বাঘে-ছাগলে বন্ধুত্ব!

প্রকাশের সময় : 2021-09-08 11:27:05 | প্রকাশক : Administration
বাঘে-ছাগলে বন্ধুত্ব!

বাঘের সামনে ছাগল পড়লে রক্ষা নেই এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু যদি বিপরীত চরিত্রের এই দুই প্রজাতির প্রাণী একসঙ্গে ঘুমায়, একসঙ্গে ঘুরে বেড়ায় তাহলে বিশ্বাস করা কঠিনই বটে। অথচ এমনই এক ঘটনা ঘটেছে রাশিয়ার একটি চিড়িয়াখানায়।

বিবিসি অনলাইনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, মাস খানেক আগে রাশিয়ার একটি সাফারি পার্কে আমুর নামের একটি বাঘকে খাবার হিসেবে দেওয়া হয়েছিল একটি জ্যান্ত ছাগল। কিন্তু তিমুর নামের ছাগলকে না খেয়ে তার সঙ্গে বন্ধুত্ব পেতে বসেছে বাঘটি। এমনকি বন্ধু ছাগলের জন্য নিজের ঘুমানোর জায়গাটিও ছেড়ে দিয়েছে বাঘ আমুর।

চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ এখন এই বাঘ ও ছাগলকে একসঙ্গেই রাখছে। চিড়িয়াখানায় আসা দর্শনার্থীদের অনেকে হিংস্র পশু বাঘ আর নিরীহ ছাগলের বন্ধুত্বের ভক্ত হয়ে গেছেন। ওয়েবক্যামের মাধ্যমে দর্শনার্থীরা সরাসরি দেখছে এই বিরল বন্ধুত্বের দৈনিক কর্মকান্ড। এই দুই পশুর নামে ফেইসবুক, টুইটার ও ইনস্টাগ্রামে খোলা হয়েছে অ্যাকাউন্ট।

ওই চিড়িয়াখানার পরিচালক দিমিত্রি মেজেনস্তেভ জানান, প্রায় তিন বছর ধরে বাঘ আমুর এই চিড়িয়াখানায় আছে। সপ্তাহে দুই দিন তাকে ছাগল খেতে দিতে হতো। তিনি বলেন, “আমরা একদিন আমুরকে খেতে দিই ওই ছাগলটি। কিন্তু চার দিন পর দেখি বাঘটি তিমুরকে খায়নি। এটা খুবই বিস্ময়কর একটা ঘটনা।”

এখন চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ এই দুই বন্ধুকে আলাদা না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানান পরিচালক দিমিত্রি মেজেনস্তেভ। - সূত্র: অনলাইন

 

সম্পাদক ও প্রকাশক: সরদার মোঃ শাহীন
উপদেষ্টা সম্পাদক: রফিকুল ইসলাম সুজন
বার্তা সম্পাদক: ফোয়ারা ইয়াছমিন
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: আবু মুসা
সহ: সম্পাদক: মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিস: ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা।
বার্তা বিভাগ: বাড়ি # ৩৩, রোড # ১৫, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা।
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com