২ যুগ ধরে বই-গাছ বিতরণ করছেন তিনি

প্রকাশের সময় : 2023-05-31 11:59:00 | প্রকাশক : Administration
২ যুগ ধরে বই-গাছ বিতরণ করছেন তিনি

রনি মিয়াজী: সঙ্গে প্লাস্টিক ও পলিথিন প্ল্যাকার্ড। ঘুরে ঘুরে কোথাও বা আগে পড়তে দেওয়া বই বদলে দিচ্ছেন, বই পড়ার জন্য গাছের চারা পুরস্কার দিচ্ছেন। কোথাওবা বসিয়ে ফেলছেন বই পাঠের আসর। আসরে যেমন সাহিত্যবই, বিজ্ঞানচিন্তা, ধর্নীয়বই পাঠ করছেন তেমন শিশুকিশোরদের স্কুলের পড়াশোনার খোঁজখবরও নিচ্ছেন।

জানা গেছে, মাহমুদুল ইসলাম মামুন উপজেলার সদর ইউনিয়নের আজিজনগর এলাকার মৃত আজহারুল ইসলাম ও মাহমুদা বেগম দম্পতির দ্বিতীয় ছেলে। মামুন রংপুর কারমাইকেল কলেজে বাংলায় স্নাতকোত্তর সমাপ্ত করেছেন। মামুন শৈশব থেকেই গাছ লাগানোর মধ্যদিয়ে তার এই কার্যক্রম শুরু করেছিলেন। কালক্রমে যোগ হয়েছে নানা ধরনের সামাজিক কাজ।

মহামারি করোনাকালেও থেমে থাকেনি এই পরিবেশবন্ধু ও শিক্ষাকর্মীর কাজ। দূরত্ব বজায় রেখে বইয়ের আসর বসান, আসরে তিনি নিয়মিত সাবান দিয়ে হাত ধোয়া, ইমিউনিটি বাড়াতে ভিটামিন সি সমৃদ্ধ দেশীয় ফল খাওয়া, প্রোটিন, শাকসবজি, পর্যাপ্ত পানি পান এসব বিষয়ে তদারকি করেন।

শুধু তাই নয়, সাড়া জাগানো এই তরুণকে প্রতিদিন বাজারে উচ্ছিষ্টাংশ সংগ্রহ করেও রিসাইকেল করতে দেখা যায়। এতে বাজার যেমন আর্বজনা ও দুগর্ন্ধমুক্ত হয়েছে তেমনি বাজারের উচ্ছিষ্টাংশ আগে দোকানদার দেশের একমাত্র ক্ষুদ্রতম নদী গবরায় ফেলানোর কারণে গোবরা নদী যে দূষণ হয়েছিল তা মামুন এমন ভিন্নধর্মী উদ্যোগে আজ নদী দূষণমুক্ত হয়েছে।

জানা যায়, মামুনের এসব ভিন্নধর্মী উদ্যোগ বাস্তবায়ন করতে তিনি কারও কাছে সহযোগিতা নেন না। মামুন তার বাড়িতে নিজে হাঁস, মুরগি, কবুতর পালনসহ, সবজি চাষ করে গ্রামে বা বাজারে বিক্রি করে যে সামান্য অর্থ পান, তা দিয়েই তিনি গাছের চারা ও বই কেনার পাশাপাশি অন্য সামাজিক কার্যকর্ম পরিচালনা করছেন ২ যুগেরও বেশি সময় ধরে।

এ বিষয়ে কথা হয় স্থানীয় স্কুলপড়ুয়া শিক্ষার্থী রুপা আক্তারের সাথে। সে জানায়, মামুন আংকেল আমাদের বই দেয়। বইয়ের আসর বসিয়ে বিভিন্ন বিষয়ে শিক্ষা দান করে। আমাদের ফলের গাছ উপহার দেয়। সেই গাছ রোপণ করি আমরা। মামুন আংকেল আমাদের যে বই দেয় সেই বই পড়া শেষ হলে তিনি বাসায় এসে ফেরত নিয়ে আবার নতুন বই দেন। এতে আমি অনেক কিছু শিখতে পারি।

একই কথা বলেন সজল হোসেন নামে আরেক শিক্ষার্থী। সে জানায়, ‘মামুন চাচ্চু আমাদের      খাবার আগে সাবান দিয়ে হাত ধুতে বলে, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকতে বলে। সবময় ফলমূল খেতে বলে। পাশাপাশি আমাদের ভালো করে লেখাপড়া করতে বলে। মামুন চাচ্চু আমাকে বিনা পয়সায় তার বাড়িতে প্রাইভেট পড়ায়। আমি এবার এসএসসি পরীক্ষায় ভালো ফলাফল করেছি। তিনি কয়েকদিন পর পর গাছ ও বই উপহার দেন এতে আমার অনেক ভালো লাগে।’

এদিকে ছোট ছোট শিশুদের মাঝে জ্ঞানের আলো ছড়িয়ে দেওয়ায় অবিভাবকের কাছে বেশ জনপ্রিয় এই তরুণ। তার বিষয়ে কথা হয় স্থানীয় কয়েকজন অভিভাবকের সঙ্গে। তারা বলেন, বর্তমান যুগে কেউ কারো না। প্রত্যন্ত অঞ্চলে মামুনের মতো একজন মানুষ শিশু থেকে শুরু করে বৃদ্ধ পর্যন্ত সবাইকে সে যেভাবে বিনাপয়সায় বই ও গাছ উপহার দিচ্ছে, বিনাপয়সায় লেখাপড়া করাচ্ছে, সামাজিক কাজ করছে এটা অনেক প্রশংসনীয় উদ্যোগ।

এ বিষয়ে কথা তেঁতুলিয়া সদর ইউনিয়নের আজিজনগর এলাকার বাসিন্দা আব্দুর রহিমের সঙ্গে। তিনি বলেন, মামুন আমার এলাকার ছোট ভাই। সে মানুষের উপকার ও পরিবেশ দূষণরোধে যে কাজ করছে এটা প্রশংসনীয় কাজ। সে এলাকার গরিব মেধাবী শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে বই ও গাছ দেওয়ার পাশাপাশি লেখাপড়া শেখাচ্ছে। অনেকেই তার কাছে পড়ে ভালো ফলাফল করছে।

মামুনের বিভিন্ন সামাজিক উদ্যোগের মধ্যে সবচেয়ে নজর কেড়েছে মাছ বাজারের উচ্ছিষ্টাংশ নিজ হাতে অপসারণ ও পরিবেশ দূষণ রোধে প্লাস্টিক জড়ানোর পর তা পুড়ে ফেলানোর উদ্যোগে। তার এমন উদ্যোগে তেঁতুলিয়ায় পরিবেশ ও নদীদূষণ অনেকটাই রোধ হয়েছে বলে দাবি স্থানীয়দের।

তেঁতুলিয়া চৌরাস্তাবাজারের মাছ দোকানি উমর আলী তিনি বলেন, আগে মাছের নাড়ি-ভুঁড়ি নদীতে ফেলতাম। এতে নদী দূষণ হতো। আমাদের ভুল কাজ দেখে মামুন নিজ হাতে প্রতিদিন বাজারে এসে একটি বালটিতে করে এসব নিয়ে গিয়ে মানুষের হাঁস-মুরগিকে দেন। শুধু তাই এ থেকে জৈবসার তৈরি করে গাছের গোড়ায় দেন মামুন।

পরিবেশপ্রেমিক তরুণ মাহামুদুল ইসলাম মামুন বলেন, আমার সব কাজ ইবাদতের মতো। আমি টাকা চাই না, আমি চাই আমার কাজকে মানুষ, রাষ্ট্র সম্মান করুক। কষ্ট করে কাজ করা আমার সয়ে গেছে। দুর্যোগে জরাগ্রস্ত পৃথিবীর জন্য এসব কাজ এখন জরুরি। তাই এখন এসব কাজকে আমি ইবাদত মনে করি। দুই যুগের বেশি সময় ধরে গাছ লাগাচ্ছি। এখনো প্রতিদিন গাছ লাগানো, নদী দূষণরোধে বাজারের উচ্ছিষ্টাংশ রিসাইকেল করা, পলিথিন প্রতিরোধ, গ্রামে গ্রামে ঘুরে ঘুরে বই পড়ানো সহ নানাবিধ দেশসেবা চালিয়ে যাচ্ছি। তেঁতুলিয়া উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি এরশাদ হোসেন সরকার বলেন, মামুন ছোটবেলা থেকেই শিক্ষা ও পরিবেশ দূষণরোধে কাজ করছে। সে প্রতিদিন কোনো-না-কোনো পাড়া-মহল্লায় গিয়ে জ্ঞানের আসর বসিয়ে শিশুকিশোরদের মাঝে মুক্তিযুদ্ধের গল্প ও বিভিন্ন বিষয়ে পাঠ দান করাচ্ছে। মানুষের মাঝে বিনামূল্যে বই ও গাছ বিতরণ করছে দীর্ঘদিন ধরে। পাশাপাশি সে পরিবেশ ও নদী দূষণরোধে বিভিন্ন সামাজিক উদ্যোগ নিয়েছে যা সমাজের জন্য অনেক মঙ্গলজনক।

তেঁতুলিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সোহাগ চন্দ্র সাহা বলেন, মামুন নামের ঐ তরুণ বিনামূল্যে বই ও গাছ বিতরণের পাশাপাশি পরিবেশ দূষণরোধে যে কাজ করছে আসলেই একটি প্রশংসনীয় উদ্যোগ। মামুন যদি তার সামাজিক কার্যক্রম পরিচালনা করতে কোনো প্রকার সহযোগিতা চায় সেক্ষেত্রে তেঁতুলিয়া উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাকে সহযোগিতা করা হবে। - সুত্র: ঢাকা পোষ্ট

 

সম্পাদক ও প্রকাশক: সরদার মোঃ শাহীন
উপদেষ্টা সম্পাদক: রফিকুল ইসলাম সুজন
বার্তা সম্পাদক: ফোয়ারা ইয়াছমিন
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: আবু মুসা
সহ: সম্পাদক: মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিস: ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা।
বার্তা বিভাগ: বাড়ি # ৩৩, রোড # ১৫, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা।
ফোন: ০১৮৯৬০৫৭৯৯৯
Email: simecnews@gmail.com