ম্যানহোলই যখন ঘরবাড়ি

প্রকাশের সময় : 2018-12-19 10:35:48 | প্রকাশক : Admin
ম্যানহোলই যখন ঘরবাড়ি

সিমেক ডেস্কঃ ম্যানহোল, ড্রেন নামগুলি খুবই নোংরা মনে হতে পারে। কিন্তু এই নোংরা শব্দগুলোই আধুনিক সভ্যতার ভিত্তি। এই নোংরা জায়গা দিয়ে আধুনিক সভ্যতার যত ময়লা ধুয়ে যায় আর সভ্যতাকে করে পরিচ্ছন্ন। তবে এই নোংরা জায়গাটিই যদি হয় মানুষের বাসস্থান। কি গাঁ ঘিনঘিন করে। তাহলে পুরো ঘটনাটি জানা যাক।

পরিত্যক্ত ম্যানহোলে আটকা পড়ে মানুষকে অসময়ে পৃথিবী থেকে বিদায় নেওয়ার কথা প্রায় শোনা যায়। অথচ সেই ম্যানহোল কিনা এখন মানুষের বাসস্থান! শুনতে অবাক লাগলেও এমন ঘটনার জন্ম দিয়েছেন আর্টিস্ট বিয়ানকোশক। ইতালির মিলানের কিছু পরিত্যক্ত ম্যানহোলকে তিনি বদলে দিয়েছেন আন্ডারগ্রাউন্ড সিক্রেট রুমে। মিলানের লোদি এলাকার পরিত্যক্ত ম্যানহলগুলোই এখন রিয়ানকোশকের ভূগর্ভস্থ ক্ষুদ্র বাসস্থান। আর তার এই কাজের অনুপ্রেরণা হচ্ছেন সেসব মানুষ যারা রোমানিয়ার বুখারেস্টের নর্দমা ব্যবস্থাপনাকে বাসস্থানে রূপান্তর করার কথা ভাবছেন। বিয়ানকোশক মোট তিনটি ম্যানহোলকে বসবাসযোগ্য ভিন্নমাত্রিক ঘরে রূপান্তর করেছেন। এর মধ্যে একটি স্নানঘর, ছোট ছোট ব্যবহার্য সামগ্রী দিয়ে সাজানো একটি রান্নাঘর ও অন্য আরেকটি ঘর। এই সিরিজের নাম তিনি দিয়েছেন বর্ডারলাইফ।

সভ্যতা যতই আগাচ্ছে চারপাশকে মানুষের নিজের মত করে কাজে লাগানোর প্রবণতা ততই বাড়ছে। তবে এটা শুধু মানুষের সৃষ্টিশীলতা ভেবে বসা ঠিক হবে না। এটা যে ধনী গরিবের বৈষম্য চরম মাত্রা প্রকাশ করছে তা নিয়ে কোন সন্দেহ নেই।

 

সম্পাদক ও প্রকাশক: সরদার মোঃ শাহীন
উপদেষ্টা সম্পাদক: রফিকুল ইসলাম সুজন
বার্তা সম্পাদক: ফোয়ারা ইয়াছমিন
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: আবু মুসা
সহ: সম্পাদক: মোঃ শামছুজ্জামান

প্রকাশক কর্তৃক সিমেক ফাউন্ডেশন এর পক্ষে
বিএস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড,
ওয়ারী, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ হতে প্রকাশিত।

বানিজ্যিক অফিস: ৫৫, শোনিম টাওয়ার,
শাহ মখ্দুম এ্যাভিনিউ, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা।
বার্তা বিভাগ: বাড়ি # ৩৩, রোড # ১৫, সেক্টর # ১২, উত্তরা, ঢাকা।
ফোন: ০১৯১২৫২২০১৭, ৮৮০-২-৭৯১২৯২১
Email: simecnews@gmail.com