আমার ভাষা; আমার দায়িত্ব

প্রকাশের সময় : 2019-01-31 12:37:00 | প্রকাশক : Admin
আমার ভাষা; আমার দায়িত্ব

মুহম্মদ জাফর ইকবালঃ ভারতবর্ষে অনেকগুলো ভাষা, বাংলাভাষা তাদের মাঝে একটি। আমাদের একটি মাত্র ভাষা, কাজেই বাংলা ভাষার গুরুত্ব আমাদের কাছে অনেক। অনুমান করা হয় পৃথিবীতে এখন প্রায় সাত হাজার ভাষা রয়েছে। অনেকেই হয়ত চিন্তাও করতে পারবে না যে, এই সাত হাজার ভাষা থেকে প্রতি দুই সপ্তাহে একটি করে ভাষা ‘মৃত্যুবরণ’ করছে। ভাষা কোন জীবন্ত প্রাণী নয় তাই তার জন্য মৃত্যুবরণ শব্দটা ব্যবহার করা যায় কী না, সেটা নিয়ে তর্ক করা যেতে পারে। কিন্তু যখন একটি ভাষায় আর একজন মানুষও কথা বলে না তখন ভাষাটির মৃত্যু হয়েছে বলা অযৌক্তিক কিছু নয়।

অনুমান করা হয় এই শতাব্দী শেষ হওয়ার আগেই পৃথিবীর অর্ধেক ভাষা মৃত্যুবরণ করবে। একটা ভাষা যখন মৃত্যুবরণ করে তখন তার সঙ্গে বিশাল একটা ইতিহাসের মৃত্যু হয়, অনেক বড় একটা কালচারের মৃত্যু হয়। ইতিহাস সাক্ষী দেবে একটা জাতি যখন আরেকটা জাতিকে পদানত করতে চায় তখন প্রথমেই তারা তাদের ভাষাটির গলা টিপে ধরে।

এক সময় পৃথিবীর ভয়ঙ্কর একটি দেশ ছিল সাউথ আফ্রিকা। সেই দেশের স্কুলের কৃষ্ণাঙ্গ বাচ্চাদের ওপর জোর করে আফ্রিকানা ভাষা চাপিয়ে দেয়ার চেষ্টা করেছিল। ১৯৭৬ সালের ১৬ জুন প্রায় ২০ হাজার কৃষ্ণাঙ্গ স্কুলের বাচ্চা প্রতিবাদ করে রাস্তায় নেমে এসেছিল। শ্বেতাঙ্গ পুলিশ সেদিন গুলি করে একজন নয় দুইজন নয় প্রায় সাত শ’ স্কুলের বাচ্চাকে মেরে ফেলেছিল। ভাষার জন্য পৃথিবীর ইতিহাসে এর চাইতে বেশি প্রাণ দেয়ার উদাহরণ আছে বলে আমার জানা নেই।

আমাদের ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনের কথা এখন শুধু আমরা নই, সারা পৃথিবী জানে। ২১ ফেব্রুয়ারি এখন আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। শুধু তাই নয়, আমাদের এই দেশটির জন্মের ইতিহাসটি বায়ান্নর ভাষা আন্দোলনের সঙ্গে একই সূত্রে গাঁথা।

কিন্তু অনেকেই জানে না বাংলা ভাষার জন্য আমাদের এই অঞ্চলে আরও একবার রক্ত ঝরেছিল। অসমের একটা বড় অংশ বাংলা ভাষায় কথা বলত, কিন্তু তারপরও শুধু অহমিয়া ভাষাকে অসমের দাফতরিক ভাষা হিসেবে সিদ্ধান্ত নেয়ার পর সেখানকার বাঙালীরা তাদের ভাষার জন্য আন্দোলন শুরু করেছিল। সেই আন্দোলনকে থামানোর জন্য পুলিশ গুলি করে ১৯৬১ সালের ১৯ মে এগারোজনকে হত্যা করে। তার মাঝে একজন ছিল ১৬ বছরের কিশোরী কমলা, মাত্র একদিন আগে সে তার ম্যাট্রিকুলেশন পরীক্ষা শেষ করেছিল। অসমের বরাক উপত্যকার সেই রক্ত শেষ পর্যন্ত বৃথা যায়নি, সেখানকার তিনটি জেলায় বাংলাও এখন দাফতরিক ভাষা হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে।

এই মুহূর্তে বাংলাদেশ এবং ভারতবর্ষে বিশ কোটি থেকে বেশি মানুষ বাংলা ভাষায় কথা বলে। এটি বাংলাদেশের জাতীয় ভাষা, ভারতবর্ষ এবং সিওরা লিয়নের দাফতরিক ভাষা। বাংলাদেশ এবং ভারতবর্ষ এই দুটি দেশের জাতীয় সঙ্গীত বাংলা ভাষায়। শুধু তাই নয়, বাংলা ভাষায় কথা বলে এ রকম প্রায় এক কোটি মানুষ পৃথিবীর নানা দেশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে, তার পরেও বাংলাদেশ প্রতাপের দিক দিয়ে এত পিছিয়ে আছে কেন?

তার কারণ বাঙালীরা কখনও অন্য দেশকে কলোনি করে জোর করে নিজ ভাষাকে অন্য ভাষার ওপর চাপিয়ে দেয়নি, কখনও বিশাল অর্থনৈতিকভাবে শক্তিশালী দেশ ছিল না যে অন্য ভাষার মানুষ আগ্রহ নিয়ে এই ভাষা শিখবে। শুধু তাই নয়, তথ্যপ্রযুক্তির এই যুগে যখন ভাষাকে কম্পিউটারে ব্যবহার করার সময় এসেছে তখন আমরা দেখছি বাংলা ভাষাকে তথ্যপ্রযুক্তি দিয়ে সমৃদ্ধ করার ব্যাপারে অনেক পিছিয়ে আছি!

আমরা নিজেরা নিশ্চয়ই লক্ষ্য করেছি বাংলা ভাষাকে তথ্যপ্রযুক্তির সঙ্গে সম্পৃক্ত করার ব্যাপারে আমাদের সে রকম আগ্রহ নেই, অপেক্ষা করে আছি পৃথিবীর বড় বড় প্রতিষ্ঠান কোন এক সময়ে আমাদের সমাধান করে দেবে এবং তখন সেই সমাধান ব্যবহার করে আমরা কৃতার্থ হয়ে যাব। কাজেই আমি ব্যক্তিগতভাবে খুবই আনন্দিত হয়েছিলাম যখন বাংলাদেশ সরকার বাংলা ভাষার উন্নয়ন সংক্রান্ত গবেষণার জন্য প্রায় একশ’ ষাট কোটি টাকার বরাদ্দ করেছে। যখন এই প্রজেক্টটি শেষ হবে তখন এক ধাক্কায় আমাদের হাতে বাংলা ভাষায় গবেষণা করার জন্যে অনেক মাল মসলা চলে আসার কথা।

যেহেতু ধীরে ধীরে পুরো পৃথিবীটা ছোট হয়ে আসছে আমাদের বাংলাদেশের মানুষকেও এখন আগে থেকে অনেক বেশি অন্তর্জাতিক হতে হয়। আমাদের লেখাপড়ার মাঝে তার ব্যবস্থা করে রাখা আছে, ছাত্রছাত্রীরা বাংলার সঙ্গে সঙ্গে প্রায় বারো বছর ইংরেজী পড়ে। এই বারো বছর ইংরেজী পড়া হলে খুবই স্বাভাবিকভাবে একজন ছাত্র বা ছাত্রীর ইংরেজীতে যথেষ্ট দক্ষ হওয়ার কথা।

কিন্তু যে কারণেই হোক আমাদের সব ছাত্রছাত্রী ইংরেজীতে যথেষ্ট দক্ষ হচ্ছে না। বাবা মায়েরা দুর্ভাবনায় পড়ছেন এবং অনেকেই মনে করছেন ইংরেজী মাধ্যমে লেখাপড়া করালেই হয়ত তার সমাধান! কিন্তু আমরা সবাই জানি মাতৃভাষায় লেখাপড়া করার কোন বিকল্প নেই। তাই আমরা যদি মাতৃভাষার দায়িত্বটি নিতে চাই স্কুল-কলেজে ঠিক করে ইংরেজী পড়াতে হবে। যদি স্কুল-কলেজে লেখাপড়া করে ছেলেমেয়েরা যথেষ্ট ইংরেজী শিখে যায় তাহলে ইংরেজী মাধ্যমে লেখাপড়া করার জন্য ছুটে যাবে না।

কলকাতার ভাষা সংক্রান্ত কনফারেন্সে উড়িষ্যার একজন ভাষাবিদের সঙ্গে আমার কথা হচ্ছিল। তার কাছে আমি জানতে পারলাম ভারতবর্ষে প্রত্যেকটি শিশুর তিনটি ভাষা শেখার কথা, একটি হিন্দী, একটি ইংরেজী এবং অন্যটি নিজেদের মাতৃভাষা। একজন শিক্ষার্থীকে একসঙ্গে তিনটি ভাষা শিখে বড় হওয়া নিশ্চয়ই খুব সহজ নয়। ভারতবর্ষের তুলনায় আমরা অনেক সুবিধাজনক জায়গায় আছি। মাতৃভাষার পাশাপাশি আমাদের বেশিরভাগ ছেলেমেয়ের মাত্র একটি ভাষা শিখতে হয়। সেটি হচ্ছে ইংরেজী। সেই ইংরেজীটুকু যদি ভাল করে শেখানো হয় আমার ধারণা আমাদের মাতৃভাষা অনেক বেশি নিরাপদ থাকবে!

 

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ সরদার মোঃ শাহীন,
বার্তা সম্পাদকঃ ফোয়ারা ইয়াছমিন,
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ আবু মুসা,
সহঃ সম্পাদকঃ মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিসঃ ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২,
উত্তরা, ঢাকা,
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com