৬৫০ গ্রামের শিশু!!

প্রকাশের সময় : 2019-01-03 20:35:18 | প্রকাশক : Admin
৬৫০ গ্রামের শিশু!!

সিমেক ডেস্কঃ ভারতে সদ্য জন্ম নেয়া একটি শিশুর ওজন হয় সাধারণত আড়াই থেকে তিন কেজি। তবে দেশটির তেলেঙ্গানা রাজ্যে সদ্য জন্ম নেয়া ঋষিতার ওজন ছিল মাত্র ৬৫০ গ্রাম। মনে হয়, ঠিক যেন একটি মোবাইল ফোনকে হাতে তুলে ধরা হয়েছে। বাঁচার আশা প্রায় ছিলই না। তবে চিকিৎসক এবং নার্সদের নিরন্তর চেষ্টায় শেষপর্যন্ত সুস্থ শরীরে মায়ের কোলে ফিরে যেতে পেরেছে শিশুটি।

তেলেঙ্গানার নালগোন্ডার একটি সরকারি হাসপাতালে ঋষিতাকে নিয়ে গিয়েছিলেন দরিদ্র মা-বাবা। একে ঋষিতা জন্মেছিল নির্দিষ্ট সময়ের তিন মাস আগে, তার ওপর তার ওজন ছিল আধা কেজির সামান্য কিছু বেশি। জেলা হাসপাতালের চিকিৎসক দমেরা ইদাইয়ার বলেন, ‘ঋষিতার ওজন আমার মোবাইল ফোনের ওজনেরই সমান ছিল।’ সেকারণে প্রথমে ঋষিতার চিকিৎসা করতে রাজি হননি তিনি। পরে ঋষিতা এবং তার বাবা-মায়ের আর্থিক অবস্থার কথা ভেবে তিনি মত বদলান।

ইদাইয়া বলেন, ‘যেদিন প্রথম ও ছোট্ট আঙুল দিয়ে আমার আঙুল জড়িয়ে ধরেছিল, সেদিনই বুঝেছিলাম লড়াকু মেয়ে।’ লড়াইয়ে অবশ্য জিতেছে ছোট্ট ঋষিতা। সঙ্গে চিকিৎসক এবং হাসপাতালের নার্সরাও। ঋষিতার ওজন এখন প্রায় আড়াই কিলোগ্রাম। সে আর পাঁচটা শিশুর মতোই সুস্থ এবং স্বাভাবিক।

খুদে ঋষিতার বেঁচে ওঠাটা অবশ্য তার পরিবারের লোকজনের কাছে অত্যাশ্চর্য ঘটনা। ঋষিতার মা মমতা ভাবতেও পারেননি মেয়েকে ফিরে পাবেন। ইদাইয়া তাকে বারবার বুঝিয়ে মনের জোর ফেরান। মায়ের কথায়, ‘ডাক্তারেরা আমাকে বারবার বলেছিলেন, আইনস্টাইন, অম্বেদকরের মতো বড় বড় মানুষ নির্দিষ্ট সময়ের আগে জন্মেছিলেন। আমার মেয়েও কি একদিন ওদের মতো হবে?’

 

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ সরদার মোঃ শাহীন,
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ রফিকুল ইসলাম সুজন,
বার্তা সম্পাদকঃ ফোয়ারা ইয়াছমিন,
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ আবু মুসা,
সহঃ সম্পাদকঃ মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিসঃ ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২,
উত্তরা, ঢাকা,
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com