ডেঙ্গু রোগীর খাদ্য ব্যবস্থাপনা

প্রকাশের সময় : 2021-09-27 16:16:21 | প্রকাশক : Administration
ডেঙ্গু রোগীর খাদ্য ব্যবস্থাপনা

রাজধানী ঢাকায় সম্প্রতি ডেঙ্গু অনেকটাই প্রকট আকারে ছড়িয়ে পড়েছে। রোগী ও রোগীর পরিবারসহ সবাই ভয়েই বেশি দুর্বল হয়ে পড়ছেন। সব রোগীকেই যে হাসপাতালে ভর্তি করার প্রয়োজন আছে তা নয়। কিছু কিছু ক্ষেত্রে বাড়িতে রেখেও ডেঙ্গুর চিকিৎসা সম্ভব। ডেঙ্গু হয়েছে কিনা তা আগে সুনিশ্চিত হতে হবে। জ্বর আসার ৭২ ঘণ্টার মধ্যে NS1 টেস্ট করতে হবে। যদি রিপোর্ট পজেটিভ আসে তবে CBC টেস্ট করে প্লাটিলেট কাউন্ট দেখতে হবে। ৭২ ঘণ্টা পরে NS1 কখনো পজিটিভ আসে না। তাই অনেকে ভাবছেন যে, রিপোর্ট ভুল এলো। বিষয় হলো ৭২ ঘণ্টা পেরিয়ে গেলে NS1 নেগেটিভ হয়ে যায়। তাই তখন IgG, IgM টেস্টসহ CBC করাতে হবে।

ডেঙ্গুজ্বর হলে এবার প্লাটিলেট কমে যাওয়া ছাড়াও রক্তচাপ কমে গিয়ে রোগী শকে চলে যাচ্ছে। কারও কারও ক্ষেত্রে হেমোরেজও হচ্ছে। আবার কারও ক্ষেত্রে প্লাটিলেট কাউন্ট কমলেও তা সহনীয় পর্যায়ে থাকছে।

ডেঙ্গু রোগীর খাদ্য ও পুষ্টির প্রতিও রাখতে হবে বিশেষ নজর।

১. যারা হাসপাতালে থাকবেন তাদের IV fluid এর পাশাপাশি মুখে তরল খাবার দিয়ে total fluid ব্যালেন্স করতে হবে।

২. অপর পক্ষে যারা বাসায় আছেন তাদের পানিসহ অন্যান্য তরল মিলে ৩ লিটার সারাদিনে total fluid অর্থাৎ মুখে খাওয়া নিশ্চিত করতে হবে।

৩. তাড়াছা জ্বরে ক্যালোরি চাহিদা বেড়ে যায়। তাই ক্যালোরিযুক্ত খাবার বেশি করে দিতে হবে। এ সময় মুখে রুচিও থাকে না। তাই এমন খাবার দিতে হবে যা অল্প খেলেও চাহিদা মেটাতে সক্ষম হবে। যেমন- ভাতের পরিবর্তে খিচুড়ি, পায়েস, ফিরনি বা পুডিং দেওয়া যেতে পারে।

৪. মুখে ফলের রস, ডাবের পানি, স্যুপ ইত্যাদি পর্যাপ্ত পরিমাণে দিতে হবে।

৫. যদি জ্বরের সঙ্গে পাতলা পায়খানা বা ডায়রিয়া ও বমি হয়ে থাকে তবে শাক- সবজি, ডাল, দুধ ও দুধে তৈরি খাবার বাদ দিতে হবে। এ অবস্থায় ডাবের পানি, মুরগির স্যুপ, চালের স্যুপ বা ভাতের মাড়, আপেলের জুস খুব ভালো কাজ করে।

৬. মূল খাবার হিসেবে ভাত বা জাউয়ের সঙ্গে কাঁচকলার ঝোল দিলে রোগী উপকৃত হবে।

৭. মাছ বা মাংস বন্ধ না করে সহজপাচ্য মাছ যেমন- শিং, শোল, পাবদা ইত্যাদি লোফাইবার মাছ বা মুরগির তরকারি দেওয়া ভালো।

৮. গায়ে কোনো Rash থাকলে সাধারণ এলার্জিক খাবার যেমন- গরুর মাংস, হাঁসের ডিম, চিংড়ি মাছ, ইলিশ মাছ ও বেগুন ইত্যাদি না খাওয়াই ভালো।

৯. পেঁপে পাতার রস খাওয়া যেতে পারে। এতে এন্টি ইনফ্লামেটরি উপাদান পাওয়া যায় যা শরীর ব্যথা কমাতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে।

তাই জ্বরসহ অন্যান্য উপসর্গ দেখা দিলে দেরি না করে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। পাশাপাশি খাদ্য সম্পর্কে সচেতন হোন। ডেঙ্গু প্রতিকারে এই দুটি মোক্ষম হাতিয়ার। - সূত্র: অনলাইন

 

সম্পাদক ও প্রকাশক: সরদার মোঃ শাহীন
উপদেষ্টা সম্পাদক: রফিকুল ইসলাম সুজন
বার্তা সম্পাদক: ফোয়ারা ইয়াছমিন
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: আবু মুসা
সহ: সম্পাদক: মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিস: ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা।
বার্তা বিভাগ: বাড়ি # ৩৩, রোড # ১৫, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা।
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com