অ্যালার্জি ও সর্দি হয় যে কারণে

প্রকাশের সময় : 2018-06-27 18:36:46 | প্রকাশক : Admin
অ্যালার্জি ও সর্দি হয় যে কারণে

সিমেক ডেস্কঃ সাধারণত যারা বেশি পরিমাণে ঘরের বাইরে থাকেন তাদের মধ্যে সর্দি বা এলার্জির পরিমাণ বেশি লক্ষ্য করা যায়। তবে ঘরের ভেতরে অনেক বস্তু রয়েছে যেগুলো কারো মধ্যে এলার্জি বা সর্দির উদ্রেক করতে পারে। নিচে তেমনই কয়েকটি বস্তু বা উপাদান নিয়ে আলোচনা করা হলোঃ 

সুগন্ধি মোমবাতিঃ ভাবতেও পারেননি যে শখের সুন্দর গন্ধের মোমবাতির কারণে আপনার সর্দি লেগে যায়। ২০১১ সালের এক গবেষণায় বলা হয়, রুম স্প্রে বা সুগন্ধি মোমবাতি শ্বাসযন্ত্রে অ্যালার্জির কারণ। এদের শক্তিশালী গন্ধ নাসারন্ধ্রে বিরক্তির উদ্রেক করে। এর থেকে মুক্তি পেতে ঘরের জানালা কিছুক্ষণ খুলে রাখুন। এমনকি কাপড় ধোয়ার সাবান বা ডিটারজেন্টের গন্ধেও সর্দি হয়।

ভ্যাকুয়াম ক্লিনারঃ ঘরের ধুলাবালি দ্রুত পরিষ্কার করতে অনেক গৃহিণীই ভ্যাকুম ক্লিনার পছন্দ করেন। কিন্তু পরিষ্কারের পর যে ধুলা-ময়লা এর ভেতরের ব্যাগে জমা পড়ে, তা আবারও ছড়িয়ে পড়ে বাতাসে। তাই ব্যাগের এক-তৃতীয়াংশ ভরে গেলেই ময়লা ফেলে দেওয়া উচিত। এ ছাড়া ক্লিনারের এইচইপিএ ফিল্টারটি প্রতি ছয় মাস অন্তর বদলানো প্রয়োজন।

ভাঙা জানালাঃ জানালা দিয়ে অনায়াসে ঠাণ্ডা বাতাস ঘরে ঢুকে পড়ে। এ বাতাস নাসারন্ধ্র ও নাকের সঙ্গে যুক্ত স্নায়ুতন্ত্রে উত্তেজনা সৃষ্টি করে। ফলে সর্দি লেগে যায়।

নরম পুতুলঃ বাচ্চাদের জন্য তুলো ঠাসা নরম ভালুক বা অন্যান্য পুতুল অনেক ক্ষেত্রেই সর্দির কারণ হয়ে দাঁড়ায়। এগুলোর সংস্পর্শে থাকলে অদৃশ্য তন্তু নাকে ঢুকে পড়ে এবং সর্দি লেগে যায়। এ ছাড়া এসব পুতুলে প্রচুর ধুলাবালি আটকে থাকে। তাই কয়েক মাস পর পর পরিষ্কার করা উচিত।

রৌদ্রোজ্জ্বল ঘরঃ ঠাণ্ডা বাতাসের মতো অতিরিক্ত রৌদ্রোজ্জ্বল ঘর সর্দির কারণ হয়।

ব্যায়ামঃ অবাক হলেও জেনে নিন, ব্যায়াম করতে গেলে অনেকেরই সর্দির সমস্যা শুরু হয়। এ অবস্থাকে বলে ‘এক্সারসাইজ-ইনডিউসড রাইনিটিস (ইআইআর)’। ২০০৬ সালের এক গবেষণায় বলা হয়, নাসাল অ্যালার্জিতে আক্রান্তদের ব্যায়ামের সময় সর্দি হতে পারে। এতে চুলকানিও হয়।

বাথরুমের ম্যাটঃ ওয়াশ রুমের ভেতরে বা বাইরে রাখা ম্যাট সব ধরনের ব্যাকটেরিয়া ও ছত্রাকের আবাসস্থল। প্রতি সপ্তাহে এই ম্যাট একবার না ধুলে আপনার অনায়াসে সর্দি হতে পারে। আধাকাপ ব্লিচিং পাউডার ঠাণ্ডা পানিতে মিশিয়ে এগুলো ওয়াশিং মেশিনে ওয়াস করতে পারেন। তবে রাবারের ম্যাটের ক্ষেত্রে তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণে সাবধান থাকতে হবে।  - সূত্রঃ বিডি প্রতিদিন

 

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ সরদার মোঃ শাহীন,
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ রফিকুল ইসলাম সুজন,
বার্তা সম্পাদকঃ ফোয়ারা ইয়াছমিন,
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ আবু মুসা,
সহঃ সম্পাদকঃ মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিসঃ ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২,
উত্তরা, ঢাকা,
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com