বরিশাল হবে সিঙ্গাপুর

প্রকাশের সময় : 2018-08-18 17:55:37 | প্রকাশক : Admin
বরিশাল হবে সিঙ্গাপুর

সোহরাব হাসানঃ ‘কোন জেলায় রেললাইন নেই?’ স্কুলের পাঠ্যপুস্তকে এ রকম একটি প্রশ্ন থাকত এবং তার অনিবার্য উত্তর হতো ‘বরিশাল’। বৃহত্তর বরিশাল মানে দক্ষিণাঞ্চলের এখনকার ছয়টি জেলা: বরিশাল, ঝালকাঠি, পটুয়াখালী, বরগুনা, পিরোজপুর ও ভোলা। আশার কথা, সেই বরিশালে আজ রেললাইন স্থাপনের তোড়জোড় চলছে। পদ্মা সেতু চালু হলে ফরিদপুরের ভাঙ্গা পর্যন্ত যে রেললাইন আছে, সেটি প্রথমে যাবে বরিশাল পর্যন্ত। এরপর বরিশাল থেকে পায়রা সমুদ্রবন্দর পর্যন্ত সেটি সম্প্রসারিত হবে। খুলনা থেকে মংলা সমুদ্রবন্দর পর্যন্ত আরেকটি রেললাইন চালুরও পরিকল্পনা আছে সরকারের। সে ক্ষেত্রে দুটি সমুদ্রবন্দরই রেল নেটওয়ার্কের আওতায় আসবে। আর এর থেকে বরিশালের দূরত্ব এক’শ কিলোমিটারেরও কম। ঢাকা থেকে মাওয়া ফেরিঘাট পার হলেই দেখা যায় উন্নয়নের মহাযজ্ঞ। চার লেন সড়ক হচ্ছে। নতুন রেললাইনের কাজ চলছে। পদ্মা সেতু হলে সাড়ে তিন ঘণ্টায় পৌঁছানো যাবে। এখন লাগে আট থেকে দশ ঘণ্টা। একজনের কাছে বরিশালের ব্যবসা-বাণিজ্য সম্পর্কে জানতে চাই। তিনি স্থানীয় কয়েকজন শিল্পোদ্যোক্তা ব্যবসায়ী ও নাগরিক সমাজের প্রতিনিধির সঙ্গে আলাপ করিয়ে দিলেন।

তাঁদের কাছে জানতে চাই, পদ্মা সেতু হলে বরিশালে ব্যবসা বাণিজ্য কতটা বাড়বে? তাঁদের জবাব, তখন বরিশাল হবে ব্যবসা বাণিজ্যের অন্যতম প্রধান কেন্দ্র। শুধু পদ্মা সেতুর কথা বলছেন কেন? পায়রা সমুদ্রবন্দর, রেললাইন, ভারতের সঙ্গে সড়ক ও নৌযোগাযোগ বৃদ্ধি এ সবই বরিশালের অর্থনীতিকে চাঙা করবে। তাঁরা হিসাব দিয়ে বললেন, বরিশালে প্রচুর শস্য উৎপাদিত হয়। নদীতে প্রচুর মাছ ধরা পড়ে। বরিশালের ইলিশের সুনাম আছে। পদ্মায় এখন আর ইলিশ তেমন পাওয়া যায় না। মেঘনার ইলিশই দেশের চাহিদা মেটায়। যোগাযোগের ভঙ্গুরতার কারণে বরিশালের শিল্পোদ্যোক্তারা ঢাকা ও এর আশপাশে গিয়ে তৈরি পোশাক শিল্প প্রতিষ্ঠা করেছেন। পদ্মা সেতু চালু হলে তাঁরাও এখানে ফিরে আসবেন। এখানে নতুন নতুন শিল্পকারখানা গড়ে উঠবে। কেন তাঁরা এখানে আসবেন? ব্যবসায়ীদের যুক্তি হলো, ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম বন্দরে পণ্য যেতে সময় লাগে ৮ থেকে ১০ ঘণ্টা। বরিশাল থেকে পায়রা ও মংলা যেতে লাগবে ২ ঘণ্টা। পরিবহন খরচ অনেক কমে যাবে।

বর্তমানে বরিশালে কয়েকটি ঔষধ, সিমেন্ট কারখানার বাইরে বড় কোনো শিল্প নেই। ১৩৩ একর জমিতে প্রতিষ্ঠিত বরিশাল বিসিক নগরীতে ফরচুন নামে একটি বড় জুতার কারখানা থাকলেও এর বেশির ভাগ প্ল−ট খালি পড়ে আছে। তাঁরা বললেন, এই বিসিক নগরীতেই অনেক কারখানা হতে পারে। এ ছাড়া সরকার আগৈলঝাড়ায় একটি অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠারও উদ্যোগ নিয়েছে। 

শিল্প ও বণিক সমিতির সভাপতি সাইদুর রহমান জানালেন, এখানে কৃষিপণ্য ও মৎস্য প্রক্রিয়াজাতকরণ কারখানা করতে পারলে যেমন প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা আয় হবে, তেমনি অনেক কর্মসংস্থান হবে। তাঁর প্রত্যাশা, দক্ষিণাঞ্চল আর অবহেলিত থাকবে না। বরিশাল হবে বাংলাদেশের সিঙ্গাপুর। এত দিন বরিশালে শিল্পকারখানা হলো না কেন? তিনি বললেন, বিদ্যুতের সমস্যা ছিল। কিন্তু ভোলায় প্রচুর গ্যাস পাওয়া গেছে। পায়রা সমুদ্রবন্দরের কাছে কয়লাভিত্তিক থার্মাল পাওয়ার প্ল−্যান্ট তৈরির কাজও চলছে চীনের সহায়তায়। এ ছাড়া সেখানে একটি এলএনজি টার্মিনাল প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে। তাঁরা আশা করছেন, শিগগিরই ভোলা থেকে গ্যাস আনা যাবে।

ভোলার রাজনীতিকেরা এর আগে বলেছিলেন, ভোলার গ্যাস ভোলায়ই থাকবে। সম্প্রতি তাঁরা ভোলার বাইরে গ্যাস দিতে রাজি হয়েছেন। তবে তাঁদের শর্ত বরিশাল ও ভোলার মধ্যে যে নদী আছে, সেখানে সেতু তৈরি করতে হবে। তাতে ভোলা ও বরিশালের মানুষ উপকৃত হবেন। উন্নয়ন তো একতরফা হয় না। ‘দেবে আর নেবে মেলাবে মিলিবে।’ ভোলার গ্যাস শুধু বরিশাল নয়, খুলনাসহ পুরো দক্ষিণাঞ্চলের চাহিদা মেটাবে বলে আশা করা যায়। গ্যাস সুবিধা পেলে এবং যোগাযোগ সহজ হলে উদ্যোক্তারা বরিশাল অঞ্চলে কারখানা করতে উৎসাহী হবেন। বর্তমানে এখানকার হাজার হাজার শ্রমিক বরিশালের বাইরে বিভিন্ন কারখানায় কাজ করেন। বরিশাল শিল্পায়িত হলে তাঁরা নিজের জেলায় থেকে কাজ করতে পারবেন।

পটুয়াখালীর কুয়াকাটা দেশের দ্বিতীয় সমুদ্রসৈকত, যেখান থেকে সূর্যাস্ত ও সূর্যোদয় দুটোই দেখা যায়। কুয়াকাটায় অনেক হোটেল ও মোটেল প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। পদ্মা সেতু হলে আরও বেশিসংখ্যক পর্যটক আসবেন। তবে বিদেশি পর্যটকদের আকৃষ্ট করতে বরিশাল বিমানবন্দরকে আন্তর্জাতিক রূপ দিতে হবে, যাতে তাঁরা সরাসরি বরিশালে এসে কুয়াকাটা যেতে পারেন। বরিশালের ব্যবসায়ীরা চান সেখানে একটি ফিশল্যান্ডিং স্টেশন হোক, দ্বিতীয় পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের জন্য হিজলায় ২ হাজার একর জমি বরাদ্দ রয়েছে। তাঁদের আক্ষেপ বরিশালে বিভাগীয় স্টেডিয়াম না হওয়ায় এবং পাঁচতারা মানের হোটেল না থাকায় আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলা হতে পারছে না।

 

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ সরদার মোঃ শাহীন,
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ রফিকুল ইসলাম সুজন,
বার্তা সম্পাদকঃ ফোয়ারা ইয়াছমিন,
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ আবু মুসা,
সহঃ সম্পাদকঃ মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিসঃ ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২,
উত্তরা, ঢাকা,
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com