জাতীয় বীর আবদুল কুদ্দুস মাখন

প্রকাশের সময় : 2019-04-25 16:54:22 | প্রকাশক : Admin
জাতীয় বীর আবদুল কুদ্দুস মাখন

মিজানুর রহমানঃ স্বাধীন বাংলা কেন্দ্রীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের সদস্য, মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, ডাকসুর সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সংসদ সদস্য জাতীয় বীর আবদুল কুদ্দুস মাখন ১৯৪৭ সালের ১লা জুলাই ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের মৌড়াইল গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। সাত ভাই ও দুই বোনের মধ্যে জনাব মাখন ছিলেন তৃতীয়।

তিনি একজন অত্যন্ত মেধাবী ছাত্র ছিলেন। ১৯৬২ সালে তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়া নিয়াজ মোহাম্মদ হাই স্কুল থেকে মানবিক শাখায় ১ম বিভাগ পেয়ে কৃতিত্বের সাথে মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। স্কুল জীবনেই তাঁর ছাত্র রাজনীতির গোড়াপত্তন। ১৯৬২ সালের শিক্ষা আন্দোলনে তৎকালীন ব্রাহ্মণবাড়িয়া মহকুমার স্কুল ছাত্র/ছাত্রীদের সংগঠিত করে ছাত্র আন্দোলনে এক উল্লে−খযোগ্য ভূমিকা পালন করেন। ব্রাহ্মণবাড়িয়া কলেজ থেকে ১৯৬৪ সালে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজ বিজ্ঞান বিভাগে অনার্স ক্লাশে ভর্তি হন। অত্যন্ত অল্প সময়ের মধ্যে তিনি গোটা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সমাজে পরিচিত হয়ে উঠেন এবং ছাত্রলীগের নেতৃত্বে আসীন হন।

বঙ্গবন্ধুর ঘোষিত ছয় দফা আন্দোলনে তিনি সক্রিয় ভূমিকা রেখে ছাত্র সমাজকে ঐক্যবদ্ধ করে ছাত্র আন্দোলনকে গতিশীল করেন। তিনি ১৯৬৬-৬৭ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফজলুল হক হল ছাত্র সংসদের সহ সাধারণ সম্পাদক এবং ১৯৬৮-৬৯ সালে ফজলুল হক হল ছাত্র সংসদের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন ছাত্র নেতা হিসাবে ৬৯’র গণঅভ্যুত্থানে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। ১৯৬৯ সালে এম এ পাশ করে একই বৎসরে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন বিভাগে ভর্তি হন। ১৯৭০ সালে তিনি সর্ব প্রথম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের প্রত্যক্ষ ভোটে ডাকসুর সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন এবং তৎকালীন ডাকসুর নেতৃত্বে গোটা ছাত্র সমাজকে ছাত্রলীগের পতাকাতলে ঐক্যবদ্ধ করে প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে অসামান্য গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন।

১৯৭১ সালে ১লা মার্চ গঠিত স্বাধীন বাংলা কেন্দ্রীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের চার সদস্যের অন্যতম সদস্য জনাব আবদুল কুদ্দুস মাখন। চার খলিফা বলে খ্যাত স্বাধীন বাংলা কেন্দ্রীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের অপর তিন সদস্য হলেন জনাব নূরে আলম সিদ্দিকী, জনাব শাহজাহান সিরাজ ও জনাব আ স ম আবদুর রব। স্বাধীন বাংলা কেন্দ্রীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ কর্তৃক ২রা মার্চ ১৯৭১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ভবনের সম্মুখে সর্ব প্রথম স্বাধীন বাংলার পতাকা উত্তোলন করা হয়।

জনাব মাখন স্বাধীন বাংলা কেন্দ্রীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের সদস্য হিসাবে স্বাধীন বাংলা কেন্দ্রীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ পরিচালিত সকল আন্দোলন ও সংগ্রামে ছাত্র-জনতাকে সুসংগঠিত করার জন্য  উল্লে−খযোগ্য ভূমিকা পালন করেন। ৭১’ এর মুক্তিযুদ্ধে তিনি সক্রিয় অংশগ্রহণের মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধাদের সংগঠিত করে মহান মুক্তিযুদ্ধে বলিষ্ঠ নেতৃত্ব প্রদান করেন। তিনি পূর্বাঞ্চলীয় এলাকার (চট্টগ্রাম, ঢাকা, কুমিল্লা, নোয়াখালী এবং ফরিদপুরের একাংশ নিয়ে গঠিত) সকল শ্রেণীর মুক্তিযোদ্ধাদের রিক্রুটমেন্ট, ট্রেনিং ও অস্ত্র সরবরাহের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে নিয়োজিত ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে পূর্বাঞ্চলীয় লিবারেশন কাউন্সিলের ছাত্র প্রতিনিধি হিসাবেও জনাব মাখন বিশেষ দায়িত্ব পালন করেন। স্বাধীনতা যুদ্ধের একজন মহান সংগঠক হিসাবে জনাব মাখনের এই ঐতিহাসিক অবদান দেশ ও জাতির নিকট চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে।

দেশ স্বাধীন হবার পর ১৯৭২ সালে ডাকসু’র সহ-সভাপতি জনাব আ স ম আবদুর রব ও ডাকসু’র সাধারণ সম্পাদক জনাব আবদুল কুদ্দুস মাখন এর নেতৃত্বে ডাকসুর পক্ষ থেকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে ডাকসুর আজীবন সদস্যপদ প্রদান করা হয়। ১৯৭২ সালের পর বাংলাদেশ ছাত্রলীগকে সুসংগঠিত করার কাজে জনাব মাখন বলিষ্ঠ নেতৃত্ব প্রদান করেন। জনাব মাখন ১৯৭২ সালে ভারতের কলকাতায় অনুষ্ঠিত ভারত বাংলাদেশ মৈত্রী মেলায় বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করেন।

তিনি ১৯৭৩ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা প্রেসিডিয়াম সদস্য ছিলেন। ১৯৭৩ সালে স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জনাব মাখন সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এবং বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশ পুনর্গঠনে নিরলস পরিশ্রম করেন। তিনি ১৯৭৪ সালে বার্লিনে আন্তর্জাতিক বিশ্ব যুব উৎসবে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করেন।

১৯৭৫ সালে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে নির্মমভাবে স্বপরিবারে হত্যা করার পর ২৩শে আগষ্ট রাতে অন্যান্য জাতীয় নেতৃবৃন্দের সংগে জনাব মাখনকে গ্রেফতার করা হয়। ১৯৭৮ সালের ১২ নভেম্বর জেল থেকে মুক্তি লাভ করে তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন এবং স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ জাতীয় পরিষদের সদস্য হিসাবে জাতীয় রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন। তিনি ছিলেন জনগণের কল্যাণে নিবেদিত প্রাণ।

জনাব মাখন মাত্র ৪৭ বৎসর বয়সে হেপাটাইটিস বি ভাইরাস জনিত জন্ডিস রোগে আক্রান্ত হয়ে লিভার সিরোসিসে ১০ ফেব্রুয়ারি ১৯৯৪ খ্রিঃ তারিখে আমেরিকার ফ্লোরিডায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন। তাঁর মৃত্যু সংবাদ রেডিও, টিভিতে প্রচারিত এবং সংবাদ পত্রে প্রকাশিত হবার পর গোটা দেশে শোকের ছায়া নেমে আসে। তৎকালীন সময়ে কার্যরত জাতীয় সংসদ অধিবেশন তাঁর মৃত্যুর সংবাদ প্রাপ্তির সাথে সাথে মুলতবি ঘোষণা করা হয়। ১৪ ফেব্র“য়ারি ১৯৯৪ খ্রিঃ তারিখে তাঁর লাশ  ঢাকা বিমান বন্দরে পৌছলে জাতীয় নেতৃবৃন্দ, অসংখ্য গুণগ্রাহী ও অশ্র“সিক্ত নয়নে লাশ গ্রহণ করেন। অতঃপর তাঁর লাশ তাঁর নিজ বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরে হেলিকপ্টার যোগে নেয়া হলে সেখানে এক স্মরণকালের সর্ববৃহৎ শোক সমাবেশ হয়।

গোটা ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় এক হৃদয় বিদারক মর্মস্পর্শী দৃশ্যের অবতারণা হয় এবং সেখানে তাঁর জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। পরদিন ১৫ ফেব্র“য়ারি ঢাকা জাতীয় ঈদগাহ্ ময়দানে বিশাল সমাবেশে জানাজা অনুষ্ঠিত হবার পর মিরপুর জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা গোরস্থানে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় জাতীয় বীর আবদুল কুদ্দুস মাখনকে দাফন করা হয়। বীর মুক্তিযোদ্ধারাও তাঁর দাফনের পূর্বে তাঁকে বিশেষ মর্যাদায় সম্মান জানিয়ে সম্মিলিতভাবে স্যালুট প্রদান করে।

জনাব আবদুল কুদ্দুস মাখন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মাটি ও মানুষের নেতা ছিলেন। জনাব মাখন একজন জীবন সংগ্রামী মানুষ। কোন প্রকার লোভ-লালসা তাঁকে তাঁর আদর্শ বা নীতি থেকে কখনো বিচ্যুত করতে পারেনি। তাঁর রাজনীতি ছিল জনগণের কল্যাণে কাজ করা। দেশের সেবা করা। দেশ ও জাতির কল্যাণে তিনি আজীবন সংগ্রাম করে গিয়েছেন। তিনি এ দেশের সব শ্রেণী পেশার মানুষের একজন অতি প্রিয়জন ব্যক্তি। তিনি এ দেশের জনগণের অধিকার আদায়ের আন্দোলন ও সংগ্রামে এবং সর্বোপরি, মহান মুক্তিযুদ্ধে ছাত্র-সমাজ ও জাতিকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। স্বাধীন বাংলা কেন্দ্রীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের একজন অন্যতম নেতা হিসাবে তাঁর অবদান দেশ ও জাতি শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করে। এ দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা যতদিন থাকবে ততদিনই জাতীয় বীর আবদুল কুদ্দুস মাখনের নাম বাংলাদেশের ইতিহাসে এবং বাংলাদেশের মানুষের হৃদয়ে অমর, অক্ষয় ও অম্লান হয়ে থাকবে। জাতীয় বীর আবদুল কুদ্দুস মাখন আমাদের গর্ব, আমাদের অহংকার। আমরা তোমায় ভুলব না। -সাবেক সচিব, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার

 

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ সরদার মোঃ শাহীন,
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ রফিকুল ইসলাম সুজন,
বার্তা সম্পাদকঃ ফোয়ারা ইয়াছমিন,
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ আবু মুসা,
সহঃ সম্পাদকঃ মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিসঃ ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২,
উত্তরা, ঢাকা,
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com