পদ্মা সেতুর পঞ্চম স্প্যান বসানোর প্রস্তুতি

প্রকাশের সময় : 2018-06-27 18:24:59 | প্রকাশক : Admin
পদ্মা সেতুর পঞ্চম স্প্যান বসানোর প্রস্তুতি

সিমেক ডেস্কঃ পদ্মা সেতুর ৫ম স্প্যান বসছে জুনের শেষ দিকে। জাজিরা প্রান্তের সর্বশেষ খুঁটি দুটিতে অর্থাৎ ৪১ ও ৪২ নম্বরে স্প্যানটি বসছে। তবে ৬ষ্ঠ স্প্যান বসবে মাওয়া প্রান্তে। এদিকে সেতুর ৫ম স্প্যানের রঙের কাজ চলছে এখন। ‘৭ এফ’ নম্বর স্প্যানটি পদ্মা সেতুর বিশেষায়িত ওয়ার্কশপের রঙের শেডের নিচে এই কাজ চলমান। এখানে স্প্যানটির ঘষামাজা শেষে ধূসর রং করার প্রক্রিয়া চলছে।

তবে ঝড়বৃষ্টির কারণে এই রঙের কাজ কিছুটা বিঘ্নিত হচ্ছে। বাতাসে ৮৫ শতাংশের বেশি আর্দ্রতা থাকলে এই উচ্চ ক্ষমতার রং যথাযথ হয় না। কয়েক দিনে বাতাসে এই আর্দ্রতা বেশি পাওয়া যাচ্ছে। তবে আবার এই র্আর্দ্রতা কমে স্বাভাবিক অবস্থায়ও আসছে। দায়িত্বশীলরা জানিয়েছেন এমনটি হতেই পারে। তবে যখনই আবহাওয়া অনুকূলে চলে আসবে তখনই রঙের কাজ সম্পন্ন করা সম্ভব হবে। তবে স্প্যানটি যে ৪২ নম্বর খুঁটিতে স্থাপন করা হবে সেটির কাজ দ্রুত এগিয়ে চলেছে। তাই ধারণা করা হচ্ছে জুনের শেষদিকে ৫ম স্প্যানটি খুঁটিতে বসিয়ে দেয়া সম্ভব হবে।

কুমারভোগের ওয়ার্কশপে এখন ১৩টি স্প্যান রয়েছে। দেশে আনা ১৭টির মধ্যে ৪টি স্প্যান স্থাপন করা হয়েছে। এছাড়া চীনে আরও ১২টি রেডি করে রাখা হয়েছে। তবে ওয়ার্কশপে জায়গার সংকুলান না হওয়ায় আনা যাচ্ছে না। এছাড়া চীনে আরও ৭টি স্প্যান তৈরির কাজ এগিয়ে চলেছে। মোট ৪১টি স্প্যানের আর বাকি থাকে ৫টি। এর পরই শেষ ৫টি স্প্যান তৈরির কাজ শুরু হবে।

৬ষ্ঠ স্প্যান বসছে মাওয়া প্রান্তে। তবে দায়িত্বশীলরা নতুন তথ্য দিয়ে জানিয়েছেন, মাওয়া প্রান্তের ২, ৪ ও ৫ নম্বর খুঁটির কাজ এগিয়ে যাচ্ছে। ৩ নম্বর খুঁটির কাজ একেবারেই সম্পন্ন হয়ে গেছে। এখন এগিয়ে চলেছে বাকি খুঁটির কাজ। তাই ২ ও ৩ নম্বর খুঁটিতে ‘১বি’ স্প্যান বসানো আলোচনায় এলেও তা নিয়ে দ্বিমতও রয়েছে। এই প্রকৌশলী জানান, স্প্যান বসানোর বিষয়টি কয়েকটি ধাপে ভাগ করা হয়েছে। সে অনুযায়ী প্রথম ধাপে রয়েছে মাওয়া প্রান্ত। এই প্রান্তের হয় ১ম ও ২য় খুঁটি থেকে অথবা ৭ম ও ৬ষ্ঠ খুঁটি থেকে স্প্যান বসানোর একটি টেকনিক্যাল নির্দেশনা রয়েছে। সহজে সেট করার জন্যই তা করা হয়ে থাকে। মাওয়া প্রান্তে ৬ষ্ঠ স্প্যান বসছে এটা নিশ্চিত।

এদিকে স্থাপন করা সেতুর স্প্যানে বসানোর জন্য রেলওয়ে স্লাভের কাজ দ্রুত এগিয়ে চলেছে। কুমারভোগের ওয়ার্কশপে এ পর্যন্ত সাড়ে ৪শ’ স্লাভ তৈরি হয়ে গেছে। এদিকে টেস্ট সম্পন্ন হওয়ার পরে গ্রীন সিগনাল দেয়া হয়েছে। তাই রোডওয়ে বক্স     স্লাভের কাজ শুরু হতে যাচ্ছে। রেলওয়ে এবং রোডওয়ে উভয় তলার জন্য সমপরিমাণ অর্থাৎ তিন হাজার ১শ’ ৫০টি করে স্লাভ প্রয়োজন হবে।

 

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ সরদার মোঃ শাহীন,
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ রফিকুল ইসলাম সুজন,
বার্তা সম্পাদকঃ ফোয়ারা ইয়াছমিন,
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ আবু মুসা,
সহঃ সম্পাদকঃ মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিসঃ ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২,
উত্তরা, ঢাকা,
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com