ডিম্বাকৃতি বস্তু ঘিরে রহস্য

প্রকাশের সময় : 2022-09-15 12:08:04 | প্রকাশক : Administration
ডিম্বাকৃতি বস্তু ঘিরে রহস্য

কোনোটির ওজন ৪০ কেজি, তো কোনোটি আবার ২৫ কেজি। ভারতের মধ্যপ্রদেশের সেন্ধওয়া জেলায় জঙ্গলের ভেতরে ডিমের মতো দেখতে বিশাল বস্তুকে ঘিরে রহস্য তৈরি হয়েছে। সেগুলো কি ডাইনোসরের ডিম, নাকি ক্ষয়ে যাওয়া পাথর তা নিয়ে শুরু হয়েছে জোর জল্পনা।

পুরাতাত্ত্বিকদের মতে, এগুলো ক্রিটাসিয়াস যুগের ডাইনোসরের ডিম। ১০টি এ রকম ডিম নাকি ওই জেলায় খুঁজে পাওয়া গেছে। কিন্তু তাদের এই তত্ত্ব মানতে নারাজ ভূতত্ত্ববিদরা।

তাদের দাবি, এগুলো কোনো জীবাশ্ম ডিম নয়। লাখ লাখ বছর ধরে পাথর ক্ষয়ে গিয়েই এ রকম ডিমের আকৃতি নিয়েছে। দুদিন আগেই রাজ্যে পুরাতত্ত্ব বিভাগের একটি দল ওই জঙ্গলে পর্যবেক্ষণ চালানোর সময় ডিম্বাকৃতি বস্তুগুলোকে দেখতে পান তারা।

পুরাতত্ত্ব বিভাগের কর্মকর্তা ডিপি পান্ডে জানান, সবচেয়ে বড় ডিমটির ওজন ৪০ কেজি। ২৫ কেজি ওজনেরও বেশ কয়েকটি পাওয়া গেছে। ইনদওরে তিনটি ডিম নিয়ে যাওয়া হয়েছে। জাদুঘরে সেগুলো রাখা হবে প্রদর্শনীর জন্য।

জীবাশ্মবিদ ধনঞ্জয় মহাবে জানান, ওই বস্তুগুলো ৬৭০ কোটি বছর আগের। তবে ব্যাসল্ট শিলা ক্ষয়ে গিয়েই এগুলো তৈরি হয়েছে বলে মনে করেন ধনঞ্জয়। ২০০৭-এ এই রাজ্যের ধর জেলায় সরোপড ডায়নোসরের ডিম পাড়ার জায়গা এবং জীবাশ্ম হয়ে যাওয়া ডিম উদ্ধার হয়েছিল। ফলে সেন্ধোয়া জেলায় উদ্ধার হওয়া ডিম্বাকৃতি বস্তুগুলোকে নিয়ে রহস্য বাড়ছে। - সূত্র: অনলাইন

 

সম্পাদক ও প্রকাশক: সরদার মোঃ শাহীন
উপদেষ্টা সম্পাদক: রফিকুল ইসলাম সুজন
বার্তা সম্পাদক: ফোয়ারা ইয়াছমিন
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: আবু মুসা
সহ: সম্পাদক: মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিস: ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা।
বার্তা বিভাগ: বাড়ি # ৩৩, রোড # ১৫, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা।
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com