মীরজাফরের বংশধর এখনও পালিয়ে বেড়ায়

প্রকাশের সময় : 2022-01-12 16:37:38 | প্রকাশক : Administration
মীরজাফরের বংশধর এখনও পালিয়ে বেড়ায়

দেবদুলাল মুন্না: পলাশীর যুদ্ধের আড়াই’শ বছর পরেও বিশ্বাসঘাতকতার অভিশাপ থেকে মুক্তি মেলেনি মীর জাফরের বংশধরদের। পূর্বপুরুষদের বিশ্বাসঘাতকতার গ্লানি এখনও বংশ পরস্পরায় বয়ে চলেছেন তারা। হীনমন্যতা ও লজ্জায় স্বাভাবিক জীবন যাপন করতে পারেন না তারা। গোপন রাখেন আত্মপরিচয়। ভারতের মুর্শিদাবাদে ছড়িয়ে আছে মীর জাফরের বংশধররা।

কোন এলাকায় তাদের পরিচয় প্রকাশ হয়ে গেলে তারা অন্য এলাকায় পাড়ি জমান। মুর্শিদাবাদের মীর জাফরের প্রাসাদের প্রধান গেটটি আজও ‘নেমক হারাম দেউরি’ নামে পরিচিত। এলাকাবাসী ‘নেকম হারাম দেউড়ি’ তে ঢুকে মীর জাফরের বংশধরদের গালাগাল করতো। টিকতে না পেরে তারা বিভিন্ন এলাকায় পরিচয় গোপন করে বসবাস করছে। এটি দুঃখজনক। কারণ মীরজাফরের অপরাধের দায় কেন নিবেন তার বংশধরেরা।

সলিল ঘোষের সহপাঠি জাফর আলম মির্জা হচ্ছেন মীর জাফরের অষ্টম বংশধর। এখন ‘নেকম হারাম দেউড়ি’ প্রাসাদ ছেড়ে হাজার দুয়ারী এলাকায় বসবাস করছেন। জাফর আলম মির্জা এক সময় শিক্ষকতা করতেন। এখন অবসর নিয়েছেন। শিক্ষকতা করার সময়ও অনেক শিক্ষার্থী তাকে কটুক্তি করতো। তিনি একটি বইও লিখেছিলেন। সে বইয়ের নাম, ‘আমি মীরজাফর না।’ পরে সমালোচনা মুখে এ বইটি জাফর আলম মির্জা বাজার থেকে তুলে নেন ।

এই বংশের ওপর সাধারণ মানুষের দৃষ্টিভঙ্গি খারাপ। এমনকি এই বংশের ভালো লোকগুলোকেও এখন কেউ বিশ্বাস করে না। এই কলঙ্ক থেকে বাঁচতে একটি বই লিখেছিলেন জাফর আলম। এই বইয়ে তিনি বিভিন্ন যুক্তি দিয়ে প্রমাণের চেষ্টা করেছেন যে, মীর জাফর বিশ্বাসঘাতক ছিলেন না। এ নিয়ে বেশ তোলপাড় হলে বইটি বাজার থেকে সরিয়ে ফেলা হয়।

 

 

সম্পাদক ও প্রকাশক: সরদার মোঃ শাহীন
উপদেষ্টা সম্পাদক: রফিকুল ইসলাম সুজন
বার্তা সম্পাদক: ফোয়ারা ইয়াছমিন
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: আবু মুসা
সহ: সম্পাদক: মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিস: ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা।
বার্তা বিভাগ: বাড়ি # ৩৩, রোড # ১৫, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা।
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com