বাংলাদেশী বিজ্ঞানীর সাফল্য

প্রকাশের সময় : 2019-06-26 20:37:15 | প্রকাশক : Administration
বাংলাদেশী বিজ্ঞানীর সাফল্য

ফজলুল কবিরঃ আসছে বর্ষাকাল। বৃষ্টি কম হোক আর বেশি হোক, বাংলাদেশের শহরাঞ্চলে বিশেষত জলাবদ্ধতাই এ মৌসুমের একমাত্র বাস্তবতা। আর বদ্ধ জল মানেই মশার উত্তম প্রজননক্ষেত্র, যা অবধারিতভাবেই নিয়ে আসে মশাবাহিত রোগের প্রকোপ। গত কয়েক বছরে বাংলাদেশে মশাবাহিত রোগের মধ্যে ডেঙ্গুর প্রকোপ ভয়াবহ মাত্রায় গিয়ে পৌঁছেছে। এখন পর্যন্ত ডেঙ্গু ভাইরাসকে (ডিইএনভি) প্রতিহত করতে পারে এমন কোনো ঔষধ আবিষ্কৃত হয়নি। তবে অচিরেই সে রকম ঔষধ ধরা দিতে পারে মানুষের হাতে, যা শুধু ডেঙ্গু নয়, এমন বহু ভাইরাসকে আক্ষরিক অর্থেই নখদন্তহীন করে দেবে। এমন একটি পথেরই সন্ধান দিয়েছেন বাংলাদেশি বিজ্ঞানী হেমায়েত উল্লাহ।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক হেমায়েত উল্লাহ বর্তমানে আমেরিকার হাওয়ার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের জীববিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক। সেখানেই একটি উদ্ভিজ্জ প্রোটিন নিয়ে কাজ করতে গিয়ে দেখা পান এমন এক পথের, যা শুধু ডেঙ্গু নয়, অনেক ভাইরাসজনিত রোগের ঔষধ তৈরির দিশা দিচ্ছে।

বিজ্ঞানী হেমায়েত উল্লাহর আবিষ্কৃত এ নতুন পথ এরই মধ্যে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করেছে। ১৪ মে এ সম্পর্কিত গবেষণা নিবন্ধটি অঙ্কোটার্গেট জার্নালের প্রচ্ছদ প্রতিবেদন হিসেবে প্রকাশিত হয়। প্রকাশের পর থেকে বিভিন্ন গবেষণা পত্রিকায় বিষয়টি বেশ গুরুত্বের সঙ্গে উঠে এসেছে। মার্কিন সংবাদমাধ্যম (টিভি চ্যানেল) ফক্স ফাইভের পক্ষ থেকে নেওয়া হয়েছে তাঁর সাক্ষাৎকার।

বিষয়টি নিয়ে ডঃ হেমায়েত উল্লাহর সঙ্গে কথা হলো ইমেইলের মাধ্যমে। তাঁর ভাষায়, ‘গবেষণাগারে আমরা একটি উদ্ভিজ্জ প্রোটিন নিয়ে কাজ করছিলাম। পরে আবিষ্কার করি, এই একই প্রোটিন বহু ক্ষতিকর ভাইরাস পোষকদেহে নিজের বিস্তৃতির জন্য ব্যবহার করে। মানুষের দেহেও এ প্রোটিন রয়েছে, যাকে ব্যবহার করে বহু ভাইরাস। বিষয়টি বোঝার পর আমরা এই প্রোটিনের কার্যক্রম প্রতিহত করতে একটি ঔষধ তৈরি করি, যাতে এটি ব্যবহার করে সংশ্লিষ্ট ভাইরাস বংশবৃদ্ধি করতে না পারে। গবেষণার প্রথম ধাপে আমরা সফল হয়েছি।’

ভাইরাসজনিত রোগের প্রচলিত ঔষধের একটি বড় সংকট হচ্ছে, এগুলো কিছু কিছু পোষকদেহে অকার্যকর হয়ে যায়। বিষয়টি অনেকটা শত্র“র শক্তি বিচারে নিজের শক্তি বৃদ্ধির মতো। ভাইরাস প্রতিরোধের জন্য কোনো একটি ঔষধ তৈরির জন্য মানুষ যেমন ভাইরাসটি পর্যবেক্ষণ করে, তেমনি ভাইরাসটিও বিশ্লে−ষণ করে সংশ্লি−ষ্ট ঔষধের কাজের ধরন। নিজেকে অভিযোজিত করে ঔষধ-প্রতিরোধী হয়ে ওঠে ভাইরাসটি। ফলে অনেক সময়ই দেখা যায়, একসময় কার্যকর বিবেচিত হলেও পরে একই ভাইরাস দমনে ঔষধটি আর কাজ করছে না। এখানেই বিরাট ব্যতিক্রম হেমায়েত উল্ল−াহর নেতৃত্বে পরিচালিত গবেষণালব্ধ পথটি। কারণ, এটি ভাইরাসকে নিয়ে নয়, পোষকদেহের সেই বিভীষণকে নিয়ে কাজ করে, যা ঘরে বসেই ঘর ভাঙার কাজ করে।

হেমায়েত উল্লাহ ও তাঁর দলের এ গবেষণালব্ধ ফলাফলকে চিকিৎসাবিজ্ঞানের জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করছেন বিজ্ঞানীরা। হাওয়ার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভোস্ট ও প্রধান শিক্ষা কর্মকর্তা অ্যান্থনি কি উথের ভাষায়, ‘ডঃ (হেমায়েত) উল্লাহ ও তাঁর দল ভাইরাসরোধী ঔষধ তৈরির ক্ষেত্রে একটি বড় অগ্রগতি নিয়ে এসেছেন। বহু রোগের চিকিৎসায় এই পদ্ধতি কাজে লাগবে বলে আমরা আশা করছি।’

নিজের গবেষণা নিয়ে বেশ আশাবাদী হেমায়েত উল্লাহ। অন্য যেকোনো ভাইরাসরোধী ঔষধের চেয়ে এটি বেশি কার্যকর হবে বলে মনে করেন তিনি। তাঁর মতে, ‘ভাইরাসজনিত রোগের প্রচলিত ঔষধগুলো সাধারণত সংশ্লিষ্ট ভাইরাসটিকেই আক্রমণ করে। ফলে ভাইরাসটির পক্ষেও ওই ঔষধের সঙ্গে লড়াইয়ের শক্তি অর্জন করা সম্ভব হয়। কারণ, সে জানে ঔষধটি কী করে কাজ করে। কিন্তু আমাদের পদ্ধতিতে ঔষধটি কাজ করবে পোষকদেহের প্রোটিনকে নিয়ে। র‌্যাক-১ প্রোটিনের সঙ্গে ভাইরাসের যোগাযোগ বন্ধ করাই এর লক্ষ্য। ফলে ভাইরাসটির পক্ষে এ ঔষধের ক্রিয়াপদ্ধতি বোঝাটা প্রায় অসম্ভব।’

হেমায়েত উল্লাহ বলেন, ‘সবচেয়ে বড় বিষয় হলো এ পদ্ধতির প্রয়োগে একটি কার্যকর ঔষধ তৈরি সম্ভব হলে তা শুধু একটি ভাইরাস নয়, বরং অনেক ভাইরাসকেই প্রতিহত করতে পারবে। এখনো এটি প্রাথমিক ধাপে রয়েছে। কোনো প্রাণীর দেহে প্রয়োগের পরই এর কার্যকারিতা ভালোভাবে বোঝা যাবে। আগামী দু-তিন বছরের মধ্যেই একটি সফল ভাইরাসরোধী ঔষধ নিয়ে আসা সম্ভব হবে বলে আমরা আশাবাদী।’ ফজলুল কবির

 

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ সরদার মোঃ শাহীন,
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ রফিকুল ইসলাম সুজন,
বার্তা সম্পাদকঃ ফোয়ারা ইয়াছমিন,
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ আবু মুসা,
সহঃ সম্পাদকঃ মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিসঃ ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২,
উত্তরা, ঢাকা,
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com