যেভাবে এলো আজকের মিয়ানমার

প্রকাশের সময় : 2018-07-13 12:29:04 | প্রকাশক : Admin
�যেভাবে এলো আজকের মিয়ানমার

সিমেক ডেস্কঃ বর্তমান সময়ে প্রতিবেশী যে রাষ্ট্রের দ্বারা বাংলাদেশ সবচেয়ে বেশি চাপের মুখে রয়েছে এবং একইসাথে যে দেশটি অদূর ভবিষ্যতে বাংলাদেশের জন্য আরও অগণিত সমস্যা তৈরি করবে সেটি মিয়ানমার। লাখো লাখো রোহিঙ্গা অধিবাসীকে নিজ দেশ ত্যাগ করে বাংলাদেশে আশ্রয় নিতে বাধ্য করছে সে দেশের সরকার ও সামরিক বাহিনী। এই সমস্যা আজ নতুন নয়। সেই ‘৭০ এর দশক থেকেই রোহিঙ্গাদের উপর অত্যাচার-নির্যাতন চলছে, চলছে বাংলাদেশের সীমান্তে শরণার্থী হয়ে তাদের অনুপ্রবেশ। ১৯৮৯ সালে দেশটির নাম ইউনিয়ন অব বার্মা থেকে ইউনিয়ন অব মিয়ানমারে পরিবর্তন করা হয়। বার্মা নামটি এসেছে দেশটির সর্ববৃহৎ সম্প্রদায় ‘বামার’ থেকে। নাম থেকেই বোঝা যায় যে সাম্প্রদায়িকতা দেশটির রন্ধ্রে রন্ধে মিশে আছে।

আজকের মিয়ানমার বা পূর্বের বার্মা এককালে একাধিক ছোট ছোট স্বাধীন রাষ্ট্রে বিভক্ত ছিল। ১০৪৪ সালে রাজা অনরথ পাগান নামক রাষ্ট্রের সিংহাসনে বসেন। তিনিই প্রথম ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা রাষ্ট্রগুলোকে একত্রিত করে একটি একচ্ছত্র রাজত্ব প্রতিষ্ঠা করেন এবং পাগান প্রদেশটি হয় তার রাজধানী। চতুর্দশ শতকের মাঝামাঝি দেশটি চারটি অঞ্চলে বিভক্ত হয়ে পড়ে; উচ্চ বার্মা, নিম্ন বার্মা, শন প্রদেশ ও আরাকান প্রদেশ। এসব প্রদেশের মধ্যে স্বাভাবিকভাবেই যুদ্ধ-বিগ্রহ লেগে থাকতো। ১৬৩৫ সালে রাজা থালুন বিশৃঙ্খল অঞ্চলগুলোর দখল নিয়ে দেশটিকে একক সীমারেখার ভেতর নিয়ে আসেন। তার অধীনে বার্মায় রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা আসে এবং তা দীর্ঘদিন বিরাজ করে। তবে এর পরও যুদ্ধ বিগ্রহ থেমে থাকেনি। তবে নিরবচ্ছিন্ন রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা বার্মায় কখনোই বিরাজ করেনি। এরূপ রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতার সুযোগ নিতে দখলবাজ ব্রিটিশরাও ভুল করেনি। ৬০ বছরে ৩টি অ্যাংলো-বার্মিজ যুদ্ধের পরে ১৮৮৬ সালে বার্মাকে ব্রিটিশ শাসিত ভারতের একটি অংশ হিসেবে জুড়ে নেয়া হয়।

ব্রিটিশরা তাদের ‘Divide and Rule’ নীতি বার্মা শাসনের ক্ষেত্রেও কাজে লাগায়। বিভিন্ন গোষ্ঠীতে বিভক্ত বার্মার জনগণকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে তারা সংখ্যাগুরু সম্প্রদায়গুলোর লোকজনকে বেশি করে সামরিক বাহিনী ও স্থানীয় প্রশাসনে নিয়োগ দিতে থাকে। সংখ্যালঘুদের বিড়ম্বনার শুরু সেখান থেকেই। গত শতাব্দীর বিশের দশকে বার্মার সুশীল সমাজ ও বৌদ্ধ ভিক্ষুরা প্রথম ব্রিটিশ শাসনের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করে।

এই সময় অং সান নামে এক তরুণের উত্থান হয়। তিনি ছিলেন আইনের ছাত্র। পরবর্তী বছরগুলোতে কিছু সফল ছাত্র ধর্মঘট ও প্রাণবন্ত বিক্ষোভ কর্মসূচির মাধ্যমে অং সান পুরো জাতির সমর্থন অর্জন করেন। ১৯৩৮ সালে তিনি রেঙ্গুন বিশ্ববিদ্যালয় ত্যাগ করে এক নতুন রাজনৈতিক দলের সাথে যোগ দেন। অং সানকে বার্মিজ জাতীয়তাবাদী প্রথম নেতা বলা যায়।

এর মধ্যে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হলে অং সান বুঝলেন বার্মার স্বাধীনতা আদায়ের এটাই মোক্ষম সময়। ২৯ জন সহচরকে নিয়ে অং সান জাপানে গিয়ে সামরিক প্রশিক্ষণ নিলেন। জাপানিজরা অং সানকে প্রতিশ্র“তি দিয়েছিল যে তারা ব্রিটিশদের পরজিত করতে সক্ষম হলে তারা বার্মার স্বাধীনতা হস্তান্তর করবে।

জাপানিজদের সঙ্গে যোগ দিয়ে অং সান ও তার সহযোগীরা বার্মা আক্রমণ করে ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে যুদ্ধও করেছেন। কিন্তু ক্রমে অং সান বুঝলেন যে জাপানের প্রতিশ্র“তি শুধুই বুলিসর্বস্ব। তৎক্ষণাৎ তিনি পক্ষ পরিবর্তন করে জাপানকে পরাজিত করার জন্য ব্রিটিশদের সার্বিক সহযোগিতা দেবার চুক্তি করলেন। শর্ত সেই একই থাকলো, বার্মার পূর্ণ স্বাধীনতা। অং সানের পেছনে বার্মাবাসীর প্রবল সমর্থণ ছিল।

ব্রিটিশদের প্রশ্রয়ে বার্মার রাজনৈতিক দলগুলো জাতীয় নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে থাকে। অং সানের গঠিত দল এএফপিএফএল (AFPFL) ভোটে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করে। বিজয়ী দলের প্রধান হিসেবে অং সান বার্মার জন্য নতুন সংবিধান প্রণয়নের কাজ শুরু করেন। কিন্তু নবগঠিত সরকারের সকল সম্ভাবনা ও প্রতিশ্র“তি ধুলিস্যাৎ হয়ে যায় ১৯৪৭ সালের ১৯ জুলাই। এই দিন কার্যকরী পরিষদের একটি অরক্ষিত সভায় অং সানের রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দী স-এর একদল মেশিনগানধারী ঢুকে অং সানসহ পরিষদের সাতজন সদস্যকে গুলিতে ঝাঁঝরা করে দেয়। স ও তার সহকর্মীদের গ্রেফতার করা হয় এবং এদিকে অং সানের ক্যাবিনেটের এক সদস্য ইয়ু ন্যু কে অং সানের শূন্যস্থানে বসানো হয়। ১৯৪৮ সালের ৪ জানুয়ারি বার্মা শেষমেষ স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে ঘোষিত হয়।

 

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ সরদার মোঃ শাহীন,
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ রফিকুল ইসলাম সুজন,
বার্তা সম্পাদকঃ ফোয়ারা ইয়াছমিন,
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ আবু মুসা,
সহঃ সম্পাদকঃ মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিসঃ ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২,
উত্তরা, ঢাকা,
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com