ঘুরে দাঁড়াচ্ছে কক্সবাজারের পর্যটনশিল্প

প্রকাশের সময় : 2022-01-12 16:36:41 | প্রকাশক : Administration
ঘুরে দাঁড়াচ্ছে কক্সবাজারের পর্যটনশিল্প

করোনা মহামারি কাটিয়ে ওঠে আবার ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা শুরু হয়েছে বাংলাদেশের পর্যটন শিল্পে। সমুদ্র সৈকতসহ পর্যটন স্পটগুলো উন্মুক্ত করে দেয়ায় পর্যটকের আগমন বেড়েই চলছে। বাড়ছে রাজস্ব আয়। এর মধ্যেই শুরু হয়েছে সেন্টমার্টিনে পর্যটক যাতায়াত। থার্টি ফাস্ট নাইট উদযাপনের প্রস্তুতি শুরু করে ক্ষতি পুষিয়ে নিতে ব্যবসায়ীদের নানা উদ্যোগ শুরু হয়েছে।

পর্যটন শিল্পের বিকাশে আরো সুযোগ-সুবিধা বাড়ানোর ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন সংশ্লিষ্টরা। পর্যটকদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে কাজ করছে টুরিস্ট পুলিশ। কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত ছাড়াও, চকরিয়ার ডুলাহাজারা বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্ক, রামুর বৌদ্ধবিহার, বোটানিক্যাল গার্ডেন, মাথিনের কূপ, হিমছড়ী, আদিনাথ মন্দির, পাটুয়ারটেক, দরিয়ানগর, ইনানী পাথরের সৈকত, জালিয়ার দ্বীপসহ সবগুলো পর্যটন স্পট এখন পর্যটকে মুখরিত।

প্রতিদিন আসছে দেশি-বিদেশি পর্যটকরা। সাড়ে চার শতাধিক হোটেল মোটেল গেস্ট হাউসগুলোতে সাপ্তাহিক ছুটির দিনে কোন কক্ষ খালি থাকছে না। সপ্তাহের মাঝামাঝি সময়ে এসব হোটেল- মোটেল গেস্ট হাউজের ৭০ শতাংশ রুম বুকিং থাকে। কিছু কিছু পর্যটন স্পটে অবকাঠামোগত উন্নয়ন করে আরও আকর্ষণীয় করে তোলা হচ্ছে পর্যটকদের জন্য।

পর্যটকদের আসার আগমন অব্যাহত থাকলে করোনাকালীন ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়া যাবে। কক্সবাজারে আগত পর্যটকদের সুযোগ-সুবিধা আরো বাড়াতে হবে। বর্তমানে যে পর্যটন স্পটগুলো রয়েছে তাতে সন্ধ্যার পর তেমন কোন আকর্ষণ থাকেনা। তাই সন্ধ্যার পর পর্যটকদের যাতে ধরে রাখা যায় সেজন্য সরকারকে উদ্যোগ নিতে হবে।

চলতি অর্থ বছরে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৪ শত ৬ কোটি টাকা। এর মধ্যে ইতিপূর্বে অক্টোবর পর্যন্ত আদায় হয়েছে ৭৭ কোটি ৫৯ লাখ টাকা। এছাড়া গেল বছর করোনাকালীন সময়ে আদায় হয়েছে ২ শত ৯৯ কোটি ৬১ লাখ টাকা। বছরের শুধু মাত্র পর্যটন খাত থেকে ১ শ কোটি টাকার রাজাস্ব আদায় হয়ে থাকে। করোনার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে সরকার ব্যবসায়ীদের অনেক সহযোগিতা করে যাচ্ছে। এসি হোটেল যেখানে ১৫% ছিল সেখান থেকে তাদের ভ্যাট ১০% করা হয়েছে। ননএসি যেখানে সাড়ে ৭ শতাংশ ছিল সেখানে ৫ শতাংশ করা হয়েছে।

পর্যটকদের নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্যবিধি মানাতে কাজ করছে পুলিশ। আগত পর্যটকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতসহ সবগুলো পর্যটন স্পটে পুলিশের সদস্যরা রাত-দিন দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছে। নিরাপত্তার পাশাপাশি নানাভাবে পর্যটকদের সেবা দেওয়া হচ্ছে। বেশকিছু পর্যটন স্পটে অবকাঠামোগত উন্নয়ন কাজ চলছে। কক্সবাজারে আগত পর্যটকদের নানাপ্রকার সুযোগ- সুবিধা দিতে আলাদা পর্যটন সেল থেকে সবকিছু মনিটরিং করা হয়ে থাকে। - সূত্র: অনলাইন

 

সম্পাদক ও প্রকাশক: সরদার মোঃ শাহীন
উপদেষ্টা সম্পাদক: রফিকুল ইসলাম সুজন
বার্তা সম্পাদক: ফোয়ারা ইয়াছমিন
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: আবু মুসা
সহ: সম্পাদক: মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিস: ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা।
বার্তা বিভাগ: বাড়ি # ৩৩, রোড # ১৫, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা।
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com