঁপাই নবাবগঞ্জ জেলার প্রায় সাড়ে ৪শ’ যুবক ও যুবতী। সীমান্তবর্তী এ জেলায় তার এমন কর্মকান্ডকে সাধুবাদ জানিয়েছে স্থানীয়রা। আবার তাকে তরুণ প্রজন্মের আইকন হিসেবে দেখছে প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা। ধৈর্য, ইচ্ছা শক্তি সফলতার মূল কারণ। তিনি বলেন, সকল কাজ আমি পরিকল্পনা অনুযায়ী বাস্তবায়ন করি। -মানবজমিন

 

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ সরদার মোঃ শাহীন,
বার্তা সম্পাদকঃ ফোয়ারা ইয়াছমিন,
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ আবু মুসা,
সহঃ সম্পাদকঃ মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিসঃ ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২,
উত্তরা, ঢাকা,
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com