লতিফ সিদ্দিকীর চমক!

প্রকাশের সময় : 2018-12-19 10:55:08 | প্রকাশক : Admin
�লতিফ সিদ্দিকীর চমক!

অসীম সাহাঃ লতিফ সিদ্দিকী, কাদের সিদ্দিকী, মুরাদ সিদ্দিকী ও আজাদ সিদ্দিকী। টাঙ্গাইলের সিদ্দিকী পরিবারের এই চার সন্তানকে সারা দেশের মানুষ চেনে। তর্কে, বিতর্কে, নিন্দা ও প্রশংসায় এই পরিবারের সদস্যদের নাম কোনো না কোনোভাবে জড়িয়ে থাকেই। লতিফ সিদ্দিকী এবং কাদের সিদ্দিকী জাতীয় পর্যায়ে যতোটা পরিচিত, বাকি দুভাই অতোটা না হলেও তদের কর্মকান্ডের জন্য তারা দুজনই টাঙ্গাইলে একনামে পরিচিত।

আর এবার একই আসন থেকে ৩ ভাই মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করে নির্বাচনে অংশগ্রহণের ঘোষণা দেয়াতে চারজনই এখন আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে। এর মধ্যে প্রবল বিতর্ক সৃষ্টি করে কাদের সিদ্দিকী বিএনপি-প্রভাবিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে যোগ দিয়ে ‘ধানের শীষ’ মার্কা নিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণের ঘোষণা দেয়াতে বাংলাদেশের প্রগতিশীল মানুষ তাকে এখন অনেকটা বাঁকা চোখেই দেখছে!

কিন্তু বিস্ময়ের বিষয় হলেন লতিফ সিদ্দিকী। মন্ত্রিত্ব এবং দলের সাধারণ সদস্যপদ থেকে বহিষ্কার করার পরও তিনি বঙ্গবন্ধুকন্যা কিংবা আওয়ামী লীগ সম্পর্কে কোথাও ন্যূনতম নেতিবাচক কথাও উচ্চারণ করেননি। তিনি একেবারেই নিজেকে গুটিয়ে নিয়ে অনেক অসুস্থ অবস্থায় নিরবে-নিভৃতে জীবন অতিবাহিত করেছেন। নিজের ভাই বা অন্য ‘ডিগবাজি-নেতাদের’ মতো অন্য কোনো দলের উচ্ছিষ্ট ভোগ করার জন্য লকলকে জিভ বাড়িয়ে এগিয়ে যাননি।

বরং এবারের নির্বাচনে টাঙ্গাইল-৪ আসন থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে অংশগ্রহণের ইচ্ছে ব্যক্ত করেছেন। কিন্তু তিনি সকলকে চমকে দিয়ে “আমার ভাই কাদের সিদ্দিকী জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে যোগদান করার জন্য আমাকে চাপ প্রয়োগ করেন। এই ঐক্যফ্রণ্টের নেতাদের দেশবাসী চেনেন। ঐক্যফ্রন্টের বিএনপি রাষ্ট্রক্ষমতায় থেকে কী করেছে, তা সবার জানা। তাদের দ্বারা মানুষের কোনো উপকার হবে না। আমি নির্বাচনে এসেছি ঐক্যফ্রন্টের বিরুদ্ধে, বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারী বেনিফিসিয়ারিদের বিরুদ্ধে, অত্যাচারী-শোষকদের বিরুদ্ধে এবং স্বাধীনতার পরাজিত শক্তির বিরুদ্ধে।” বলে যে সাহসী উচ্চারণ করেছেন, আমরা ভেবেছিলাম, তা আমরা শুনতে পাবো লতিফ সিদ্দিকীর ভাই কাদের সিদ্দিকী বীরউত্তমের কণ্ঠে।

অথচ তিনি তা না করে ‘ধানের শীষের গামছা’ গলায় দিয়ে এখন তার ভাইয়ের আদর্শেরই বিরুদ্ধে বঙ্গবন্ধুর রক্তের সঙ্গে বেঈমানি করে শুধু শেখ হাসিনাকে ক্ষমতা থেকে নামানোর জন্য প্রতিহিংসাপরায়ণ হয়ে এমনকি নিজে ব্যক্তিগত শত্র“র সঙ্গেও গলাগলি করে নাচছেন! আর সেখানে তারই ভাই লতিফ সিদ্দিকী আওয়ামী লীগের কাছ থেকে সরাসরি অপমানিত হয়েও, আদর্শ থেকে বিচ্যুত না হয়ে নির্বাচনে জয়লাভ করে শেখ হাসিনাকেই আসনটি উপহার দেবেন বলে ঘোষণা দিয়েছেন!

এ এক বিস্ময়কর চমক! এ না হলে বঙ্গবন্ধুর সৈনিক? তিনি এত কিছুর পরেও বঙ্গবন্ধুর আদর্শ থেকে সরে যাননি। যারা মনোনয়ন না পেয়ে কিংবা হালুয়া-রুটির ভাগ না পেয়ে ‘পিতাবদল’ করতে পারেন, তাদেরকে মানুষ্যসন্তান বলে মেনে নিতে যে কারোরই দ্বিধা হবে। এর আগেও বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর যারা আওয়ামী লীগ ছেড়ে চলে গিয়েছিলেন, তারা এখন কোথায়? ইতিহাসের দূরবিনের একবারে শেষপ্রান্তেও তাদের কোথাও খুঁজে পাওয়া যাবে না।

আসলে ইতিহাস কোনো বেঈমানকে বীরের আসনে তো দূরের কথা, এমনকি ইতিহাসের কোনো কিনারায়ও ঠাঁই দেয় না। মীরজাফর, খোন্দকার মোশতাকরা ইতিহাসের ঘৃণ্য খলনায়ক হিসেবেই বিবেচিত হয়। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের রক্তের সঙ্গে বেঈমানি করে যারা বিশ্বাসঘাতকদের সঙ্গে হাত মিলিয়েছেন, ইতিহাসের অন্ধকার গর্ভে তাদের জন্য স্থান নির্ধারিত হয়ে আছে। আর সৈয়দ নজরুল, তাজউদ্দীন, কামারুজ্জামান ও মনুসর আলী এবং মীরমদন, মোহনলাল কিংবা কর্নেল জামিলদের জন্য নির্ধারিত হয়ে আছে মহানায়কের পাশের ঘরের উজ্জ্বলতম স্থান, মূর্খদের যদি সে-ইতিহাস জানা থাকতো, তা হলে তারা কিছুতেই এই বেঈমানি করতে পারতেন না।

 

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ সরদার মোঃ শাহীন,
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ রফিকুল ইসলাম সুজন,
বার্তা সম্পাদকঃ ফোয়ারা ইয়াছমিন,
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ আবু মুসা,
সহঃ সম্পাদকঃ মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিসঃ ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২,
উত্তরা, ঢাকা,
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com