রাজশাহী হাই-টেক পার্ক

প্রকাশের সময় : 2021-03-18 12:32:37 | প্রকাশক : Administration
রাজশাহী হাই-টেক পার্ক

সাইফ আহমাদ: রাজশাহী শহরের উপকণ্ঠে পদ্মাপারে ৩১ একর জায়গাজুড়ে গড়ে উঠছে এ অঞ্চলের তথ্যপ্রযুক্তি ভিত্তিক ইকোনমিক হাব বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব হাই-টেক পার্ক রাজশাহী। নগরীর বুলনপুর এলাকায় ২৮১ কোটি ১৯ লাখ টাকা ব্যয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সিলিকন ভ্যালির আদলে তৈরি করা হচ্ছে এ পার্কের অবকাঠামো।

ইতোমধ্যে ৬২ হাজার বর্গফুট আয়তনের পাঁচ তলা বিশিষ্ট শেখ কামাল আইটি ইনকিউবেটর কাম ট্রেনিং সেন্টার নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। যেখানে জায়গা পেয়েছে এ অঞ্চলের তরুণ উদ্যোক্তাদের ১০টি প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান। শিক্ষা নগরী রাজশাহীর নবীনগর মৌজায় ২০১৭ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব হাই-টেক পার্কের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন।

তরুণ প্রজন্মের জন্য কর্মসংস্থান সৃষ্টি করা ও নতুন তথ্যপ্রযুক্তি উদ্যোক্তাদের সুযোগ সৃষ্টি করে দেয়ার লক্ষ্যে পদ্মাপারে মনোরম পরিবেশে এ হাই-টেক পার্কটি গড়ে তোলা হচ্ছে। রাজশাহীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব হাই-টেক পার্কে গড়ে উঠেছে শেখ কামাল আইটি ইনকিউবেশন কাম ট্রেনিং সেন্টার। প্রায় ৩০ কোটি টাকা ব্যয়ে ৭২ হাজার বর্গফুট বিশিষ্ট এ ভবনের নির্মাণ কাজ শুরু হয় ২০১৭ সালের ১৮ জুলাই।

ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের তিন বছরের মধ্যে এ ইনকিউবেশন ভবনের নির্মাণ কাজ শেষ হয়। ইতোমধ্যেই সেখানে জায়গা পেয়েছে ১০টি প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান। যেভাবে একটি ডিমকে তা দিয়ে বাচ্চা বের করে সেই বাচ্চাটাকে নারিশ করে বড় করা হয়, ঠিক একইভাবে নতুন উদ্যোক্তাদের এখানে জায়গা দেয়া হবে এবং প্রশিক্ষণের মাধ্যমে ওয়ার্কফোর্স তৈরিতে সহযোগিতা করা হবে। যাতে তারা তাদের উদ্ভাবনী আইডিয়াগুলোর পরিস্ফুটন করতে পারে। এসব ছাড়াও কোনো উদ্যোক্তার যদি ব্যবসার জন্য অর্থনৈতিক সুবিধা প্রয়োজন হয়, সে ক্ষেত্রে তাদের ভেঞ্চার ক্যাপিটালের সঙ্গে যোগাযোগ করে সেই সুবিধা পেতেও সহযোগিতা করা হবে। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, রুয়েট, রাজশাহী পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট, রাজশাহী মেডিকেল কলেজসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে প্রায় লক্ষাধিক শিক্ষার্থী রয়েছে। তাদের কথা বিবেচনা করেই মূলত এ অঞ্চলে গড়ে তোলা হচ্ছে হাই-টেক পার্ক।

একটি বড় অংশজুড়ে নির্মিত হচ্ছে দুই লাখ বর্গফুটের ১০ তলাবিশিষ্ট জয় সিলিকন টাওয়ার। এখানে স্থান পাবে তরুণ প্রযুক্তি উদ্যোক্তাদের প্রতিষ্ঠান। বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষের তথ্যানুযায়ী ২০২১ সালের মধ্যে এ সিলিকন টাওয়ারের নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হবে। যেখানে ২ হাজার মানুষের কর্মসংস্থান হবে।

এখানে বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করার লক্ষ্যে রাস্তা ফোর লেইন করা হচ্ছে। এমনকি রাজশাহী বিমানবন্দরকে আন্তর্জাতিক মানের করার প্রস্তাবনাও দেয়া হয়েছে। এ অঞ্চলের তথ্যপ্রযুক্তি উদ্যোক্তাদের জন্য উন্মোচিত হবে নতুন দিগন্ত। দুই লাখ বর্গফুটের জয় সিলিকন টাওয়ারসহ ৭টি প্লটে বিভিন্ন বিনিয়োগকারীর অনুকূলে বরাদ্দ প্রদানের সংস্থান রয়েছে। - যুগান্তর

 

সম্পাদক ও প্রকাশক: সরদার মোঃ শাহীন
উপদেষ্টা সম্পাদক: রফিকুল ইসলাম সুজন
বার্তা সম্পাদক: ফোয়ারা ইয়াছমিন
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: আবু মুসা
সহ: সম্পাদক: মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিস: ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা।
বার্তা বিভাগ: বাড়ি # ৩৩, রোড # ১৫, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা।
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com