উত্তরা থেকে মতিঝিল! মাত্র ৩৭ মিনিটে!!

প্রকাশের সময় : 2018-10-10 22:32:13 | প্রকাশক : Admin
�উত্তরা থেকে মতিঝিল! মাত্র ৩৭ মিনিটে!!

এম গোলাম মোস্তফাঃ ঢাকায় মেট্রোরেল প্রকল্প এখন দৃশ্যমান বাস্তবতা। অনেক স্থানেই এই রেললাইন স্থাপনের জন্য পিলার বসে গেছে। কোথাও কোথাও কাজ চলছে। শিগগিরই নগরবাসী এর বাস্তব রূপ দেখতে পাবে। যানজট আর পরিবহন সংকট থেকে মুক্তি দিতে এই শহরে তৈরি হচ্ছে মেট্রোরেল। সরকারের অগ্রাধিকারভিত্তিক এই প্রকল্প এগিয়ে চলেছে। উত্তরার দিয়াবাড়ী থেকে মতিঝিল পর্যন্ত প্রায় ২০ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের মেট্রোরেলের লাইনের (এমআরটি-৬) কাজ সংশ্লি−ষ্ট সড়কে দৃশ্যমান। সার্বিক কাজের প্রায় ২০ ভাগ শেষ হয়েছে। বিশেষ উদ্যোগে ২০১৯ সালে উত্তরা তৃতীয় পর্ব থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত সচল হবে এই রেল। আর ২০২০ সালের মধ্যে মতিঝিল পর্যন্ত মেট্রোরেল চলবে। বর্তমানে উত্তরা থেকে মতিঝিল যেতে সময় লাগে তিন থেকে চার ঘণ্টা। মেট্রোরেল সেটা কমিয়ে আনবে ৩৭ মিনিটে। প্রতিটি স্টেশনে প্রতি ৩.৩৭ মিনিটে উভয় দিকে ট্রেন থামবে এবং সম্পূর্ণ এলিভেটেড ও বিদ্যুতচালিত ট্রেন প্রতি ঘণ্টায় ৬০ হাজার যাত্রী পরিবহন করবে।

রাজধানী ঢাকার যানজট নিরসনে ২০১২ সালে প্রকল্পটি অনুমোদন দেয় সরকার। ২০২৪ সালের মধ্যে উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত ১৬টি স্টেশনের নির্মাণকাজ শেষ করার কথা থাকলেও ২০১৯ সালের মধ্যে উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত অন্তত ৯টি স্টেশনের কাজ শেষ করার নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী।

আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন ২৪ সেট মেট্রোরেল নিয়ে শুরু হবে এমআরটি লাইন-৬ এর যাত্রা। প্রতি সেট মেট্রোরেলে প্রাথমিকভাবে ৬টি করে কোচ থাকবে। তবে পরে আরো ২টি কোচ যোগ করে কোচের সংখ্যা ৮টিতে উন্নীত করার ব্যবস্থা রাখা হচ্ছে। মেট্রোরেলের সুষ্ঠু পরিচালনা, রক্ষণাবেক্ষণ এবং উন্নত সেবা নিশ্চিত করতে একটি অত্যাধুনিক অপারেশন কন্ট্রোল সেন্টার থাকবে।

ঢাকা পরিবহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষ (ডিটিসিএ) বৃহত্তর ঢাকার জন্য পাঁচটি ম্যাস র‌্যাপিড ট্রানজিটের (এমআরটি) বাস্তবায়ন করছে। এরই ধারাবাহিকতায় উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত ২০ কিলোমিটার মেট্রোরেল সিস্টেম চালু হবে। এই প্রকল্পের নাম দেওয়া হয়েছে এমআরটি লাইন-৬।

এমআরটি লাইন-৬ রুটে মোট ১৬টি স্টেশন নির্মাণ করা হবে। মেট্রোরেলের প্রথম স্টেশন হবে উত্তরা নর্থ, তারপর যথাক্রমে উত্তরা সেন্টার, উত্তরা দক্ষিণ, পল্লবী, মিরপুর-১১, মিরপুর-১০, কাজীপাড়া, শেওড়াপাড়া, আগারগাঁও, বিজয় সরণি, ফার্মগেট, কারওয়ান বাজার, শাহবাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, সচিবালয় হয়ে মতিঝিল পর্যন্ত এই ট্রেন চলাচল করবে। মেট্রোরেলের স্টেশনগুলো হবে উঁচু (এলিভেটেড)। এর টিকিট কাউন্টার ও অন্যান্য সুবিধা থাকবে দোতলায়। ট্রেনের প্লাটফর্ম থাকবে তিনতলায়। সব স্টেশনে থাকবে লিফট, চলন্ত সিঁড়ি, সার্বক্ষণিক সিসিটিভি ক্যামেরা। প্রবেশপথ থেকে স্বয়ংক্রিয় প্রক্রিয়ায় টিকিট সংগ্রহ করা যাবে।

র‌্যাপিড পাস ব্যবহার করে যাত্রীরা নির্বিঘ্নে মেট্রোরেলে যাতায়াত করতে পারবেন। যাত্রী-নিরাপত্তা নিশ্চিতে স্টেশনের প্লাটফর্মে নিরাপত্তা বেষ্টনী বসানো হবে। পরিবেশবান্ধব মেট্রোরেলের কোচগুলো হবে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত। থাকবে সুবিন্যস্ত আসনব্যবস্থা। রাখা হবে যাত্রা-সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় তথ্যসংবলিত ডিসপ্লে প্যানেল। হুইলচেয়ার ব্যবহারকারী যাত্রীদের জন্য প্রতিটি ট্রেনের কোচগুলোতে থাকবে নির্ধারিত স্থান। নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করতে মেট্রোরেলের থাকবে নিজস্ব বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যবস্থা।

সড়কের মাঝ বরাবর ভূমি থেকে প্রায় ১৩ মিটার ওপর দিয়ে নির্মিত এলিভেটেড মেট্রোরেল চলাচল করবে। এর কম্পন নিয়ন্ত্রণের জন্য থাকবে বিশেষ ব্যবস্থা। শব্দ নিয়ন্ত্রণের জন্য শব্দ নিরোধক দেয়াল স্থাপন করা হবে। এসব উদ্যোগ রুটে থাকা ঐতিহাসিক ও গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনাগুলোকে সম্ভাব্য সব ধরনের বিরূপ প্রভাব থেকে সুরক্ষা দেবে। মেট্রোরেল অপারেশন কন্ট্রোল সেন্টার থেকে প্রতিটি ট্রেনকে নিয়ন্ত্রণ করা হবে। তারপরও চালক থাকবে। একটি ট্রেনের সঙ্গে আরেকটির কখনো মুখোমুখি সংঘর্ষ হবে না। সামনের ট্রেনটি থেমে গেলে পেছনেরগুলো অটোমেটিক বন্ধ হয়ে যাবে। এমআরটি লাইন-৬ এর কাজের পাশাপাশি এমআরটি লাইন-৫ বাস্তবায়িত হবে। এর দৈর্ঘ্য ১৯ দশমিক ছয় কিলোমিটার। রুট হচ্ছেঃ- হেমায়েতপুর-গাবতলী-টেকনিক্যাল-মিরপুর ১-মিরপুর ১০-মিরপুর ১৪-কচুক্ষেত-বনানী -গুলশান ২-নতুন বাজার-ভাটারা। হেমায়েতপুর-ভাটারা এই রুট ২০২৭ সালের মধ্যে আন্ডারগ্রাউন্ড ও এলিভেটেড সমন্বয়ে ১৯.৬০ কিলোমিটার দীর্ঘ মেট্রোরেল নির্মাণ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এর প্রস্তাবিত স্টেশন হচ্ছে: হেমায়েতপুর, বালিয়ারপুর, মধুমতি, আমিনবাজার, গাবতলী, দারুসসালাম, মিরপুর-১, মিরপুর-১০, মিরপুর-১৪, কচুক্ষেত, বনানী, গুলশান-২, নতুন হবাজার, ভাটারা। এলিভেটেড সেকশনঃ হেমায়েতপুর হতে আমিনবাজার এবং নতুন বাজার হতে ভাটারা পর্যন্ত (৬ কিলোমিটার) নগর এলাকাতে আমিনবাজার হতে নতুন বাজার পর্যন্ত মেট্রোরেল আন্ডারগ্রাউন্ড দিয়ে যাবে (১৩.৬ কিলোমিটার)।

এমআরটি লাইন-২ নতুন বাজার, যমুনা ফিউচার পার্ক, বসুন্ধরা, পুলিশ অফিসার্স, হাউজিং সোসাইটি, মাস্তুল, পূর্বাচল পশ্চিম, পূর্বাচল সেন্টার থেকে পূর্বাচল ডিপো পর্যন্ত যাবে। এ লাইনের মোট দৈর্ঘ্য হলো ১০.২০ কিলোমিটার এবং সম্পূর্ণ অংশ এলিভেটেড। মোট স্টেশন সংখ্যা ৯টি এবং এর মধ্যে ৭টি হবে এলিভেটেড।

এমআরটি লাইন-১ঃ বিমানবন্দর রুটে অর্থাৎ বিমানবন্দর টার্মিনাল ৩-খিলক্ষেত-যমুনা ফিউচার পার্ক, নতুন বাজার, উত্তরবাড্ডা, হাতিরঝিল, রাজারবাগ হয়ে কমলাপুর যাবে। এর লাইনের দৈর্ঘ্য হবে ১৬.৪০ কিলোমিটার এবং সম্পূর্ণ অংশ আন্ডারগ্রাউন্ড। মোট স্টেশনের সংখ্যা ১২টি।

 

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ সরদার মোঃ শাহীন,
বার্তা সম্পাদকঃ ফোয়ারা ইয়াছমিন,
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ আবু মুসা,
সহঃ সম্পাদকঃ মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিসঃ ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২,
উত্তরা, ঢাকা,
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com