সবুজে ঘেরা গ্রাম, ঘুরতে চাইলে লাগবে টিকিট!

প্রকাশের সময় : 2018-07-13 12:18:02 | প্রকাশক : Admin
সবুজে ঘেরা গ্রাম, ঘুরতে চাইলে লাগবে টিকিট!

সিমেক ডেস্কঃ হোউতোওয়ান। চীনের শেংশান দ্বীপপুঞ্জের সবুজে ঘেরা একটি গ্রাম। এই গ্রামে প্রবেশ করতে হলে একজন পর্যটককে অবশ্যই টিকিট কাটতে হবে! সেখানে মানুষের সংখ্যা হাতে গোনা। কিন্তু সবুজের কমতি নেই। যেদিকে তাকাবেন, সেদিকে শুধু সবুজ আর সবুজ। সবুজের আধিপত্য এতটাই যে বাড়িঘরও ছাড় পায়নি। পরিত্যক্ত বাড়ির দেয়াল, জানালা, ছাদও এখন সবুজে সবুজ।

চীনের শেংশান দ্বীপপুঞ্জে মোট ৪০০টি গ্রাম রয়েছে। এর একটি হলো হোউতোওয়ান। ১৯৯০-এর দশকেই গ্রামটিকে পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়েছিল। এরপর থেকেই সেখানকার অধিবাসীরা ধীরেধীরে গ্রাম ছেড়ে চলে যান। জীবনযাপনের উন্নত সুযোগ-সুবিধার জন্যই অধিবাসীরা চলে গিয়েছিলেন মূল ভূখন্ডে। এখন গোটা কয়েক মানুষ সেখানে থাকছেন। তবে মানুষ চলে যাওয়ার পর ধীরে ধীরে প্রকৃতি রাজত্ব বিস্তার করেছে ওই গ্রামে।

ছোট্ট এই গ্রামে সম্প্রতি গিয়েছিলেন এক ফটোসাংবাদিক। তাঁর তোলা ছবিতে মূর্ত হয়ে উঠেছে গ্রামের সবুজ সৌন্দর্য। আগে এই গ্রামে থাকতেন হাজার দু’এক জেলে।   ৫০০ বাড়ি ছিল সেখানে। এখন গ্রামের সব বাড়ি ও রাস্তা অধিকার করে নিয়েছে সবুজ গাছপালা। সাংহাই থেকে মাত্র ১৪০ কিলোমিটার দূরে গ্রামটির অবস্থান। এখানে এলে পানির বোতল ছাড়া আর কিছু কিনতে পারবেন না! পর্যটকদের জন্য ব্যবস্থা আছে এটুকুই।

২০১৫ সালে এই পরিত্যক্ত গ্রামকে নতুন করে আবিষ্কার করা হয়। ওই সময়ে তোলা কিছু ছবিতেই গ্রামটির সৌন্দর্য বাইরের দুনিয়ার মানুষের কাছে ধরা দেয়। এখন গ্রামটি পর্যটকদের আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু হয়ে উঠেছে। আর পর্যটকদের জন্যই আবার সেখানে কিছু মানুষ আবাস গেড়েছেন। এই গ্রামে এখন টিকিট কেটে ঢুকতে হয় পর্যটকদের! - সূত্র অনলাইন

 

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ সরদার মোঃ শাহীন,
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ রফিকুল ইসলাম সুজন,
বার্তা সম্পাদকঃ ফোয়ারা ইয়াছমিন,
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ আবু মুসা,
সহঃ সম্পাদকঃ মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিসঃ ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২,
উত্তরা, ঢাকা,
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com