রাজশাহী এখন মাছের ‘রাজ্য’

প্রকাশের সময় : 2021-10-06 15:32:50 | প্রকাশক : Administration
রাজশাহী এখন মাছের ‘রাজ্য’

রাজশাহীর দুর্গাপুরের আঙ্করার বিল। কয়েক বছর আগেও বিলের কিছু জমিতে বছরে দুইবার ধান চাষ করা হতো, কিছু জমিতে একবার। বিলের উঁচু অংশে করা হতো সবজি চাষ। এতে তেমন লাভের মুখ দেখতেন না কৃষকরা। কিন্তু সেখানে এখন মাছের চাষ করে ভাগ্য ফিরেছে তাদের। পাশাপাশি স্বাবলম্বী হয়েছে যুবসমাজের বড় একটা অংশ।

গত কয়েক বছরে শ’খানেক পুকুর গড়ে উঠেছে আঙ্করার বিলে। এসব পুকুরে চাষ করা হচ্ছে রুই, কাতল, মৃগেল, কালবাউশ, সিলভার কার্প, ব্ল্যাক কার্প, গ্রাস কার্প, ট্যাংরা, পাবদাসহ নানা জাতের মাছ। বেশির ভাগ মাছ চাষি ৮ থেকে ১০ বছরের জন্য জমি বর্গা নিয়ে পুকুর কেটেছেন। এতে তাদের দিন বদলে গেছে। আর জমি বর্গা দিয়ে ফসল চাষের চেয়ে কয়েক গুণ বাড়তি টাকা পাচ্ছেন জমির মালিকরা।

শুধু আঙ্করার বিলেই নয়, উপজেলার উজান খলিস, জুগিশো, পালশা, রাতুগ্রাম, পুরান তাহেরপুর, কয়ামাজমপুর, গোপালপুর, শ্যামপুর, তেঘোর, আমগাছী, চৌপুখরিয়াসহ বেশির ভাগ বিলেই গত কয়েক বছরে হাজার হাজার পুকুর কাটা হয়েছে। একইভাব জেলার বাগমারা, মোহনপুর, পবা, তানোর, গোদাগাড়ি, বাঘা-চারঘাট এবং পুঠিয়ার বিভিন্ন বিলেও এখন অসংখ্য পুকুর।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানান, এসব পুকুর থেকে তাজা   মাছ ছড়িয়ে পড়ছে ঢাকা, সিলেট, নারাছুগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্তে। এতে কৃষিজমি হারালেও মাছ চাষ করে লাভের মুখ দেখছেন ব্যবসায়ীরা। লাভবান জমির মালিকও। যদিও বেশি লাভের আশায় নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে পুকুর কাটার অভিযোগ আছে। অনেক ক্ষেত্রে তিন ফসলি জমি কেটে পুকুর করা হয়েছে। ফলে কমছে কৃষিজমি। এমনকি আমের বাগানকেও পুকুরে রূপান্তর করার নজির আছে।

রাজশাহী জেলা মৎস্য কার্যালয় সূত্র জানায়, বর্তমানে রাজশাহীর ৯ উপজেলায় পুকুরের সংখ্যা ৫০ হাজার ৭২০। ১০ বছর আগে এই সংখ্যা ছিল ২০ হাজার। সূত্র মতে, জেলায় এখন ১৩ হাজার ১৫০ হেক্টর জমিতে পুকুর রয়েছে, যেখান থেকে বছরে ৮৩ হাজার ৪৯২ মেট্রিক টন মাছ উৎপাদিত হচ্ছে। এর মধ্যে রাজশাহীর চাহিদা ৫২ হাজার ৫৬৩ মেট্রিক টন। বাকি মাছ দেশের বিভিন্ন প্রান্তে যাচ্ছে। এতে বছরে প্রায় এক হাজার ৬৬৯ কোটি টাকা আয় হচ্ছে (গড়ে কেজি প্রতি ২০০ টাকা ধরে)।

তবে মাছ চাষিরা বলছেন, জমি বর্গা দিয়ে বসে থেকে বছর শেষে বিঘাপ্রতি ১০ থেকে ৬০ হাজার টাকা করে পকেটে তুলছেন জমির মালিকরা। পাঁচ থেকে আট বছর আগেও জমি বর্গা নিতে বছরে ১০ হাজার টাকা দিলেই হতো, এখন ৬০ হাজার টাকা দিতে হচ্ছে। কিন্তু এর বিপরীতে তাদের লাভ ততটা নয়।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, অনেক পুকুরের পারে আম, কলা, পেয়ারা, পেঁপে, লেবুসহ নানা ধরণের ফল ও সবজিও চাষ করা হচ্ছে। ফলে আসছে বাড়তি অর্থও। মাছ চাষি ও জমির মালিকরা জানান, শুধু মাছ চাষ করেই কোটিপতি বনে গেছেন, এমন চাষির সংখ্যা বাড়ছে দিন দিন। অনেক বেকার যুবক স্বাবলম্বী হয়েছেন।

দুর্গাপুরের মাছ চাষি নজরুল ইসলাম বলেন, ‘ফসল চাষ করতে গেলে একবার লাভ হয় তো তিন-চার বছর লোকসান গুনতে হয়। ধানের যে উৎপাদন খরচ হয়, সেটিও অনেক সময় ওঠে না। ফলে জমি বর্গা দিয়ে এখন কৃষকরা তার চেয়ে দুই থেকে চার গুণ বেশি ধান বা চাল কিনতে পারেন, যা জমিতে করে সম্ভব হয় না।’ এ কারণে দিনের পর দিন পুকুরের সংখ্যা বাড়ছে বলে জানান তিনি।

রাজশাহী জেলা মৎস্য কর্মকর্তা অলোক কুমার সাহা বলেন, ‘গত কয়েক বছরে রাজশাহীতে প্রায় দ্বিগুণ মাছ উৎপাদন বেড়েছে। গত ১০ বছরের মধ্যে পুকুরও বেড়েছে দু-তিন গুণ। মাছ চাষ করে অনেক বেকার যুবক স্বাবলম্বী হচ্ছেন। মাছ চাষের জন্য চাষিদের নানাভাবে উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে। ফলে জেলায় মাছ এখন উদ্বৃত্ত থাকছে। যা দেশের বিভিন্ন জেলা এবং দেশের বাইরে রপ্তানি করে বিপুল অর্থ আয় হচ্ছে।’ - কালের কণ্ঠ

 

সম্পাদক ও প্রকাশক: সরদার মোঃ শাহীন
উপদেষ্টা সম্পাদক: রফিকুল ইসলাম সুজন
বার্তা সম্পাদক: ফোয়ারা ইয়াছমিন
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: আবু মুসা
সহ: সম্পাদক: মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিস: ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা।
বার্তা বিভাগ: বাড়ি # ৩৩, রোড # ১৫, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা।
ফোন: ০১৮৯৬০৫৭৯৯৯
Email: simecnews@gmail.com