‘তোমাদের পানে চাহিয়া বন্ধু আর আমি জাগিব না’

প্রকাশের সময় : 2020-09-17 16:45:22 | প্রকাশক : Administration
‘তোমাদের পানে চাহিয়া বন্ধু আর আমি জাগিব না’

সিমেক ডেস্কঃ তোমাদের পানে চাহিয়া বন্ধু আর আমি জাগিব না/কোলাহল করি সারা দিনমান কারও ধ্যান ভাঙিব না!! /নিশ্চল নিশ্চুপ/আপনার মনে পুড়িব একাকী গন্ধবিধুর ধূপ। সারাজীবন ‘গন্ধবিধুর ধূপ’ হয়ে জ্বলা দুখু মিয়া তিনি। ঝাঁকড়া চুলের বাবরি দোলানো মহান পুরুষের নাম কাজী নজরুল ইসলাম। নজরুল অমর অক্ষয়। মৃত্যুর দীর্ঘকাল পরও এতটুকু ম্লান হননি তিনি। বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের নতুন যুগস্রষ্টা নজরুল বিস্ময়কর এক আলো হয়ে জ্বলছেন। পরাধীন সময়ে ঝড়ের মতো, ধূমকেতুর মতো আবির্ভাব ঘটেছিল নজরুলের। সেই কবেকার কথা! অথচ এই এখনও বিস্ময়কর আলো হয়ে পথ দেখিয়ে চলেছেন বাঙালীকে। তাঁর কবিতা, ছোটগল্প, উপন্যাস, প্রবন্ধ বাংলা সাহিত্যকে দিয়েছে বিপুল সমৃদ্ধি।

প্রেম ও বিদ্রোহের শাশ্বত বাণীর স্রষ্টা এবং অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী কবির নাম কাজী নজরুল ইসলাম। অসাম্প্রদায়িকতার বরপুত্র ও সাম্যবাদী চেতনার মহান পুরুষ ছিলেন তিনি। গদ্য রচনার সময়ও স্বতন্ত্র চিন্তাকে প্রাধান্য দিয়েছেন নজরুল। তবে নজরুলের সৃষ্টির অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অংশজুড়ে আছে সঙ্গীত। প্রায় সাড়ে ৩ হাজার গান রচনা করেন তিনি। সুর বৈচিত্র্যে ভরপুর এ সব গান বাংলা সঙ্গীতকে অনন্য উচ্চতায় আসীন করেছে।

সাহিত্য চর্চার শুরু বালক বয়সে। লেটো দলে যোগ দিয়ে শুরু হয় তার সাহিত্য চর্চা। নজরুলের কবিতা, ছোটগল্প, উপন্যাস, প্রবন্ধ বাংলা সাহিত্যকে দিয়েছে বিপুল সমৃদ্ধি। কবি বিশেষ আলোড়ন তুলেন ‘বিদ্রোহী’ কবিতা লিখে।

অথচ জীবনের শুরুটা ছিল ভীষণ অনিশ্চয়তার। ক্ষণজন্মা মানুষটি ১৩০৬ বঙ্গাব্দের ১১ জ্যৈষ্ঠ ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার আসানসোল মহকুমার চুরুলিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার ডাক নাম ‘দুখু মিয়া’।

অতি দরিদ্র পরিবারের সন্তান নজরুলের পড়ালেখার শুরু মক্তবে। বাবার মৃত্যুর পর দারিদ্র্যের কারণে তাঁর প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা বেশিদূর এগোয়নি। কিন্তু প্রতিভাবান নজরুল নিজের চেষ্টায় প্রচুর পড়াশোনা করে সমৃদ্ধ করেছেন তার মনন ও চিন্তার জগৎ। মাত্র ১০ বছর বয়সেই রুটির দোকানে কাজ শুরু করেন কবি। বালক বয়সেই লোকশিল্পের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে যোগ দেন লেটো দলে। পরে মসজিদের মুয়াজ্জিন, মাজারের খাদেম হিসেবেও কাজ করেছেন। যৌবনে সেনাসদস্য হিসেবে যোগ দিয়েছেন যুদ্ধেও। সাংবাদিকতা পেশার সঙ্গেও যুক্ত ছিলেন তিনি। করেছেন রাজনীতি। এভাবে অত্যন্ত বর্ণাঢ্য আর বিচিত্র জীবনযাপন করেন নজরুল।

পরাধীন ভারতে বিশেষ করে অবিভক্ত বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িকতা, সামন্তবাদ, সাম্রাজ্য ও ঔপনিবেশবাদের বিরুদ্ধে সবচেয়ে বলিষ্ঠ ও সোচ্চার কণ্ঠ ছিলেন। সে কারণে ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনে তার লেখনী ধূমকেতুর মতো আঘাত হেনে জাগিয়ে দিয়েছিল ঘুমন্ত ভারতবাসীকে। গণবিদ্রোহ সৃষ্টিতে ইন্ধন জোগানোর অভিযোগে ইংরেজ সরকার তার একাধিক গ্রন্থ ও রচনা করেছে বাজেয়াপ্ত, তাকে নিক্ষেপ করেছে কারাগারে। কারাগারেও চিরবিদ্রোহী ছিলেন, প্রতিবাদ করেছিলেন ব্রিটিশ সরকারের জেল-জুলুমের। ইংরেজ ঔপনিবেশিক শাসক-শোষকদের ভিত্তিমূল কাঁপিয়ে দিয়েছিল তার আগুনঝরা কবিতা; আর কবিতার ঝঙ্কারে শুধু শোষক-শাসকের ভিত্তিমূলই কাঁপেনি, কেঁপে উঠেছিল সমগ্র বাংলাও।

তবে জীবনের বড় অংশজুড়ে ছিল নানান লাঞ্ছনা আর গঞ্জনা। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৪২ সালে অগ্রজ রবীন্দ্রনাথের ‘ট্র্যাজেডি’র আশঙ্কাকে সত্য প্রমাণ করেন। কবি বাকশক্তি ও মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে নির্বাক শিশুর মতো হয়ে যান। নির্বাক থাকেন জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত। এ অবস্থায় ১৯৭২ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ভারত থেকে কবিকে স¡পরিবারে বাংলাদেশে নিয়ে আসেন। নজরুলকে জাতীয় কবির মর্যাদা দেন। বাংলা সাহিত্য ও সংস্কৃতিতে অবদানের জন্য ১৯৭৪ সালের ৯ ডিসেম্বর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কবিকে ডিলিট উপাধিতে ভূষিত করে। একই বছরের ২১ ফেব্রুয়ারী তাঁকে দেয়া হয় একুশে পদক।

কবির জীবনের শেষ দিনগুলো কাটে তৎকালীন পিজি হাসপাতালে। দীর্ঘ রোগ ভোগের পর ১৯৭৬ সালের ২৯ আগস্ট ৭৭ বছর বয়সে পৃথিবীকে চিরবিদায় জানান তিনি। কবির আকাঙ্খার কথা রেখেই তাকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদের পাশে দাফন করা হয়।

 

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ সরদার মোঃ শাহীন,
বার্তা সম্পাদকঃ ফোয়ারা ইয়াছমিন,
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ আবু মুসা,
সহঃ সম্পাদকঃ মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিসঃ ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২,
উত্তরা, ঢাকা,
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com